ঢাকা, Wednesday 22 September 2021

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

নিজস্ব শিপইয়ার্ডে আমরা যুদ্ধজাহাজ তৈরি করব

প্রকাশিত : 10:00 AM, 31 December 2020 Thursday
54 বার পঠিত

মোহাম্মদ রাছেল রানা | ডোনেট বাংলাদেশ নিউজ ডেক্স :-

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বাহিনীগুলোর সব রকম প্রস্তুতি রাখার ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেছেন, আমাদের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সব রকম প্রস্তুতি আমরা নেব। সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়; এই পররাষ্ট্রনীতি নিয়েই আমরা চলব এবং আমরা শান্তি চাই, যুদ্ধ চাই না।

আগামীতে নিজস্ব শিপইয়ার্ডে যুদ্ধজাহাজ তৈরির পরিকল্পনার কথা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আমরা সরকারে আসার পর খুলনা শিপইয়ার্ড নৌবাহিনীর হাতে তুলে দেই। সেটা প্রথম যখন সরকারে এসেছিলাম তখন। আমাদের ডকইয়ার্ড চট্টগ্রামে এবং নারায়ণগঞ্জে, সেটা আমরা নৌবাহিনীর হাতে তুলে দেই। লক্ষ্য হলো নিজস্ব শিপইয়ার্ডে আমরা আমাদের যুদ্ধ জাহাজও তৈরি করব। যার কাজ ইতোমধ্যে কিছু

কিছু শুরুও করেছি। তাছাড়া কক্সবাজারের পেকুয়াতে সাবমেরিন ঘাঁটি নির্মাণ করছি।

বুধবার বাংলাদেশ নৌবাহিনীর মিডশিপম্যান ২০১৮/এ ব্যাচ এবং ডাইরেক্ট এন্ট্রি অফিসার (ডিইও) ২০২০/বি ব্যাচের নবীন কর্মকর্তাদের শীতকালীন রাষ্ট্রপতি কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে চট্টগ্রামের বাংলাদেশ নেভাল একাডেমির সঙ্গে যুক্ত হয়ে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় আমাদের সব ধরনের উদ্যোগ যেন থাকে এবং প্রশিক্ষণ থাকে, সেভাবে আমরা আমাদের প্রতিটি বাহিনীকে গড়ে তুলছি। আমাদের লক্ষ্যÑএই স্বাধীন দেশ সব সময় বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে চলবে এবং আমরা আমাদের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সব রকম

প্রস্তুতি নেব।

প্রধানমন্ত্রীকে অনুষ্ঠান থেকে রাষ্ট্রীয় সালাম জানানো হয় এবং তিনি মনোজ্ঞ কুচকাওয়াজও প্রত্যক্ষ করেন। এ সময় প্রশিক্ষণে কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের জন্য প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল মোঃ শাহীন ইকবাল ক্যাডেটদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন। মিডশিপম্যান মেহরাব হোসেন অমি সেরা চৌকস মিডশিপম্যান হিসেবে সোর্ড অব অনার লাভ করেন। অনুষ্ঠানে মিডশিপম্যান এবং ডাইরেক্ট এন্ট্রি অফিসারদের শপথ বাক্যও পাঠ করানো হয়।

প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে বলেন, তাঁর সরকার নৌবাহিনীকে আরও শক্তিশালী করার জন্য ইতোমধ্যে ২৭টি যুদ্ধজাহাজ সংযোজন করেছে। ২০১৭ সালে নৌবহরে ২টি অত্যধুনিক সাবমেরিন সংযোজন করা হয়। বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে এভিয়েশন সিস্টেম সংযোজনসহ সরকার এই বাহিনীকে একটি পূর্ণ ত্রিমাত্রিক বাহিনীতে রূপান্তরিত করতে

সক্ষম হয়। পাশাপাশি, আরও উন্নত প্রশিক্ষণের জন্য নেভাল একাডেমিতে বঙ্গবন্ধু কমপ্লেক্সও নির্মাণ করা হয় এবং নৌবাহিনীর সদস্যদের আবাসন সমস্যা সমাধানের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

