শৃঙ্খলা ভেঙে পড়ায় আ.লীগে ভরাডুবি - বর্ণমালা টেলিভিশন

ইউনিয়ন পরিষদের দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে সিলেটে আওয়ামী লীগের ভরাডুবি হয়েছে। এ জন্য দলের নেতারা দলীয় শৃঙ্খলা ভেঙে পড়াকে দায়ী করেছেন। ১১ নভেম্বর সিলেট সদর উপজেলায় ৪টি, কোম্পানীগঞ্জে ৫টি ও বালাগঞ্জের ৬টি ইউপি নির্বাচনের মধ্যে মাত্র ৬টিতে নৌকা জয়ী হয়েছেন।

বাকি ৯টির মধ্যে স্বতন্ত্র হিসাবে বিএনপি ৫টি, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ২টি এবং জামায়াত ও খেলাফত মজলিসের একজন করে প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। এর মধ্যে সদরের কান্দিগাঁও ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগের নিজাম উদ্দিনকে হারিয়ে চেয়ারম্যান হয়েছেন জামায়াতের আবদুল মনাফ।

নির্বাচনে এই ভরাডুবি নিয়ে শাসক দলের তৃণমূলে ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে। দলের মধ্যে বিভেদ দূর, শৃঙ্খলা ফেরাতে না পারলে ইউনিয়ন পরিষদের তৃতীয় ধাপের নির্বাচনেও

ভরাডুবির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

তৃতীয় ধাপে আগামী ২৮ নভেম্বর সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার ৬টি, জৈন্তাপুরে ৫টি ও দক্ষিণ সুরমায় ৫টি ইউনিয়নে নির্বাচন হবে। এই তিন উপজেলার সব ইউনিয়নেই বিএনপির একাধিক প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

সিলেট সদর উপজেলার মোগলগাঁও ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিরণ মিয়া চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। আগেও তিনি চেয়ারম্যান ছিলেন। জালালাবাদ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের ওবায়দুল্লাহ ইসহাক। হাটখোলা ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা আজির উদ্দিনকে হারিয়ে খেলাফত মজলিসের মাওলানা রফিকুজ্জামান বিজয়ী হয়েছেন।

নির্বাচন নিয়ে কথা হয় সিলেট সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজম উদ্দিনের সঙ্গে। তিনি বলেন, জনগণ ভোট দিয়েছে ঠিকই। তবে দলের মীরজাফরদের কারণে দল পরাজিত হচ্ছে। আওয়ামী লীগে ঘাপটি

মেরে থাকা মোস্তাকের অনুসারীদের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান না করা পর্যন্ত পরাজয়ের পদধ্বনি শুনতেই হবে। এখনই যদি পদক্ষেপ নেওয়া না হয় তাহলে আরও ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হবে।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ইসলামপুর পূর্ব ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ বাবুল মিয়াকে হারিয়ে বিএনপি নেতা আলমগীর হোসেন আলম স্বতন্ত্র হিসাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তেলিখালে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবদুল ওয়াদুদ আলফু বিজয়ী হয়েছেন। আগেও তিনি এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলেন।

ইছাকলস ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ কুটি মিয়াকে হারিয়ে বিজয়ী হয়েছেন বিএনপি নেতা সাজ্জাদুর রহমান, উত্তর রণিখাই ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিনকে হারিয়ে আওয়ামী লীগের ফয়জুর রহমান বিজয়ী হয়েছেন। দক্ষিণ রণিখাইয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ইকবাল হোসেন ইমাদ বিজয়ী হয়েছেন।

জানতে

চাইলে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আফতাব আলী কালা মিয়া বলেন, গ্রামগঞ্জে নেতাকর্মীরা দলীয় সিগনাল মানে না। নিজ নিজ এলাকায় পছন্দের প্রার্থী থেকে যায়। তাই আওয়ামী লীগই আওয়ামী লীগের শত্রু হয়ে উঠেছে। তৃণমূল থেকে নির্বাচিতরা কেন্দ্রে গিয়ে নৌকা পান না। পরাজয়ের পদধ্বনির এটি একটি বড় কারণ।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ইউপি নির্বাচনে নৌকা হারলে কিংবা জিতলে সরকারের কিছু যায়-আসে না। গ্রামগঞ্জে নৌকা না দিয়ে ওপেন থাকলে দল আরও সুসংগঠিত হতো বলে তিনি মন্তব্য করেন।

বালাগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নে বিএনপি নেতা মো. আব্দুল মুনিম পূর্ব গৌরীপুরে আওয়ামী লীগের হিমাংশু দাসকে হারিয়ে বিএনপি নেতা মুজিবুর রহমান মুজিব, পশ্চিম গৌরিপুর ইউনিয়নে আওয়ামী

লীগের বিদ্রোহী আবদুর রহমান মাখন, বোয়ালজোড় ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের আনহার মিয়া, দেওয়ানবাজারে বিএনপির নাজমুল আলম, পূর্ব পৈলনপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী শিহাব উদ্দিন নির্বাচনে জয়লাভ করেন।

বালাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোস্তাকুর রহমান মফুর বলেন, আমি ৪ বার ইউপি চেয়ারম্যান ছিলাম, তাই আমার অভিজ্ঞতা হলো ইউপি নির্বাচন দলীয় প্রতীকে করা হলেও দলের দায়িত্ব অকার্যকর। আঞ্চলিকতা ও সামাজিক দুর্বলতা তো আছেই। দলীয় প্রার্থী হওয়ার ক্ষেত্রে কোনো ক্রাইটেরিয়া না থাকায় পলিটিক্যাল কোনো স্কোর ছাড়াই ছাত্রলীগ, যুবলীগসহ যে কেউ প্রার্থী হয়ে যাচ্ছেন। আবার তৃণমূলে নির্বাচিতরা কেন্দ্রে গিয়ে বদল হয়ে যান। এক্ষেত্রে অভ্যন্তরীণ কোন্দল আরও জটিল হয়ে যায়।

ইউনিয়ন পরিষদের দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে সিলেটে আওয়ামী লীগের ভরাডুবি হয়েছে। এ জন্য দলের নেতারা দলীয় শৃঙ্খলা ভেঙে পড়াকে দায়ী করেছেন। ১১ নভেম্বর সিলেট সদর উপজেলায় ৪টি, কোম্পানীগঞ্জে ৫টি ও বালাগঞ্জের ৬টি ইউপি নির্বাচনের মধ্যে মাত্র ৬টিতে নৌকা জয়ী হয়েছেন।

বাকি ৯টির মধ্যে স্বতন্ত্র হিসাবে বিএনপি ৫টি, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ২টি এবং জামায়াত ও খেলাফত মজলিসের একজন করে প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। এর মধ্যে সদরের কান্দিগাঁও ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগের নিজাম উদ্দিনকে হারিয়ে চেয়ারম্যান হয়েছেন জামায়াতের আবদুল মনাফ।

নির্বাচনে এই ভরাডুবি নিয়ে শাসক দলের তৃণমূলে ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে। দলের মধ্যে বিভেদ দূর, শৃঙ্খলা ফেরাতে না পারলে ইউনিয়ন পরিষদের তৃতীয় ধাপের নির্বাচনেও

ভরাডুবির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

তৃতীয় ধাপে আগামী ২৮ নভেম্বর সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার ৬টি, জৈন্তাপুরে ৫টি ও দক্ষিণ সুরমায় ৫টি ইউনিয়নে নির্বাচন হবে। এই তিন উপজেলার সব ইউনিয়নেই বিএনপির একাধিক প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

সিলেট সদর উপজেলার মোগলগাঁও ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিরণ মিয়া চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। আগেও তিনি চেয়ারম্যান ছিলেন। জালালাবাদ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের ওবায়দুল্লাহ ইসহাক। হাটখোলা ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা আজির উদ্দিনকে হারিয়ে খেলাফত মজলিসের মাওলানা রফিকুজ্জামান বিজয়ী হয়েছেন।

নির্বাচন নিয়ে কথা হয় সিলেট সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজম উদ্দিনের সঙ্গে। তিনি বলেন, জনগণ ভোট দিয়েছে ঠিকই। তবে দলের মীরজাফরদের কারণে দল পরাজিত হচ্ছে। আওয়ামী লীগে ঘাপটি

মেরে থাকা মোস্তাকের অনুসারীদের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান না করা পর্যন্ত পরাজয়ের পদধ্বনি শুনতেই হবে। এখনই যদি পদক্ষেপ নেওয়া না হয় তাহলে আরও ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হবে।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ইসলামপুর পূর্ব ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ বাবুল মিয়াকে হারিয়ে বিএনপি নেতা আলমগীর হোসেন আলম স্বতন্ত্র হিসাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তেলিখালে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবদুল ওয়াদুদ আলফু বিজয়ী হয়েছেন। আগেও তিনি এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলেন।

ইছাকলস ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ কুটি মিয়াকে হারিয়ে বিজয়ী হয়েছেন বিএনপি নেতা সাজ্জাদুর রহমান, উত্তর রণিখাই ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিনকে হারিয়ে আওয়ামী লীগের ফয়জুর রহমান বিজয়ী হয়েছেন। দক্ষিণ রণিখাইয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ইকবাল হোসেন ইমাদ বিজয়ী হয়েছেন।

জানতে

চাইলে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আফতাব আলী কালা মিয়া বলেন, গ্রামগঞ্জে নেতাকর্মীরা দলীয় সিগনাল মানে না। নিজ নিজ এলাকায় পছন্দের প্রার্থী থেকে যায়। তাই আওয়ামী লীগই আওয়ামী লীগের শত্রু হয়ে উঠেছে। তৃণমূল থেকে নির্বাচিতরা কেন্দ্রে গিয়ে নৌকা পান না। পরাজয়ের পদধ্বনির এটি একটি বড় কারণ।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ইউপি নির্বাচনে নৌকা হারলে কিংবা জিতলে সরকারের কিছু যায়-আসে না। গ্রামগঞ্জে নৌকা না দিয়ে ওপেন থাকলে দল আরও সুসংগঠিত হতো বলে তিনি মন্তব্য করেন।

বালাগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নে বিএনপি নেতা মো. আব্দুল মুনিম পূর্ব গৌরীপুরে আওয়ামী লীগের হিমাংশু দাসকে হারিয়ে বিএনপি নেতা মুজিবুর রহমান মুজিব, পশ্চিম গৌরিপুর ইউনিয়নে আওয়ামী

লীগের বিদ্রোহী আবদুর রহমান মাখন, বোয়ালজোড় ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের আনহার মিয়া, দেওয়ানবাজারে বিএনপির নাজমুল আলম, পূর্ব পৈলনপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী শিহাব উদ্দিন নির্বাচনে জয়লাভ করেন।

বালাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোস্তাকুর রহমান মফুর বলেন, আমি ৪ বার ইউপি চেয়ারম্যান ছিলাম, তাই আমার অভিজ্ঞতা হলো ইউপি নির্বাচন দলীয় প্রতীকে করা হলেও দলের দায়িত্ব অকার্যকর। আঞ্চলিকতা ও সামাজিক দুর্বলতা তো আছেই। দলীয় প্রার্থী হওয়ার ক্ষেত্রে কোনো ক্রাইটেরিয়া না থাকায় পলিটিক্যাল কোনো স্কোর ছাড়াই ছাত্রলীগ, যুবলীগসহ যে কেউ প্রার্থী হয়ে যাচ্ছেন। আবার তৃণমূলে নির্বাচিতরা কেন্দ্রে গিয়ে বদল হয়ে যান। এক্ষেত্রে অভ্যন্তরীণ কোন্দল আরও জটিল হয়ে যায়।

শৃঙ্খলা ভেঙে পড়ায় আ.লীগে ভরাডুবি

তৃতীয় ধাপের নির্বাচনেও ভরাডুবির শঙ্কা

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ২০ নভেম্বর, ২০২১ | ৭:৫৭ 103 ভিউ
ইউনিয়ন পরিষদের দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে সিলেটে আওয়ামী লীগের ভরাডুবি হয়েছে। এ জন্য দলের নেতারা দলীয় শৃঙ্খলা ভেঙে পড়াকে দায়ী করেছেন। ১১ নভেম্বর সিলেট সদর উপজেলায় ৪টি, কোম্পানীগঞ্জে ৫টি ও বালাগঞ্জের ৬টি ইউপি নির্বাচনের মধ্যে মাত্র ৬টিতে নৌকা জয়ী হয়েছেন। বাকি ৯টির মধ্যে স্বতন্ত্র হিসাবে বিএনপি ৫টি, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ২টি এবং জামায়াত ও খেলাফত মজলিসের একজন করে প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। এর মধ্যে সদরের কান্দিগাঁও ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগের নিজাম উদ্দিনকে হারিয়ে চেয়ারম্যান হয়েছেন জামায়াতের আবদুল মনাফ। নির্বাচনে এই ভরাডুবি নিয়ে শাসক দলের তৃণমূলে ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে। দলের মধ্যে বিভেদ দূর, শৃঙ্খলা ফেরাতে না পারলে ইউনিয়ন পরিষদের তৃতীয় ধাপের নির্বাচনেও

ভরাডুবির আশঙ্কা করা হচ্ছে। তৃতীয় ধাপে আগামী ২৮ নভেম্বর সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার ৬টি, জৈন্তাপুরে ৫টি ও দক্ষিণ সুরমায় ৫টি ইউনিয়নে নির্বাচন হবে। এই তিন উপজেলার সব ইউনিয়নেই বিএনপির একাধিক প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। সিলেট সদর উপজেলার মোগলগাঁও ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিরণ মিয়া চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। আগেও তিনি চেয়ারম্যান ছিলেন। জালালাবাদ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের ওবায়দুল্লাহ ইসহাক। হাটখোলা ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা আজির উদ্দিনকে হারিয়ে খেলাফত মজলিসের মাওলানা রফিকুজ্জামান বিজয়ী হয়েছেন। নির্বাচন নিয়ে কথা হয় সিলেট সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজম উদ্দিনের সঙ্গে। তিনি বলেন, জনগণ ভোট দিয়েছে ঠিকই। তবে দলের মীরজাফরদের কারণে দল পরাজিত হচ্ছে। আওয়ামী লীগে ঘাপটি

মেরে থাকা মোস্তাকের অনুসারীদের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান না করা পর্যন্ত পরাজয়ের পদধ্বনি শুনতেই হবে। এখনই যদি পদক্ষেপ নেওয়া না হয় তাহলে আরও ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হবে। কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ইসলামপুর পূর্ব ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ বাবুল মিয়াকে হারিয়ে বিএনপি নেতা আলমগীর হোসেন আলম স্বতন্ত্র হিসাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তেলিখালে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবদুল ওয়াদুদ আলফু বিজয়ী হয়েছেন। আগেও তিনি এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলেন। ইছাকলস ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ কুটি মিয়াকে হারিয়ে বিজয়ী হয়েছেন বিএনপি নেতা সাজ্জাদুর রহমান, উত্তর রণিখাই ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিনকে হারিয়ে আওয়ামী লীগের ফয়জুর রহমান বিজয়ী হয়েছেন। দক্ষিণ রণিখাইয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ইকবাল হোসেন ইমাদ বিজয়ী হয়েছেন। জানতে

চাইলে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আফতাব আলী কালা মিয়া বলেন, গ্রামগঞ্জে নেতাকর্মীরা দলীয় সিগনাল মানে না। নিজ নিজ এলাকায় পছন্দের প্রার্থী থেকে যায়। তাই আওয়ামী লীগই আওয়ামী লীগের শত্রু হয়ে উঠেছে। তৃণমূল থেকে নির্বাচিতরা কেন্দ্রে গিয়ে নৌকা পান না। পরাজয়ের পদধ্বনির এটি একটি বড় কারণ। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ইউপি নির্বাচনে নৌকা হারলে কিংবা জিতলে সরকারের কিছু যায়-আসে না। গ্রামগঞ্জে নৌকা না দিয়ে ওপেন থাকলে দল আরও সুসংগঠিত হতো বলে তিনি মন্তব্য করেন। বালাগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নে বিএনপি নেতা মো. আব্দুল মুনিম পূর্ব গৌরীপুরে আওয়ামী লীগের হিমাংশু দাসকে হারিয়ে বিএনপি নেতা মুজিবুর রহমান মুজিব, পশ্চিম গৌরিপুর ইউনিয়নে আওয়ামী

লীগের বিদ্রোহী আবদুর রহমান মাখন, বোয়ালজোড় ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের আনহার মিয়া, দেওয়ানবাজারে বিএনপির নাজমুল আলম, পূর্ব পৈলনপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী শিহাব উদ্দিন নির্বাচনে জয়লাভ করেন। বালাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোস্তাকুর রহমান মফুর বলেন, আমি ৪ বার ইউপি চেয়ারম্যান ছিলাম, তাই আমার অভিজ্ঞতা হলো ইউপি নির্বাচন দলীয় প্রতীকে করা হলেও দলের দায়িত্ব অকার্যকর। আঞ্চলিকতা ও সামাজিক দুর্বলতা তো আছেই। দলীয় প্রার্থী হওয়ার ক্ষেত্রে কোনো ক্রাইটেরিয়া না থাকায় পলিটিক্যাল কোনো স্কোর ছাড়াই ছাত্রলীগ, যুবলীগসহ যে কেউ প্রার্থী হয়ে যাচ্ছেন। আবার তৃণমূলে নির্বাচিতরা কেন্দ্রে গিয়ে বদল হয়ে যান। এক্ষেত্রে অভ্যন্তরীণ কোন্দল আরও জটিল হয়ে যায়।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


































শীর্ষ সংবাদ:
নিয়োগে দুর্নীতি: জীবন বীমার এমডির বিরুদ্ধে দুদকের মামলা মিহির ঘোষসহ নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবীতে গাইবান্ধায় সিপিবির বিক্ষোভ গাইবান্ধায় সেনাবাহিনীর ভূয়া ক্যাপ্টেন গ্রেফতার জগন্নাথপুরে সড়ক নির্মানের অভিযোগ এক ঠিকাদারের বিরুদ্ধে তারাকান্দায় অসহায় ও দুস্থদের মাঝে ছাত্রদলের খাবার বিতরণ দেবহাটায় অস্ত্র-গুলি ও ইয়াবা উদ্ধার আটক -১ রামগড়ে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বাগমারায় ভেদুর মোড় হতে নরদাশ পর্যন্ত পাকা রাস্তার শুভ উদ্বোধন সরকারি বিধিনিষেধ না মানায় শার্শায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা আদায় মধুখালীতে তিন মাসে ৪৩ টি গরু চুরি গাইবান্ধায় বঙ্গবন্ধু জেলা ভলিবল প্রতিযোগিতার উদ্বোধন গাইবান্ধায় শীতবস্ত্র বিতরণ রাজশাহীতে পুত্রের হাতে পিতা খুন বাগমারায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার রামগড়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার শীতবস্ত্র বিতরণ করেন ইউএনও ভাঃ উম্মে হাবিবা মজুমদার জগন্নাথপুরে জুয়ার আসরে পুলিশ দেখে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে নিখোঁজ এক ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় সিপিবি নেতা মিহির ঘোষসহ ৬ জন কারাগারে পিআইও’র মানহানির মামলায় গাইবান্ধার ৪ সাংবাদিকসহ ৫ জনের জামিন গাইবান্ধায় প্রগতিশীল ছাত্র জোটের মানববন্ধন চাঁপাইনবাবগঞ্জে সোনালী ব্যাংক লি. গোমস্তাপুর শাখায় শীতবস্ত্র বিতরণ