মধুখালতে পিঠে বিক্রিতে চলে হাসিনার সংসার – বর্ণমালা টেলিভিশন

মধুখালতে পিঠে বিক্রিতে চলে হাসিনার সংসার

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ৯ জানুয়ারি, ২০২২ | ৪:৫৬ 92 ভিউ
ফরিদপুরের মধুখালী উপজোলার মধুপুর গ্রামের হাসিনা বেগম (৫৫), স্বামী মারা গেছেন ৮ বছর আগে। স্বামী মারা যাওয়ার পর ১ ছেলে ৩ মেয়েকে নিয়ে অভাব-অনটনে সংসার চালানো দায় হয়ে পড়ে । স্বামী মারা যাবার ৩ বছর পরে একমাত্র ছেলেটিও মারা যায়। ৩ মেয়ের ২ মেয়েকে বিবাহ দিলেও ১ মেয়েকে কষ্টে মাদ্রাসায় পড়াচ্ছেন। কয়েক বছর নানান কাজ করলেও অবশেষে শীতের পিঠা বিক্রি শুরু করেন। প্রায় ৪ বছর ধরে শীতের পিঠা বিক্রি করে চলছে তার সংসার।শুধু হাসিনা বেগম নয়, উপজেলার মধুপুর, রেলস্টেশনে,রেলগেট,কামারখালী, বাগাট, নওপাড়া সহ বিভিন্ন স্থানে তার মতো অর্ধশত নারীর সংসার চলছে শীতের পিঠা বিক্রি করে। শীতকালে শীতের কুয়াশা ভেজা সকাল ও সন্ধ্যায় পিঠা আর পুলির আয়োজন বহুকাল আগে থেকেই করা হয় ঐতিহ্যগত ভাবেই। কিন্তু নানা ব্যস্ততার কারণে ইচ্ছে থাকলেও এখন অনেকেই ঘরে ঘরে শীতের পিঠা বানিয়ে খেতে পারে না। বাড়িতে পিঠা বানানোর ঝামেলা এড়াতে অনেকেই পিঠার দোকান থেকে পিঠা ক্রয় করে স্বাদ মিটাচ্ছেন। তাই মধুখালীর বিভিন্ন এলাকায় রাস্তার মোড়ে মোড়ে সন্ধ্যায় জমে ওঠে বাহারি শীতের পিঠার দোকান। সন্ধ্যার পর থেকে এক প্রকার সিরিয়াল দিয়ে কিনতে হয় পিঠা। রাস্তার দোকানের পাশে দাঁড়িয়ে অনেককেই দেখা যায় পিঠা খেতে। আর শীতের পিঠা খাওয়ার তৃপ্তি মেটাতে গিয়ে মধুখালীর অর্ধশতাধিক নারীর উপার্জন হচ্ছে এখান থেকেই। যা দিয়ে চলছে তাদের সংসার, যা তাদের জীবনযাপনে সাহায্য করছে। শুধু যে সাধারণ মানুষই এই পিঠা খেয়ে থাকেন তা নয়। সব শ্রেণি-পেশার মানুষ রাস্তার ধারের পিঠার দোকানের ওপর নিভর্রশীল হয়ে উঠছে দিন দিন। মধুখালীতে ভাপা, পাটিশাপটা, তেলের ও চিতই (চিতি) পিঠা বিক্রি হয় বেশী। চিতই পিঠার সঙ্গে সরিষার ভর্তা, শুঁটকি ভর্তা, মরিচের ভর্তা, ধনেপাতা ভর্তা দেওয়া হয়। ভাপা পিঠা ১০ টাকা, চিতই ৫ টাকা, তেলের পিঠা ৫ টাকা, খুচানি পিঠা ৫ টাকায় বিক্রি হয়।৪ বছর ধরে মধুখালী রিকসাস্ট্যান্ড (সাবেক কৃষি ব্যাংকের নিচে) এলাকার পিঠা বিক্রি করা হাসিনা বেগম জানান, খেজুর গুড় ও চালের গুঁড়া দিয়ে তৈরি ভাপা আর চালের গুঁড়া পানি দিয়ে বানানো হয় চিতই পিঠা। শীতের পিঠা হলেও বছরের প্রায় অনেক মাসই তিনি পিঠা বিক্রি করেন। স্বামীর মৃত্যুর পরে টুকটাক কাজের ফাঁকে পিঠা বিক্রি করেই চলছে তার সংসার। তিনি বলেন শীত বেশি পড়লে পিঠা বিক্রি বাড়ে। প্রতিদিন গড়ে ৫ থেকে ৭ কেজি চাউলের পিঠা বিক্রি করেন তিনি। চালের গুঁড়া, গুড়, লাকড়ি ও অন্যান্য খরচ বাদে ৫শ/৬শ টাকা লাভ হয় দিনে। মূলত সকাল ও সন্ধ্যায় পিঠা বিক্রি হলেও তুলনামূলক সন্ধ্যায় দোকানে পিঠার চাহিদা বেশি থাকে। সন্ধ্যার সময় পিঠা কিনতে দোকানে সিরিয়াল দেন ক্রেতারা। অনেকে বাড়ি নিয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে খেয়ে থাকেন,এছাড়া বেশি পিঠা প্রয়োজন হলে ২/১ দিন আগে অর্ডার দিয়ে যান।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:



































শীর্ষ সংবাদ:
বেনাপোল সীমান্তে সচল পিস্তলসহ চিহ্নিত সন্ত্রাসী গ্রেফতার নির্মাণসামগ্রীর দাম চড়া, উন্নয়ন প্রকল্পে ধীরগতি কলম্বোতে কারফিউ জারি টিকে থাকার লড়াইয়ে ছক্কা হাকাতে পারবেন ইমরান খান? করোনায় আজও মৃত্যুশূন্য দেশ, শনাক্ত কমেছে ‘ততক্ষণ খেলব যতক্ষণ না আমার চেয়ে ভালো কাউকে দেখব’ এবার ইয়েমেনে পাল্টা হামলা চালাল সৌদি জোট স্বাধীনতা দিবসের র‌্যালিতে যুবলীগ নেতার মৃত্যু সাড়ে ১১ হাজার কোটি টাকার অস্ত্র রপ্তানি করেছে মোদি সরকার বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে ফুল দেওয়া নিয়ে আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষ, এলাকা রণক্ষেত্র ইউক্রেনকে বিপুল ক্ষেপণাস্ত্র ও মেশিনগান দিয়েছে জার্মানি পুলিশ পরিচয়ে তুলে নিয়ে নারীকে ধর্ষণ, অস্ত্রসহ গ্রেফতার ৩ ইউরো-বাংলা প্রেসক্লাবের ‘লাল-সবুজের পতাকা বিশ্বজুড়ে আনবে একতা‘-শীর্ষক সভা বঙ্গবন্ধু পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় নওগাঁর নওহাঁটায় স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধন । ভূরুঙ্গামারীতে ব্যাপরোয়া অটোরিকশা কেরে নিল শিশুর ফাহিম এর প্রাণ ভূরুঙ্গামারী কিশোর গ‍্যাংয়ের ছুরিকাঘাতে দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী আহত যশোরিয়ান ব্লাড ফাউন্ডেশন এর ৬ তম রক্তের গ্রুপ নির্ণয় ক্যাম্পেইন বেনাপোলে পৃথক অভিযানে ৫২ বোতল ফেনসিডিল সহ আটক-২ বেনাপোল স্থলপথে স্টুডেন্ট ভিসায় বাংলাদেশিদের ভারত ভ্রমন নিষেধ গেরিলা যোদ্ধা অপূর্ব