১৯৯৬ সালে সরকারে আসার পর খুলনা শিপইয়ার্ড নৌবাহিনীকে প্রদানের তথ্য উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা চট্টগ্রাম এবং নারায়ণগঞ্জের ডকইয়ার্ড দুটিও নৌবাহিনীর হাতে তুলে দিয়েছি। লক্ষ্য হলো, আমাদের নিজস্ব শিপইয়ার্ডেই আমরা যুদ্ধজাহাজও তৈরি করব। তাছাড়া কক্সবাজার এবং পেকুয়াতে সাবমেরিন ঘাঁটি নির্মাণ করা হচ্ছে এবং রামনাবাদে নৌবাহিনীর ঘাঁটি সম্প্রসারণের কাজ চলছে। এ সবের মাধ্যমে আমরা আমাদের সমুদ্র সম্পদকে যেন উন্নয়নের কাজে ব্যবহার করতে পারি, সেই লক্ষ্য নিয়েই কাজ করে যাচ্ছি।

প্রধানমন্ত্রী নবীন কমিশন প্রাপ্ত অফিসারদের

২০৪১ সালের উন্ন, সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তোলার স্বপ্ন সারথী আখ্যায়িত করে বলেন, আজকের কমিশন প্রাপ্ত নবীন অফিসার সেসময় স্ব স্ব দায়িত্ব পালন করবেন। তখন আপনারাই হবেন উর্ধতন কর্মকর্তা। কাজেই, এদেশের লক্ষ্য-২০৪১ অর্জনের ক্ষেত্রে আপনারাই মূল সৈনিক হিসেবে কাজ করবেন এবং দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন। আমি আশা করি, চাকরি বা ব্যক্তিজীবনের যে কোন সঙ্কট অতিক্রমে আমাদের এই নবীন অফিসাররা সব থেকে বেশি দক্ষ হবে। তোমরা যেন উন্নত জীবন যাপন করতে পার এবং দেশের সেবা করতে পার, সেজন্য আমার দোয়া থাকল তোমাদের জন্য।

প্রধানমন্ত্রী এ সময় জাতির পিতার নির্দেশনা সকলকে মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে ১৯৭৪ সালের ১০ ডিসেম্বর

নৌবাহিনী দিবস উপলক্ষে জাতির পিতার দেয়া ভাষণের চুম্বক অংশ উদ্ধৃত করেন। জাতির পিতা বলেছিলেন, যে জাতি নিজেকে সম্মান করতে পারে না, আত্মমর্যাদা রক্ষা করতে পারে না, সে জাতি দুনিয়ায় কোনদিন বড় হতে পারে না। সেজন্য আজকে আমরা আত্মমর্যাদা বিশিষ্ট জাতি হিসেবে, আত্মমর্যাদা নিয়ে বাস করতে চাই। আমরা অন্য কারও ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করতে চাই না। অন্য কেউ আমাদের ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করুক তাও আমরা সহ্য করব না। আমরা এই নীতিতেই বিশ্বাসী। শেখ হাসিনা বলেন, তোমরা জাতির পিতার আদর্শ মেনে চলবে।

শেখ হাসিনা এ সময় করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বানের কথা পুনরুল্লেখ করেন। করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্ব অর্থনীতিতে

এবং যোগাযোগের ক্ষেত্রে সৃষ্ট স্থবিরতার প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ সংক্রমণ যেন ব্যাপকভাবে আমাদের দেশে ছড়িয়ে না পড়ে সেজন্য এবং দেশের মানুষের কল্যাণের কথা চিন্তা করে তাঁর সরকার জাতির পিতার জš§শতবার্ষিকী সীমিত আকারে স্বাস্থ্যবিধি মেনে উদযাপন এবং বিভিন্ন অনুষ্ঠান ভার্চুয়ালি আয়োজন করছে।

করোনাভাইরাস মোকাবেলার জন্য তাঁর সরকার বিশেষ প্রণোদনা যেমন দিয়েছে তেমনি স্বাস্থ্য সুরক্ষায় সার্বিক নির্দেশনাও প্রদান করেছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, করোনাভাইরাস ব্যাপকভাবে যেন ছড়িয়ে না পড়ে বা সবাই যেন আক্রান্ত না হন, সেদিকে লক্ষ্য রাখাটা সকলের দায়িত্ব। আমি আশা করি, সবাই এ বিষয়ে ব্যাপকভাবে সচেতন থাকবেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০৯ সালে সরকার গঠনের পরই জাতির

পিতার ১৯৭৪ সালে প্রবর্তিত প্রতিরক্ষা নীতিমালাকে সময়োপযোগী করে ফোর্সেস গোল-২০৩০ প্রণয়ন এবং সমুদ্রসীমায় যে অধিকার রয়েছে তা প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, যদিও জাতির পিতা ১৯৭৪ সালেই যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠনকালেই ‘টেরিটোরিয়াল ওয়াটারস এন্ড মেরিটাইম জোনস এ্যাক্ট’ নামে সমুদ্র আইন করে যান। তথাপি জিয়া, এরশাদ ও খালেদা জিয়ার সরকারসহ কোন সরকারই এই সমুদ্র আইন বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়নি। তিনি বলেন, আমাদের সমুদ্রসীমায় যে অধিকার রয়েছে, সে বিষয়ে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে আন্তর্জাতিক আদালতে মামলা করে সমুদ্রসীমা অর্জন করতে সমর্থ হই। সেক্ষেত্রে উভয় প্রতিবেশীর সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রেখে এই মামলা জয়কে তাঁর সরকারের অন্যতম কূটনৈতিক সাফল্য হিসেবেও

উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ছয়দফা দাবিতেই বাংলাদেশে নৌ নৌবাহিনীর সদর দফতর করার দাবি ছিল উল্লেখ করে বঙ্গবন্ধু কন্যা স্বাধীনতার পর মাত্র সাড়ে তিন বছরের শাসনামলেই জাতির পিতার শক্তিশালী নৌবাহিনী গড়ে তোলার প্রচেষ্টার উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, জাতির পিতা যুগোসøাভিয়া ও ভারত থেকে ৫টি আধুনিক রণতরী সংগ্রহ করেন, নৌবাহিনীর বৃহত্তম প্রশিক্ষণ ঘাঁটি বানৌজা ঈসা খান কমিশনিং করেন এবং নৌবাহিনীকে ‘নেভাল এনসাইন’ প্রদান করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, করোনাভাইরাসের জন্য ব্যাপকভাবে ‘মুজিববর্ষ’ পালন না করে সীমিত আকারে করলেও দেশ ও জাতির জন্য যেটা ‘সব থেকে কল্যাণকর’ তেমনই কিছু কর্মসূচী তাঁর সরকার বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। আমাদের সিদ্ধান্ত

মুজিববর্ষে প্রতিটি ঘরে আমরা বিদ্যুতের আলো জ্বালব। সে লক্ষ্যে ইতোমধ্যেই ৯৯ ভাগ মানুষের ঘরে আমরা বিদ্যুত দিতে সক্ষম হয়েছি। ইনশাল্লাহ! শতভাগ গৃহে আমরা বিদ্যুত পৌঁছাব।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না, সেই নীতি নিয়ে সরকার সারাদেশে গৃহহীনদের বাড়ি-ঘর নির্মাণ করে পুনর্বাসনের উদ্যোগ নিয়েছে এবং নৌবাহিনীর মাধ্যমে সরকারের এই আশ্রয়ণ প্রকল্প শুরু হয়। তিনি বলেন, ’৯৭ সালের ঘূর্ণিঝড়ের পর সেন্ট মার্টিন দ্বীপে আশ্রয় গ্রহণকারী ৭০টি ভূমিহীন পরিবারকে ঘর-বাড়ি নির্মাণ করে দিয়েছিল বাংলাদেশ নৌবাহিনী এবং সরকারের আশ্রয়ণ প্রকল্পেরও সেই থেকে শুরু। তারপর থেকে সারাদেশে সেনাবাহিনী, বিভিন্ন বাহিনী এবং প্রশাসনের সহায়তায় সরকার এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে।

তিনি

বলেন, মুজিববর্ষ এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে বাংলাদেশে আর একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না, সেটা পূরণই আমাদের লক্ষ্য। যা আমাদের দারিদ্র্য বিমোচন এবং আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে। দেশের উন্নয়নে তাঁর সরকারের পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার সঙ্গে ১০ ও ২০ বছর মেয়াদী প্রেক্ষিত পরিকল্পনা এবং শতবর্ষ মেয়াদী ‘ডেল্টা পরিকল্পনা-২১০০’ বাস্তবায়নের পদক্ষেপও তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, আজকে যে শিশুটি জš§গ্রহণ করেছে তাঁর ভবিষ্যতটা কেমন হবে সেই চিন্তা থেকেই এসব পরিকল্পনা করা হয়েছে।

ভিডিও টেলিকনফারে›েসর মাধ্যমে কুচকাওয়াজ পরিদর্শনের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর বক্তৃতায় উল্লেখ করেন, বর্তমান সরকার দায়িত্বভার গ্রহণের পর জাতির পিতার প্রণীত প্রতিরক্ষা নীতির আলোকে নৌবাহিনীকে একটি যুগোপযোগী বাহিনী হিসেবে

গড়ে তোলার জন্য বিভিন্ন অবকাঠামোগত উন্নয়ন, যুদ্ধজাহাজ সংযোজন এবং বিদ্যমান জাহাজসমূহের অপারেশনাল সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বাস্তবমুখী পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। সমুদ্রসীমা রক্ষার পাশাপাশি সমুদ্রসম্পদকেও যেন দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে কাজে লাগানো যায় এ লক্ষ্য নিয়েই সরকার ব্লু-ইকোনমির বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের গুরুত্ব আরোপ করেছে।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যেই বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক আধুনিক যুদ্ধজাহাজ, সাবমেরিন, হেলিকপ্টার, মেরিটাইম প্যাট্রোল এয়ারক্রাফ্টসহ আধুনিক যুদ্ধ সরঞ্জাম ও প্রযুক্তি সংযোজন করা হয়েছে। এছাড়া নৌবাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধির অংশ হিসেবে ভবিষ্যতে আরও উন্নততর জাহাজ এবং আধুনিক যুদ্ধ সরঞ্জাম ও প্রযুক্তি সংযোজনের পরিকল্পনা আমাদের রয়েছে। পেকুয়ায় স্থায়ী সাবমেরিন ঘাঁটি বানৌজা শেখ হাসিনা নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। নৌবাহিনীর দক্ষ ব্যবস্থাপনায়

পরিচালিত শিপইয়ার্ড ও ডকইয়ার্ডসমূহ ইতোমধ্যে বাণিজ্যিক জাহাজের পাশাপাশি যুদ্ধজাহাজ নির্মাণের সক্ষমতা অর্জন করেছে।

করোনা ভাইরাসের মধ্যে এ সময় বাংলাদেশ নেভাল একাডেমি প্রশিক্ষণ যথাযথভাবে সম্পন্ন করতে পারায় তিনি নৌবাহিনী প্রধানসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। তিনি পাসিং আউট ক্যাডেটদের উদ্দেশে আরও বলেন, প্রতিকূল পরিস্থিতিতে প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণ ভবিষ্যত চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় তোমাদের দৃঢ় মনোবল ও সাহস যোগাবে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি ডোনেট বাংলাদেশ'কে জানাতে ই-মেইল করুন- donetbd2010@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

ডোনেট বাংলাদেশ'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© 2021 সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। ডোনেট বাংলাদেশ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT