বেপরোয়া রেসিং কার – বর্ণমালা টেলিভিশন

বেপরোয়া রেসিং কার

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২২ | ৯:০৯ 72 ভিউ
রাতের ঢাকায় কার রেসিংয়ের নেশায় মেতে উঠছে উঠতি বয়সের তরুণরা। রাতের নিস্তব্ধতা ভেঙ্গে বিকট শব্দে বেপরোয়া গতিতে স্বল্প দূরত্বে গাড়ি চলে। তাদের এই প্রতিযোগিতার কারণে দুর্ঘটনা ও হতাহতের ঘটনা ঘটলেও এ ঘটনায় মামলা নিচ্ছে না পুলিশ। মামলা হচ্ছে মোটরযান আইনে। এতে কার রেসিং, দুর্ঘটনা ও হতাহতের মতো ঘটনা ঘটিয়েও এক প্রকার পার পেয়ে যাচ্ছেন উঠতি বয়সী তরুণরা। তবে সন্তানের এই গোপন প্রতিযোগিতাকে কোন কোন অভিভাবক অপরাধই মনে করছেন না। তারা বলছেন, একটু বেশি গতিতে গাড়ি চালালেই রেসিং হয় না। দুর্ঘটনা না ঘটালে এতে কোন সমস্যা নেই! মাঠ পর্যায়ে কাজ করা পুলিশ সদস্যরা বলছেন, এই প্রতিযোগিতার সময় অনেককে হাতেনাতে আটক করলেও ওপর মহল থেকে কল আসে। বাধ্য হয়ে ঘটনায় জড়িতদের ছেড়ে দিতে হয়। কিংবা মোটরযান আইনে মামলা করা বা নেয়া ছাড়া কিছুই করার থাকে না। তবে কার রেসিংয়ের অপরাধে আটক, মামলা ও আইনী ব্যবস্থা নেয়ার তথ্য নেই ঢাকা মহানগর পুলিশের কাছে। এই অপরাধে ব্যবস্থাও নেয় না ডিএমপি এবং আলাদা করে এই ডাটা সংরক্ষণও করা হয় না। মনোরোগ বিশেষজ্ঞ, অভিভাবকসহ দায়িত্বশীলরা বলছেন রোমাঞ্চকর কোন কিছুর প্রতি আকর্ষণ তারুণ্যের স্বাভাবিক বৈশিষ্ট্য। তাই তাদের কেউ কেউ রেসের মতো ঝুঁঁকিপূর্ণ খেলা থেকে আনন্দ পেতে চায়। তাদের বোঝাতে হবে, আনন্দের বিকল্প অনেক উৎস আছে। তা ছাড়া রেস তার নিজের জন্যও ভয়াবহ পরিণাম ডেকে আনতে পারে। এমন ঝুঁকিপূর্ণ প্রতিযোগিতাকে তুচ্ছ মনে করে সন্তানদের মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়া অভিভাবকদেরও সচেতন হতে হবে। ঢাকার রাস্তায় এ ধরনের অনুমোদনহীন রেস ও বেপরোয়া গাড়ি চালানো বন্ধে পুলিশ বিভিন্ন পদক্ষেপ ও কঠোর হতে হবে। গভীর রাতে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, একটু রাত হলেই বিএমডব্লিউ, মার্সিডিজ ও রেঞ্জরোভারের মতো নামী ব্র্যান্ডের দামী গাড়ি নিয়ে প্রতিযোগিতায় নামেন রাজধানীর বিত্তশালী ব্যক্তির সন্তানেরা। চলে স্বল্প দূরত্বে উচ্চ শব্দে সর্বোচ্চ গতিতে গাড়ি চালানোর প্রতিযোগিতা। বেশি দূরত্বের রাস্তা ফাঁকা পেলে সেখানেও চলে রেসিং প্রতিযোগিতা। তবে সাপ্তাহিক ছুটির আমেজ এলেই এই প্রতিযোগিতা বেশি দেখা যায়। বিশেষ করে শুক্র ও শনিবার রাতে রাস্তা অনেকটা ফাঁকা থাকে। আর এই দুদিন বেছে নেয় যুবকরা। রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় রেসিং করতে দেখা গেলেও বেশি চোখে পড়ে বিমানবন্দর সড়ক, গুলশান, বনানী, উত্তরা, হাতিরঝিল, কল্যাণপুর, নিউ ইস্কাটন এলাকায়। বিমানবন্দর থেকে বিশ্বরোড, বিশ্বরোড থেকে পূর্বাচল, বনানী থেকে নেভি হেডকোয়ার্টার্স পর্যন্ত, গুলশান লেকের পাড়ের সড়ক, হাতিরঝিরের ফাঁকা সড়ক, নিউ ইস্কাটনের সড়ক দিয়ে ফ্লাইওভারে উঠার রাস্তায় এক টানে উঠতে গিয়ে রেসিং করা হয়। শুধু মোটরসাইকেল নয়; রেসের নেশার বাহন স্পোর্টস কারও। বিভিন্ন ব্র্যান্ডের গাড়িতে অতিরিক্ত হলার বা স্পোর্টস সাইলেন্সার লাগিয়ে রেসিং করা হয়। কোথাও দলবদ্ধ হয়ে, কোথাও এককভাবে এই প্রতিযোগিতায় মেতে ওঠে তারা। এসব প্রতিযোগিতায় যেমন হরহামেশা দুর্ঘটনা ঘটে, তেমনি স্থানীয় বাসিন্দারাও উচ্চ শব্দের কারণে প্রচ- বিরক্ত। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঢাকায় গাড়ি ও মোটরসাইকেল রেসের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে কিছু গ্রুপ। তাদের অনেকেই বিত্তশালী পরিবারের সন্তান। কয়েকটি গ্রুপ হচ্ছে বিডি ঘোস্ট রাইডার্স, ফেরোশাস ফ্লাশ, হান্ট রাইডার্স, অল এ্যাবাউট রোড রাইডার্স, এক্সাইল রাইডার্স, বিডি রাইডার্স ক্লাব, নারায়ণগঞ্জ রাইডার্স। অবশ্য কয়েকটি গ্রুপের সদস্যদের দাবি, তারা মূলত স্টান্ট করে থাকেন। বিডি ঘোস্ট রাইডার্স সম্পর্কে ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, এটি মোটরসাইকেল চালকদের একটি জনপ্রিয় দল, যারা ভয় কাকে বলে জানে না। উন্মত ও দুঃসাহসিক চালনাই তাদের বৈশিষ্ট্য। ঢাকায় বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানোর দৃশ্য ধারণ করে অনেক সময় ফেসবুক গ্রুপ বা ইউটিউবে আপলোড করা হয়। রেসিং আসলে নেশার মতো। প্রচ- গতিতে ছুটে চলার দুরন্ত নেশা। ভীষণ থ্রিলিং। বিপদের ঝুঁকি থাকলেও দুরন্ত এক ভালবাসার টানে ভয়-ভীতি সব অগ্রাহ্য হয়ে যায়। এভাবেই আপন অনুভূতি তুলে ধরেন বাইক রেস বা দ্রুতগতিতে মোটরসাইকেল চালানোর প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়া এক তরুণ। মোটরসাইকেল, স্পোর্টস কারও রেসের নেশার বাহন। তাদের রেস দেখে মনে হতেই পারে, সেটি হলিউডের জনপ্রিয় সিনেমা ‘ফাস্ট এ্যান্ড ফিউরিয়াস’-এর কোন দৃশ্য। গতির এই ভয়ঙ্কর প্রতিযোগিতা মাঝেমধ্যেই হয়ে ওঠে প্রাণঘাতী। কেড়ে নেয় কখনও পথচারী, কখনও খোদ আরোহীর জীবন। তা সত্ত্বেও ডিএমপির কাছে রেস করতে গিয়ে দুর্ঘটনা, হতাহতের তথ্য নেই। সম্প্রতি এই প্রতিযোগিতা নিয়ে গুলশানের এক বাসিন্দা অভিযোগ করার পর পুলিশ সদর দফতরের নির্দেশে ২৫টি গাড়ি ও গাড়ির চালককে চিহ্নিত করেছিল গুলশান থানার পুলিশ। তাতে দেখা গেছে, প্রতিযোগীদের বেশির ভাগই পড়াশোনা করেন অস্ট্রেলিয়া, মালয়েশিয়া, কানাডা বা যুক্তরাষ্ট্রে। ছুটিতে এসে তারা গাড়ি নিয়ে মধ্যরাতে বেরিয়ে পড়েন। তাদের বাবারা কেউ শিল্পপতি, কেউ পোশাক কারখানা বা রেস্তরাঁর মালিক, কেউবা রাজনীতিবিদ। তালিকা করে পুলিশের খোঁজ নেয়ার পর কেউ কেউ প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়া বন্ধ করেছেন বলে পুলিশ সূত্র জানিয়েছে। ট্রাফিক পুলিশের হিসাবে দেখা গেছে, ২০২১ সালের শেষের ছয় মাসে গুলশান-বনানী ও বিমানবন্দর সড়কে এই প্রতিযোগিতার কারণে ৩১টি দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে আহত হয়েছেন অর্ধশত মানুষ। কিন্তু একটি ঘটনায়ও থানা-পুলিশ সরাসরি কোন মামলা নেয়নি। তারা মামলা করেছে মোটরযান আইনে, তবে সে সংখ্যাও কম নয়। এ সময়ে মোটরযান আইনে ১৭৩টি গাড়ির জরিমানা করা হয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, এসব ঘটনায় আহত ব্যক্তিদের অভিযোগ আমলে না নিয়ে উল্টো আপোসের মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করে পুলিশ। জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর ট্রাফিক পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মোঃ মুনিবুর রহমান জনকণ্ঠকে জানান, রেসিং কারের বিরুদ্ধে আলাদা করে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয় না। যখন কোন গাড়ি অনিয়ম করে তখনই ব্যবস্থা নেয়া হয়। উন্মুক্ত বা ফাঁকা জায়গায় ট্রাফিক সদস্য থাকে। তবে জনবল সঙ্কটের কারণে যেসব জায়গায় ট্রাফিক সদস্য রাখা সম্ভব হয় না, সেসব জায়গায় রোড বেরিয়ার দেয়া হয়। যাতে দ্রুতগতির গাড়ি স্পীড কমিয়ে আনতে বাধ্য হয়। এমন প্রতিবন্ধকতার কারণে রেসিং কারের সদস্যরা অধিক স্পীডে গাড়ি চালাতে পারেন না। এদের আটক করলেও ওপর মহল থেকে কল আসে, ছেড়ে দিতে হয়- মাঠ পর্যায়ে কাজ করা ট্রাফিক সদস্যদের এমন অভিযোগ অতিরিক্ত কমিশনারের দৃষ্টিতে আনলে তিনি এর উত্তরে বলেন, ধনী-গরিব কিংবা মধ্যবিত্ত চিন্তা করে নিশ্চয় আইন করা হয় না। আইন সার্বজনীন বিষয়। ওপর মহল থেকে কল আসতেই পারে। কিন্তু আমরা তাদের কথা শুনি কিনা, সেটাই দেখার বিষয়। গাড়ির শোরুমের মালিকরা জানান, রেসের জন্য বিশ্বব্যাপী ‘স্পোর্টস কার ব্যবহৃত হয়। এসব গাড়ি খুব দামী। এগুলো সাধারণত আকারে ছোট, দুই আসনবিশিষ্ট, ক্ষিপ্ত গতি ও দ্রুত চালানোর সুবিধা সম্পন্ন। থাকে বাড়তি কিছু নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য। স্পোর্টস কারের ইঞ্জিন অন্তত দুই হাজার সিসি ও ৬শ’ অশ্বশক্তির (হর্সপাওয়ার) হয়। তবে ঢাকায় সাধারণ গাড়ি দিয়েও রেস হয়। এসব গাড়িতে কিছু সরঞ্জাম সংযোজন-বিয়োজন করে স্পোর্টস কারের আদল তৈরি করা হয়। ইঞ্জিনের আওয়াজ বাড়ানো ও গাড়ির বডি নিচুও করা হয়। কার রেসিংয়ে প্রচ- বিরক্ত রাজধানীর বাসিন্দারা। যেসব এলাকায় রেস করা হয়, সেসব এলাকার বাসিন্দাদের কথায় বিরক্তি প্রকাশ পায়। গুলশানের ব্যবসায়ী নাহিদ নেওয়াজ নিজের একটি অভিজ্ঞতার কথা উল্লেখ করে জানান, গত বছরের আগস্টে তিনি স্ত্রীসহ (সরকারী চাকরিজীবী) রাতে গুলশান-২ থেকে নিকেতনের বাসায় ফিরছিলেন। হঠাৎ পেছন থেকে এসে একটি গাড়ি ধাক্কা দেয়। নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তাদের গাড়ি একটা দোকানের ভেতরে ঢুকে পড়ে। গাড়ি থেকে নেমে দেখেন, তাদের ধাক্কা দেয়া গাড়িটি রেসিং কার। সেই দুর্ঘটনায় তারা প্রাণে বেঁচে গেলেও ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যায় তাদের গাড়িটি। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত বছর ২৩ জুন বিএমডব্লিউ ব্র্যান্ডের একটি গাড়ি গুলশান-২ নম্বর চত্বরের আইল্যান্ডে তুলে দেন জিয়াদ রহমান নামে এক তরুণ। ওই সময় এক পথচারী ভাগ্যক্রমে বেঁচে যান। থাকেন গুলশানের ৯৫ সড়কে। পড়াশোনা করেন মালয়েশিয়া। করোনার পর দেশে এসেছেন। তার বাবা একজন শিল্পপতি। গুলশান-বনানী থানার কয়েকজন পুলিশ সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, রেসিং কার বড় লোকের ছেলেরা চালান। ধরলেও আটকে রাখা যায় না। নানা মহলের ফোন আসতে থাকে। মনোরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডাঃ মোহিত কামাল বলেন, তরুণরা আনন্দ পেতে ও নিজেকে নায়কোচিত দেখাতে রেসের মতো ঝুঁকিপূর্ণ কিছু করে। এমন একজনকে দেখে অন্যরাও তার মতো হতে চায়। কিন্তু তারা শুধু আনন্দ দেখে, পরিণতিটা দেখে না। বেপরোয়া গাড়ি বা মোটরসাইকেল চালাতে গিয়ে কত মানুষের মৃত্যু হয়, কতজন পঙ্গু হয়Ñ এসব ভালভাবে জানলে তারা এ কাজ করত না। তাদের সচেতন করে তোলার প্রথম দায়িত্ব মা-বাবাসহ পরিবারের সদস্যদের। এতে কাজ না হলে তারা মনোবিদদের সহায়তা নিতে পারেন।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:



































শীর্ষ সংবাদ:
বেনাপোল সীমান্তে সচল পিস্তলসহ চিহ্নিত সন্ত্রাসী গ্রেফতার নির্মাণসামগ্রীর দাম চড়া, উন্নয়ন প্রকল্পে ধীরগতি কলম্বোতে কারফিউ জারি টিকে থাকার লড়াইয়ে ছক্কা হাকাতে পারবেন ইমরান খান? করোনায় আজও মৃত্যুশূন্য দেশ, শনাক্ত কমেছে ‘ততক্ষণ খেলব যতক্ষণ না আমার চেয়ে ভালো কাউকে দেখব’ এবার ইয়েমেনে পাল্টা হামলা চালাল সৌদি জোট স্বাধীনতা দিবসের র‌্যালিতে যুবলীগ নেতার মৃত্যু সাড়ে ১১ হাজার কোটি টাকার অস্ত্র রপ্তানি করেছে মোদি সরকার বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে ফুল দেওয়া নিয়ে আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষ, এলাকা রণক্ষেত্র ইউক্রেনকে বিপুল ক্ষেপণাস্ত্র ও মেশিনগান দিয়েছে জার্মানি পুলিশ পরিচয়ে তুলে নিয়ে নারীকে ধর্ষণ, অস্ত্রসহ গ্রেফতার ৩ ইউরো-বাংলা প্রেসক্লাবের ‘লাল-সবুজের পতাকা বিশ্বজুড়ে আনবে একতা‘-শীর্ষক সভা বঙ্গবন্ধু পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় নওগাঁর নওহাঁটায় স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধন । ভূরুঙ্গামারীতে ব্যাপরোয়া অটোরিকশা কেরে নিল শিশুর ফাহিম এর প্রাণ ভূরুঙ্গামারী কিশোর গ‍্যাংয়ের ছুরিকাঘাতে দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী আহত যশোরিয়ান ব্লাড ফাউন্ডেশন এর ৬ তম রক্তের গ্রুপ নির্ণয় ক্যাম্পেইন বেনাপোলে পৃথক অভিযানে ৫২ বোতল ফেনসিডিল সহ আটক-২ বেনাপোল স্থলপথে স্টুডেন্ট ভিসায় বাংলাদেশিদের ভারত ভ্রমন নিষেধ গেরিলা যোদ্ধা অপূর্ব