ঢাকা, Thursday 28 October 2021

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

যশোর হত্যাকান্ড দিবসে উদীচীর সাংস্কৃতিক সমাবেশ

প্রকাশিত : 10:14 AM, 7 March 2021 Sunday
81 বার পঠিত

| ডোনেট বিডি নিউজ ডেস্কঃ |

পূর্ণ হলো বিয়োগান্তক সেই ঘটনার বাইশ বছর। ১৯৯৯ সালের ৬ মার্চ যশোরের টাউন হল মাঠে অনুষ্ঠিত উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর জাতীয় সম্মেলনে বোমা হামলা চালায় সাম্প্রদায়িক শক্তি। ধর্র্মান্ধদের সেই নৃশংসতায় প্রাণ হারায় নূর ইসলাম, সন্ধ্যারানী, রামকৃষ্ণ, তপন, বাবুল সূত্রধরসহ ১০ শিল্পী-কর্মী ও সাধারণ মানুষ। আহত হন দেড় শতাধিক শিল্পী-কর্মী ও সংস্কৃতিমনা মানুষ। দিবসটি উপলক্ষে শনিবার বিকেলে শাহবাগ চত্বরে প্রতিবাদী সাংস্কৃতিক সমাবেশের আয়োজন করে উদীচী। এ আয়োজনে গানের সুরে, কবিতার শিল্পীত উচ্চারণে ও নৃত্যে ছন্দে সেই ভয়াবহ ঘটনার প্রতি ধিক্কার জানানো হয়। যশোর হত্যাকান্ডে শহীদদের প্রতিকৃতিতে নিবেদন করা হয় পুষ্পাঞ্জলি। বক্তাদের আলোচনায় ওই ঘটনার জন্য দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির

দাবি জানানো হয়। উচ্চারিত হয়েছে সম্প্রীতির বাংলাদেশ গড়তে অসুরের বিরুদ্ধে সংস্কৃতির শাণিত চেতনা স্নাত লড়াইয়ের কথা।

সঙ্গীতের আশ্রয়ে শুরু হয় প্রতিবাদী এ সাংস্কৃতিক সমাবেশ। অনেকগুলো কণ্ঠ মিলে যায় এক সুরে। শহীদদের স্মরণে সকলে মিলে গেয়ে শোনায়- মুক্তির মন্দির সোপানতলে/কত প্রাণ হলো বলিদান/ লেখা আছে অশ্রুজলে …। পরের গানে উচ্চারিত হয় উদীচী শিল্পীদের প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর। গীত হয়- যতবার ঝরবে আমাদের রক্ত/সংগ্রাম হবে ততবার …। উগ্রবাদী সাম্প্রদায়িক শক্তিকে মানবিক হওয়ার আহ্বান জানিয়ে গাওয়া হয় ‘মানুষ হ মানুষ হ/আবার তোরা মানুষ হ’ শীর্ষক সঙ্গীত। ভয়কে জয় করার প্রত্যয়ে শিল্পীরা পরিবেশন করেন- ‘ঝঞ্ঝা ঝড় মৃত্যু দুর্বিপাক/ভয় যারা যারা পায়/তাদের ছায়া

দূর মিলাক শিরোনামের গান। এছাড়া সম্মেলককণ্ঠে গাওয়া হয় ‘কারা মোর ঘর ভেঙেছে স্মরণ আছে’ শীর্ষক সঙ্গীত। দলীয় সঙ্গীতের সঙ্গে ছিল একক কণ্ঠের গান। মায়েশা সুলতানা ঊর্বি গেয়ে শোনান ‘গোধূলির সাথে সন্ধ্যা যায়/আবার সন্ধ্যা আসে’। গানের মতো নাচের পরিবেশনাতেও প্রকাশিত হয় প্রতিবাদী ভাষা। সেই সুবাদে ‘বিদ্রোহ আজ বিদ্রোহ চারিদিকে’ গানের সুরে উপস্থাপিত হয় সমবেত নৃত্য। এছাড়াও সাংস্কৃতিক পর্বে পরিবেশিত হয় ‘রক্তাক্ত যশোর’ শীর্ষক আবৃত্তি প্রযোজনা। গ্রন্থনার পাশাপাশি প্রযোজনাটির পরিকল্পনায় ছিলেন বেলায়েত হোসেন। অনুষ্ঠান মঞ্চের পাশের স্থাপিত অস্থায়ী বেদিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণের মাধ্যমে স্মরণ করা হয় যশোর হত্যাকান্ডের শহীদদের। আলোচনায় বক্তারা যশোর হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানিয়ে বলেন,

বাইশ বছর পেরিয়ে গেলেও এই মামলার তদন্ত প্রক্রিয়া থমকে আছে। নতুন করে এই মামলার তদন্ত করা উচিত। দোষীদের দ্রুতবিচার আইনে শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। আলোচনায় অংশ নেন উদীচীর কেন্দ্রীয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক জামশেদ আনোয়ার তপন, সহ-সাধারণ সম্পাদক অমিত রঞ্জন দে, সঙ্গীতা ইমাম, ইকবালুল হক খান, কোষাধ্যক্ষ পারভেজ মাহমুদ প্রমুখ। সভাপতিত্ব করেন উদীচীর কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সভাপতি শিবানী ভট্টাচার্য।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি ডোনেট বাংলাদেশ'কে জানাতে ই-মেইল করুন- donetbd2010@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

ডোনেট বাংলাদেশ'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© 2021 সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। ডোনেট বাংলাদেশ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT