ঢাকা, Saturday 18 September 2021

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

রেকর্ড পরিমাণ পেঁয়াজ আমদানির উদ্যোগ

প্রকাশিত : 12:15 PM, 11 September 2020 Friday
206 বার পঠিত

রাছেল রানা | বগুডা

দাম কমাতে সর্বকালের রেকর্ড ভঙ্গ করে সর্বোচ্চ পরিমাণ পেঁয়াজ আমদানির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। এছাড়া আগামী রবিবার থেকে সরকারী বাজার নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা টিসিবি খোলা ট্রাকে পেঁয়াজ বিক্রি কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে। তুরস্ক থেকে জরুরী ভিত্তিতে পেঁয়াজ আমদানির ও উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এছাড়া প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি অব্যাহত রাখা হবে। হাঙ্গেরির ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশে বাণিজ্য বৃদ্ধি করতে আগ্রহী বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী। এ জন্য একটি জয়েন্ট ট্রেড কমিশন গঠন করার প্রস্তাব দিয়েছে হাঙ্গেরি।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ভারতের পাশাপাশি বিকল্প উৎস থেকে পেঁয়াজ আমদানির জন্য খুব চেষ্টা করা হচ্ছে। আমরা খুব চেষ্টা করছি।

টিসিবি বড় পরিসরে নামছে। আগামী ১৩ তারিখ থেকে টিসিবি খোলাবাজারে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করবে। এবার আমরা সর্বকালের রেকর্ড ভঙ্গ করে সর্বোচ্চ পরিমাণ পেঁয়াজ আমদানি করব। আমরা ফুল মনিটর করছি। গত বছর ভারত পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করায় নতুন বাজার থেকে পেঁয়াজ আমদানির পথ খুলেছে জানিয়ে টিপু মুনশি বলেন, গত বছরের আর এ বছরের মধ্যে পার্থক্য হলো গত বছর ভারত পেঁয়াজ বন্ধ করে দিয়েছিল ২৯ সেপ্টেম্বর। এবার ভারত কিন্তু বন্ধ করেনি। গত বছর বন্ধ করে দেয়ায় আমাদের এখানকার ব্যবসায়ীরা সুযোগ নিয়েছে। ভারতও তখন ১৫০ রুপীতে পেঁয়াজ বিক্রি করেছিল।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, এ অঞ্চলে সমস্যা হয়েছিল, আমাদের হয়ত সমস্যা বেশি

হয়েছে। ভাল দিক হলো ভারত বন্ধ করে দেয়ার কারণে আমরা নতুন বাজার থেকে আমদানি করতে শিখেছি। তুরস্ক, মিসর, ইন্দোনেশিয়া থেকে গতবার পেঁয়াজ আসার কারণে এবারও আমাদের লোকজনের যোগাযোগ ভাল আছে। আমরা তুরস্ক থেকে আমদানির জন্য টেন্ডারও করেছি টিসিবির মাধ্যমে। এছাড়া পেঁয়াজ আমদানিতে ট্যাক্স কমানোর জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেয়া হয়েছে ।

তিনি আরও বলেন, মিয়ানমার থেকে গত বছর যে পরিমাণ পেঁয়াজ পাওয়া গিয়েছিল এবার কোভিড-১৯ এর কারণে ধীরগতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, গতকাল মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে আমাদের সচিবের কথা হয়েছে। আমরা সব পথ খুলে দিতে চাই। যত দ্রুত বেশি পেঁয়াজ আমদানি করা যায়, আমাদের

তরফ থেকে সেই চেষ্টাই করা হচ্ছে।

কৃষি মন্ত্রণালয় বলছে দেশে এ বছর পেঁয়াজ উৎপাদন বেশি হয়েছে তাহলে দাম বাড়ছে কেন জানতে চাইলে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বেশি হওয়া মানেই আমাদের সম্পূর্ণ টার্গেট হয়েছে তা কিন্তু নয়। আমাদের উৎপাদন বেড়েছে ফলে কৃষক কিছু দামও পেয়েছে। তারপরও আমাদের ঘাটতি রয়েছে পাঁচ থেকে সাড়ে পাঁচ লাখ টন। আশা করি আগামী বছরগুলোতে উৎপাদন আরও বাড়বে। তবে এখনও নির্ভর করতে হচ্ছে বাইরের বাজারের ওপর।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি ডোনেট বাংলাদেশ'কে জানাতে ই-মেইল করুন- donetbd2010@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

ডোনেট বাংলাদেশ'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© 2021 সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। ডোনেট বাংলাদেশ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT