দেশে শনাক্ত হলো ওমিক্রন স্বাস্থ্যবিধি ও টিকা দুটোই অব্যাহত রাখতে হবে - বর্ণমালা টেলিভিশন

সম্প্রতি জিম্বাবুয়ে সফর করে দেশে ফিরে আসা দুই নারী ক্রিকেটার করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনে আক্রান্ত হওয়ার খবরে দেশবাসীর উদ্বেগ বাড়বে, এটাই স্বাভাবিক। করোনার এ নতুন ধরনটি মাত্র কিছুদিন আগে শনাক্ত হয়েছে। জানা গেছে, এটি খুব দ্রুত ছড়ায়। দক্ষিণ আফ্রিকা, যেখানে ওমিক্রনের প্রথম রোগী শনাক্ত হয়েছিল, সেখানকার এক চিকিৎসক জানিয়েছেন নতুন ধরনটিতে আক্রান্তদের উপসর্গ মৃদু; আক্রান্তদের হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজনও পড়ছে না। এছাড়া ভারতে যাদের মধ্যে ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে, তাদের তেমন কোনো জটিলতা নেই বলে দেশটির স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) জানিয়েছে, আমরা যেসব টিকা ব্যবহার করছি, সেগুলো ওমিক্রন প্রতিরোধেও কাজ করতে পারে। কাজেই যারা এখনো টিকা নেয়নি, তাদের

উচিত যত দ্রুত সম্ভব টিকা নেওয়া।

বিশ্ববাসী যখন করোনার ক্ষতি কাটিয়ে উঠে কিছুটা স্বস্তির নিশ্বাস ফেলার চেষ্টা করছিল, এমন সময় দেশে দেশে ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়ার খবরে নতুন করে বাড়তি উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে। করোনা মোকাবিলার কৌশলগুলো সবারই জানা। এখন দরকার সবার সচেতনতার পরিচয় দেওয়া। এক্ষেত্রে স্থল-নৌ-বিমান বন্দর কর্তৃপক্ষকে বিশেষ দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে হবে। বিভিন্ন স্থলবন্দরে পণ্যবাহী যানবাহনের চালকরা যাতে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করেন, সেদিকেও বিশেষভাবে দৃষ্টি দিতে হবে। আইসোলেশন ও কোয়ারেন্টিনের ক্ষেত্রে কোনো রকম গাফিলতির খবর পাওয়া গেলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। সম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে দেশে ফেরত দুই শতাধিক বাংলাদেশি নাগরিকের আত্মগোপনের ঘটনাটি দুঃখজনক। এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি

রোধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া না হলে ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়া রোধ করা কঠিন হতে পারে।

টিকা নেওয়ার বিষয়ে মানুষের আগ্রহ যাতে অক্ষুণ্ন থাকে, সেজন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। আবিষ্কৃত টিকাগুলো নতুন ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে কতটা কার্যকর, এ বিষয়ে গবেষণায় গুরুত্ব বাড়াতে হবে। দুই ডোজ টিকা নেওয়ার পরও পুরোপুরি করোনার শঙ্কামুক্ত হওয়ার বিষয়ে সংশয়ের বিষয়টি আগে বারবার আলোচনায় এসেছে। করোনার বিরুদ্ধে শতভাগ সুরক্ষা পেতে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিষয়ে জনসচেতনতা বাড়াতে হবে। টিকা তৈরির ক্ষেত্রে আমাদের দেশের গবেষকরা অনেকদূর এগিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছেন। দেশের আগ্রহী ও সক্ষম প্রতিষ্ঠানগুলো যাতে সফলভাবে টিকা উৎপাদন কার্যক্রম চালিয়ে যেতে পারে, সে জন্য সরকারি সহায়তা অব্যাহত রাখা দরকার।

সম্প্রতি জিম্বাবুয়ে সফর করে দেশে ফিরে আসা দুই নারী ক্রিকেটার করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনে আক্রান্ত হওয়ার খবরে দেশবাসীর উদ্বেগ বাড়বে, এটাই স্বাভাবিক। করোনার এ নতুন ধরনটি মাত্র কিছুদিন আগে শনাক্ত হয়েছে। জানা গেছে, এটি খুব দ্রুত ছড়ায়। দক্ষিণ আফ্রিকা, যেখানে ওমিক্রনের প্রথম রোগী শনাক্ত হয়েছিল, সেখানকার এক চিকিৎসক জানিয়েছেন নতুন ধরনটিতে আক্রান্তদের উপসর্গ মৃদু; আক্রান্তদের হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজনও পড়ছে না। এছাড়া ভারতে যাদের মধ্যে ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে, তাদের তেমন কোনো জটিলতা নেই বলে দেশটির স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) জানিয়েছে, আমরা যেসব টিকা ব্যবহার করছি, সেগুলো ওমিক্রন প্রতিরোধেও কাজ করতে পারে। কাজেই যারা এখনো টিকা নেয়নি, তাদের

উচিত যত দ্রুত সম্ভব টিকা নেওয়া।

বিশ্ববাসী যখন করোনার ক্ষতি কাটিয়ে উঠে কিছুটা স্বস্তির নিশ্বাস ফেলার চেষ্টা করছিল, এমন সময় দেশে দেশে ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়ার খবরে নতুন করে বাড়তি উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে। করোনা মোকাবিলার কৌশলগুলো সবারই জানা। এখন দরকার সবার সচেতনতার পরিচয় দেওয়া। এক্ষেত্রে স্থল-নৌ-বিমান বন্দর কর্তৃপক্ষকে বিশেষ দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে হবে। বিভিন্ন স্থলবন্দরে পণ্যবাহী যানবাহনের চালকরা যাতে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করেন, সেদিকেও বিশেষভাবে দৃষ্টি দিতে হবে। আইসোলেশন ও কোয়ারেন্টিনের ক্ষেত্রে কোনো রকম গাফিলতির খবর পাওয়া গেলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। সম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে দেশে ফেরত দুই শতাধিক বাংলাদেশি নাগরিকের আত্মগোপনের ঘটনাটি দুঃখজনক। এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি

রোধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া না হলে ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়া রোধ করা কঠিন হতে পারে।

টিকা নেওয়ার বিষয়ে মানুষের আগ্রহ যাতে অক্ষুণ্ন থাকে, সেজন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। আবিষ্কৃত টিকাগুলো নতুন ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে কতটা কার্যকর, এ বিষয়ে গবেষণায় গুরুত্ব বাড়াতে হবে। দুই ডোজ টিকা নেওয়ার পরও পুরোপুরি করোনার শঙ্কামুক্ত হওয়ার বিষয়ে সংশয়ের বিষয়টি আগে বারবার আলোচনায় এসেছে। করোনার বিরুদ্ধে শতভাগ সুরক্ষা পেতে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিষয়ে জনসচেতনতা বাড়াতে হবে। টিকা তৈরির ক্ষেত্রে আমাদের দেশের গবেষকরা অনেকদূর এগিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছেন। দেশের আগ্রহী ও সক্ষম প্রতিষ্ঠানগুলো যাতে সফলভাবে টিকা উৎপাদন কার্যক্রম চালিয়ে যেতে পারে, সে জন্য সরকারি সহায়তা অব্যাহত রাখা দরকার।

দেশে শনাক্ত হলো ওমিক্রন স্বাস্থ্যবিধি ও টিকা দুটোই অব্যাহত রাখতে হবে

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ১৩ ডিসেম্বর, ২০২১ | ৮:৫৬ 61 ভিউ
সম্প্রতি জিম্বাবুয়ে সফর করে দেশে ফিরে আসা দুই নারী ক্রিকেটার করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনে আক্রান্ত হওয়ার খবরে দেশবাসীর উদ্বেগ বাড়বে, এটাই স্বাভাবিক। করোনার এ নতুন ধরনটি মাত্র কিছুদিন আগে শনাক্ত হয়েছে। জানা গেছে, এটি খুব দ্রুত ছড়ায়। দক্ষিণ আফ্রিকা, যেখানে ওমিক্রনের প্রথম রোগী শনাক্ত হয়েছিল, সেখানকার এক চিকিৎসক জানিয়েছেন নতুন ধরনটিতে আক্রান্তদের উপসর্গ মৃদু; আক্রান্তদের হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজনও পড়ছে না। এছাড়া ভারতে যাদের মধ্যে ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে, তাদের তেমন কোনো জটিলতা নেই বলে দেশটির স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) জানিয়েছে, আমরা যেসব টিকা ব্যবহার করছি, সেগুলো ওমিক্রন প্রতিরোধেও কাজ করতে পারে। কাজেই যারা এখনো টিকা নেয়নি, তাদের

উচিত যত দ্রুত সম্ভব টিকা নেওয়া। বিশ্ববাসী যখন করোনার ক্ষতি কাটিয়ে উঠে কিছুটা স্বস্তির নিশ্বাস ফেলার চেষ্টা করছিল, এমন সময় দেশে দেশে ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়ার খবরে নতুন করে বাড়তি উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে। করোনা মোকাবিলার কৌশলগুলো সবারই জানা। এখন দরকার সবার সচেতনতার পরিচয় দেওয়া। এক্ষেত্রে স্থল-নৌ-বিমান বন্দর কর্তৃপক্ষকে বিশেষ দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে হবে। বিভিন্ন স্থলবন্দরে পণ্যবাহী যানবাহনের চালকরা যাতে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করেন, সেদিকেও বিশেষভাবে দৃষ্টি দিতে হবে। আইসোলেশন ও কোয়ারেন্টিনের ক্ষেত্রে কোনো রকম গাফিলতির খবর পাওয়া গেলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। সম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে দেশে ফেরত দুই শতাধিক বাংলাদেশি নাগরিকের আত্মগোপনের ঘটনাটি দুঃখজনক। এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি

রোধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া না হলে ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়া রোধ করা কঠিন হতে পারে। টিকা নেওয়ার বিষয়ে মানুষের আগ্রহ যাতে অক্ষুণ্ন থাকে, সেজন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। আবিষ্কৃত টিকাগুলো নতুন ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে কতটা কার্যকর, এ বিষয়ে গবেষণায় গুরুত্ব বাড়াতে হবে। দুই ডোজ টিকা নেওয়ার পরও পুরোপুরি করোনার শঙ্কামুক্ত হওয়ার বিষয়ে সংশয়ের বিষয়টি আগে বারবার আলোচনায় এসেছে। করোনার বিরুদ্ধে শতভাগ সুরক্ষা পেতে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিষয়ে জনসচেতনতা বাড়াতে হবে। টিকা তৈরির ক্ষেত্রে আমাদের দেশের গবেষকরা অনেকদূর এগিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছেন। দেশের আগ্রহী ও সক্ষম প্রতিষ্ঠানগুলো যাতে সফলভাবে টিকা উৎপাদন কার্যক্রম চালিয়ে যেতে পারে, সে জন্য সরকারি সহায়তা অব্যাহত রাখা দরকার।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


































শীর্ষ সংবাদ:
নিয়োগে দুর্নীতি: জীবন বীমার এমডির বিরুদ্ধে দুদকের মামলা মিহির ঘোষসহ নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবীতে গাইবান্ধায় সিপিবির বিক্ষোভ গাইবান্ধায় সেনাবাহিনীর ভূয়া ক্যাপ্টেন গ্রেফতার জগন্নাথপুরে সড়ক নির্মানের অভিযোগ এক ঠিকাদারের বিরুদ্ধে তারাকান্দায় অসহায় ও দুস্থদের মাঝে ছাত্রদলের খাবার বিতরণ দেবহাটায় অস্ত্র-গুলি ও ইয়াবা উদ্ধার আটক -১ রামগড়ে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বাগমারায় ভেদুর মোড় হতে নরদাশ পর্যন্ত পাকা রাস্তার শুভ উদ্বোধন সরকারি বিধিনিষেধ না মানায় শার্শায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা আদায় মধুখালীতে তিন মাসে ৪৩ টি গরু চুরি গাইবান্ধায় বঙ্গবন্ধু জেলা ভলিবল প্রতিযোগিতার উদ্বোধন গাইবান্ধায় শীতবস্ত্র বিতরণ রাজশাহীতে পুত্রের হাতে পিতা খুন বাগমারায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার রামগড়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার শীতবস্ত্র বিতরণ করেন ইউএনও ভাঃ উম্মে হাবিবা মজুমদার জগন্নাথপুরে জুয়ার আসরে পুলিশ দেখে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে নিখোঁজ এক ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় সিপিবি নেতা মিহির ঘোষসহ ৬ জন কারাগারে পিআইও’র মানহানির মামলায় গাইবান্ধার ৪ সাংবাদিকসহ ৫ জনের জামিন গাইবান্ধায় প্রগতিশীল ছাত্র জোটের মানববন্ধন চাঁপাইনবাবগঞ্জে সোনালী ব্যাংক লি. গোমস্তাপুর শাখায় শীতবস্ত্র বিতরণ