ঢাকা, Tuesday 28 September 2021

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

সম্ভ্রান্ত কন্যা সৈয়দা জয়নব তোমাকে সালাম

প্রকাশিত : 05:46 PM, 5 October 2020 Monday
164 বার পঠিত

| ডোনেট বিডি নিউজ ডেস্কঃ |

এজিদের সভায় তেজস্বিনী জয়নব (রা.) যে বক্তব্য দিয়েছিলেন সেটা মোটামুটি প্রচারিত এবং একটু দীর্ঘ।

পবিত্র কোরআন শরিফের বিভিন্ন আয়াত এবং নিজ পরিবারের শান-মান উল্লেখ করে এজিদেরই সভাসদ ও প্রজাদের সামনে তিনি এজিদকে লা-জওয়াব করে দিয়েছিলেন। পরিবারের মর্যাদা বজায় রেখে অভাবনীয় সাহসিকতার সঙ্গে তিনি তার ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

কয়েকটি বাক্য এমন- ‘হোসাইন ইবনে আলীকে (রা.) হত্যা করে তুমি তোমার কাফের পূর্বপুরুষদের কাছে নিজের জায়গা করে নিয়েছ। তুমি গর্বের সঙ্গেই তোমার কৃতকর্ম প্রচার কর আর তোমার পূর্বপুরুষরা এ কাজ অনুমোদনও করত। তুমি প্রার্থনা কর আল্লাহ তোমার হাত দুটো অসাড় না করে দেন…

কী আশ্চর্য যে ধার্মিক, নবীর (সা.) পরিবার এবং

প্রতিনিধিদের জীবন দিতে হয়েছে এক স্বাধীন ক্রীতদাস, জালিম ও পাপির হাতে। এরা আমাদের রক্ত ঝরিয়েছে এবং আমাদের মাংস যেন এদের খাদ্য হিসেবে পরিবেশিত হচ্ছে।

আর আমরা তাদের জন্য কষ্টে আছি যাদের পবিত্র দেহ যুদ্ধের ময়দানে তীর দিয়ে ক্ষতবিক্ষত হয়ে বিনা কাফনে বিনা দাফনে পড়ে আছে। এজিদ! তুমি যদি আমাদের পরাজয় তোমার অর্জন মনে কর তবে অবশ্যই তোমাকে এর মূল্য দিতে হবে। আল্লাহ তাঁর বান্দাদের প্রতি অন্যায়ের ওয়াদা করেননি।

আমরা আল্লাহর ওপরই ভরসা করি। তিনিই একমাত্র আমাদের মুক্তি এবং নিরাপত্তার আশ্রয়। একমাত্র তাঁর কাছেই আমরা দৃঢ় আশা রাখি।…আল্লাহর শপথ!

ইমানদারদের হৃদয় থেকে তুমি আমাদের স্মরণ মুছে ফেলতে পারবে না,

না পারবে আমাদের আয়াতসমূহ ধ্বংস করতে, না পারবে আমাদের সমমানের মর্যাদা ও গৌরবে পৌঁছতে।’

ইমাম জয়নুল আবেদীন (রা.) কম বয়স্ক ও অসুস্থ থাকা সত্ত্বেও এজিদের বেয়াদবি ও ধৃষ্টতাপূর্ণ আচরণের তেজদীপ্ত জবাব দেন। এজিদও ইমাম জয়নুল আবেদীনকে (রা.) হত্যার নির্দেশ দিয়েছিল; কিন্তু হজরত জয়নবের (রা.) বাধা দেয়ার কারণে তা হয়নি, সভাসদ ও প্রজাদের সামনে নিজেকে আর হেয় হতে হয়নি। ইতোমধ্যে কারবালার নিদারুণ ঘটনা ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছিল।

কারবালা থেকে কুফার পথে, কুফা শহরে, কুফা থেকে দামেস্কের পথে এবং দামেস্কে যখন সুযোগ হয়েছে লোকালয়গুলোতে মা জয়নব (রা.) এবং কাফেলার অন্য সদস্যরা কারবালার যুদ্ধের ঘটনা জানিয়েছেন।

নবী পরিবারের সদস্যদের প্রতি এরকম

জুলুম দুর্ব্যবহারের কারণে এজিদের রাজ্যে অসন্তোষ ও উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। বিদ্রোহের ভয়ে এজিদ তাদের সবাইকে মুক্ত করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।

মা জয়নব (রা.) তখন দামেস্কেই প্রথা অনুযায়ী ইমাম হোসাইন (রা.)-এর জন্য শোক পালন করেন যা ইতঃপূর্বে তারা কেউ করতে পারেননি। সৈয়দা জয়নব বিনতে আলীর (রা.) সিদ্ধান্তে কালো কাপড়ে আচ্ছাদিত কাফেলায় তারা মদিনা শরিফের পথে রওনা দেন, শারীরিক ও মানসিক কষ্টে মা সখিনা বিনতে হোসাইন (রা.) শিশু বয়সে দামেস্কেই ইন্তেকাল করেন।

শোকে ভারাক্রান্ত সৈয়দা জয়নব (রা.) ধূসর চুল এবং বেঁকে যাওয়া পিঠ নিয়ে মদিনা শরিফে ফিরে আসেন; কিন্তু যে যন্ত্রণা আর জুলুম পাড়ি দিয়ে এসেছেন তারপর আর তিনি

বেশি দিন বাঁচেননি।

যদিও তার মৃত্যুর ঠিক তারিখ পাওয়া যায়নি; সম্ভবত মদিনা শরিফে আসার ৬ মাস পর হিজরি ৬২ সনে ৫৭ বছর বয়সে তার ওফাত হয়। ইন্তেকালের স্থান নিয়েও মতভেদ আছে। কেউ বলে তার মাজার শরিফ মদিনা শরিফে। কেউ বলে কায়রোতে আবার কেউ বলে দামেস্কে।

মতভেদে মৃত্যুর কিছু সময় আগে তিনি তার স্বামী হজরত আবদুল্লাহ ইবনে জাফর (রা.)-এর সঙ্গে দামেস্কের কাছাকাছি একটা গ্রামে বাস করতেন অথবা তার মদিনা শরিফে আসার কিছুদিন পর এজিদ সৈন্য পাঠিয়ে তাকে এবং তার পরিবারের সব সদস্যকে দামেস্কে নিয়ে যায় এবং সেখানেই তার মৃত্যু হয়।

আবার কেউ কেউ বলেন, কারবালার যুদ্ধের পর তিনি সপরিবারে

কায়রো চলে আসেন। সেখানে ৯ মাস পর তিনি ইন্তেকাল করেন। তার ওফাত দিবস পালিত হয় মতভেদে ১৫ রজব, ২৪ সফর বা ২১ জমাদিউল সানি।

কায়রো এবং দামেস্ক দুই জায়গাতেই ‘সৈয়দা জয়নব মসজিদ’ নামে মসজিদ আছে। যেখানে তার মাজার আছে বলে দাবি করা হয়। বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে মূলত এ কারণে যে, তার ছোট বোনের নাম সৈয়দা উম্মে কুলসুম বিনতে আলী (রা.), যাকে জয়নব আল-সুগরা (রা.) বা ‘ছোট জয়নব’ বলা হতো।

সব জায়গাতেই শান-শওকত ও যথাযথ মর্যাদার সঙ্গে তার ওফাত দিবস পালিত হয়। দামেস্কে ‘সৈয়দা জয়নব মসজিদে’ তার বন্দনায় আবৃত্তি করা হয়-

সালাম আপনার ওপর! হে মহিমান্বিত কন্যা, আল্লাহর পবিত্র

বান্দা!

সালাম আপনার ওপর! হে সম্ভ্রান্ত কন্যা, আল্লাহর পবিত্র বান্দা!

সালাম আপনার ওপর! হে মহীয়ান সহোদরা, আল্লাহর পবিত্র বান্দা!

সালাম এবং আল্লাহর রহমত ও কল্যাণ আপনার প্রতি, হে মজলুমের মাতা, জয়নব (রা.)।

তথ্যসূত্র : https://www.al-islam.org/victory-truth-life-zaynab-bint-ali-muna-haeri-bilgrami

https://www.imamreza.net/old/eng/imamreza.phpid=8921

https://en.wikipedia.org/wiki/Zaynab^bint^Ali

https://en.wikipedia.org/wiki/Al-Sayeda^Zainab^Mosque

https://en.wikipedia.org/wiki/Sayyidah^Zaynab^Mosque

লেখক : প্রাবন্ধিক, গবেষক

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি ডোনেট বাংলাদেশ'কে জানাতে ই-মেইল করুন- donetbd2010@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

ডোনেট বাংলাদেশ'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© 2021 সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। ডোনেট বাংলাদেশ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT