ঢাকা, Wednesday 22 September 2021

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে লটারিতে নির্ধারন পরীক্ষকের ডিউটি

প্রকাশিত : 10:18 PM, 4 January 2021 Monday
92 বার পঠিত

| ডোনেট বিডি নিউজ ডেস্কঃ |

সারাদেশে প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচির (পিইডিপি-৪) আওতায় প্রাক-প্রাথমিকে এবার ৩২ হাজার ৫৭৭ জন শিক্ষক নিয়োগ দিচ্ছে সরকার। চাকরি জন্য আবেদন করেছেন ১৩ লাখের বেশি প্রার্থী। বিশাল এ সংখ্যাক প্রার্থীর পরীক্ষায় সব ধরনের অনিয়ম বন্ধে এবার নতুন পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। কেন্দ্র ভিত্তিক অনিয়ম বন্ধে এবার লটারির মাধ্যমে পরীক্ষকের ডিউটি নির্ধারন করা হবে।

সর্বশেষ ২০১৮ সালের নিয়োগে প্রশ্নফাঁস ঠেকানো গেলেও কেন্দ্র ভিত্তিক অনিয়ম বন্ধ করতে যায়নি। ওই সময় পাচঁটি জেলায় বিভিন্ন কেন্দ্রের মধ্যে পরীক্ষার্থীদের বলে দেয়া, প্রশ্ন সমাধানে বাইরে থেকে লোক ঢেকে এনে কেন্দ্রের ভিতরে প্রবেশের ঘটনা ঘটে।

আসন্ন পরীক্ষায় এসব অনিয়ম বন্ধে পরীক্ষকদের বিষয়ে তাই নতুন সিদ্ধান্ত নিতে

যাচ্ছে অধিদফতর। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, পরীক্ষকদের নজরধারীতে রাখার পাশাপাশি লটারির মাধ্যমে পরীক্ষক কোন কেন্দ্রে ডিউটি করবেন তা লটারির মাধ্যমে নির্ধারণ হবে। পরীক্ষার শুরুর এক থেকে দেড় ঘণ্টা আগে তাকে জানানো হবে। এতে পরীক্ষা হলের মধ্যে পছন্দের পরীক্ষার্থীকে বলে দেয়া বা আগের থেকে কেন্দ্র চুক্তি নেয়ার সুযোগ থাকবে না।

জানা গেছে, গত রবিবার বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) ও প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফরের মধ্যে এ সংক্রান্ত একটি বৈঠক হয়। যেখানে পরীক্ষার্থীদের মত পরীক্ষকদের ডিউটি লটারির মাধ্যমে নির্ধারণ করা বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বৈঠকে বুয়েটের প্রতিনিধি জানান, এখন থেকে দুই বা তিনদিন আগে শিক্ষক কোথায় ডিউটি করবেন তা না জানানো হবে না। তবে

তিনি পরীক্ষার ডিউটিতে থাকবেন সেটা জানবেন কিন্তু কোন কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকবেন তা জানবেন না। সেটি জানবেন পরীক্ষার শুরুর এক ঘণ্টা আগে। এতে স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা ও প্রভাবশালীদের চাপ এবং কেন্দ্রভিত্তিক চুক্তি করে নকল করার সুযোগ আর থাকবে না।

অধিদফতরের কর্মকর্তারা বলছেন, পরীক্ষার দিন পরীক্ষকরা জেলার নিদিষ্ট একটি জায়গায় অব্স্থান করবেন এক ঘন্টা আগে লটারির মাধ্যমে তার কেন্দ্র জানিয়ে দেয়ার পর তিনি সেখানে যাবেন। জেলা শিক্ষা অফিস ছাড়াও স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে করা হবে। এতদিন জেলা শিক্ষা অফিসের মাধ্যমে একদিন আগেই পরীক্ষককে তার কেন্দ্র জানিয়ে দেয়া হতো। এতে স্থানীয় প্রভাবশালী ও রাজনৈতিক চাপ আসতো তার ওপর। কেন্দ্রভিত্তিক চুক্তি

হতো পরীক্ষার্থীদের নকল বা হলে বলে দেয়ার জন্য।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক আলমগীর মোহাম্মদ মনসুরুল আলম বলেছেন, এবার সহকারি শিক্ষক নিয়োগের আরো স্বচ্ছতা আনতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। এরমধ্যে অন্যতম হলো পরীক্ষার হলে দায়িত্বরত পরীক্ষককে নজরদারীর মধ্যে রাখা এবং তাদের ডিউটি লটারির মাধ্যমে ঠিক করা। কারন সর্বশেষ ২০১৮ সালে নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁসসহ যেসব অনিয়ম হয়েছে তার বেশিরভাগ হয়েছে পরীক্ষার কেন্দ্র থেকে। সেজন্য দুইদিন আগে নয় এবার পরীক্ষকের কেন্দ্র এক ঘণ্টা আগে জানানো হবে। সেজন্য বুয়েট ও ডিপিই টেকনিক্যাল কমিটি এ সংক্রান্ত কাজ প্রায় শেষ করেছে।

এদিকে জানা গেছে, গত পরীক্ষায় ৮ সেট প্রশ্ন করা হয়েছিল। এবার

প্রশ্নের সেট আরো বাড়ানো হবে। তবে কত সেট হবে সেটা এখনও চূড়ান্ত হয়নি। এছাড়া আগে পরীক্ষায় যেসব জেলায় প্রশ্নফাঁস ও কেন্দ্রে ঝামেলা হয়েছে সেসব জেলা থাকবে অতিরিক্ত পর্যবেক্ষণে।

উল্লেখ্য, ২০০৯ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক লাখ ৯৭ হাজার ৮৬৪ জন শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়েছে। কর্মকর্তারা জানান, প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করবে বুয়েট। পরীক্ষার প্রশ্ন প্রণয়ন, চাকরিপ্রার্থী ও পরিদর্শককের সিট বন্টন, খাতা মূল্যায়ণসহ সব কিছুই বুয়েট করবে। প্রধান শিক্ষকের পদটি দ্বিতীয় শ্রেণির হওয়ায় পিএসসির মাধ্যমে বিসিএস চূড়ান্ত পরীক্ষা উত্তীর্ণদের মধ্য থেকে এ পদে নিয়োগ দেয়া হচ্ছে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি ডোনেট বাংলাদেশ'কে জানাতে ই-মেইল করুন- donetbd2010@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

ডোনেট বাংলাদেশ'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© 2021 সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। ডোনেট বাংলাদেশ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT