দুই বছরের মধ্যে ঢাকায় নামবে পরিবেশবান্ধব ইলেকট্রিক বাস - বর্ণমালা টেলিভিশন

আগামী দুই বছরের মধ্যে রাজধানী ঢাকায় পরিবেশবান্ধব ইলেকট্রিক বাস নামানো হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম। বাংলা ট্রিবিউনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মেয়র জানান, স্কটল্যান্ডে বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনে গিয়ে তিনি এ ধরনের বাস দেখে অভিভূত হয়েছেন। সেখান থেকেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তার মতে, এতে রাজধানী ঢাকায় বায়ুদূষণ অনেকাংশে কমবে। পাশাপাশি সাধারণ মানুষকে নিরাপদ যাত্রা নিশ্চিত হবে।

সম্মেলনে ইলেকট্রিক বাসের ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন বিশ্বনেতারা। পাশাপাশি এ ধরনের যানবাহন চালু করার জন্য পরিবেশবাদীরা বেশ দাবি তুলেছেন। বাংলাদেশে চালু হতে যাওয়া বাস রুট রেশনালাইজেশন ও কোম্পানির মাধ্যমে বাস পরিচালনা ব্যবস্থায় এ ধরনের ইলেকট্রনিক বাস যুক্ত করার সিদ্ধান্ত রয়েছে বলেও জানিয়েছেন

তিনি।

তুরস্ক সফররত মেয়র আতিক বলেন, ইলেকট্রিক বাস চালু করলে বায়ুদূষণ রোধের পাশাপাশি জ্বালানি ব্যয় কমবে। আর নাগরিকরা একটি নিরাপদ ও আরামদায়ক যানবাহন পাবে। বিষয়টি নিয়ে এরইমধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন শহরের মেয়রদের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, ঢাকাকে যানজটমুক্ত শহর হিসেবে গড়তে হবে। আর বায়ুদূষণ রোধে আমি এটা করেই ছাড়বো। এটা আমার সিদ্ধান্ত। এরইমধ্যে অনেক দূর এগিয়েছি। তুরস্কের মেয়রের সঙ্গেও আমি এ বিষয়ে কথা বলবো। যেসব শহরে ইলেকট্রিক বাস চালু রয়েছে তাদের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাবো।

রাজধানীতে বর্তমানে ১২০টি কোম্পানির মালিকানাধীন প্রায় সাত হাজার গণপরিবহন চলাচল করছে। এসব গণপরিবহনের মধ্যে মাত্র ৩০৮টি বাস সিএনজিতে চলে। বাকি বাসগুলো চলে ডিজেলের মাধ্যমে। ফলে যানবাহন থেকে

প্রতিনিয়ত নির্গত কালো ধোঁয়া পরিবেশের বিপর্যয় ঘটায়। এছাড়া বিআরটিসির নিবন্ধন অনুযায়ী ১১ লাখের বেশি যানবাহন রয়েছে, যা প্রতিনিয়ত কার্বন নিঃসরণ করে।

গত মাসে স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোতে অনুষ্ঠিত বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনে (কপ-২৬) আগত দর্শনার্থীদের জন্য ইলেকট্রিক বাস দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এর মাধ্যমে জানান দেওয়া হয়, পরিবেশের জন্য জ্বালানি তেল দ্বারা চালিত যানবাহন ক্ষতিকর। সম্মেলন থেকে ইলেকট্রিক বাসের প্রতি গুরুত্ব দেওয়া হয়। ওই সম্মেলনে মেয়রদের নিয়ে অনুষ্ঠিত প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করেছিলেন আতিকুল ইসলাম।

মেয়র বলেন, আমি জলবায়ু সম্মেলনের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে চাই। ঢাকায় এটা কার্যকর করেই ছাড়বো ইনশাআল্লাহ। আমি মনে করি ঢাকাকে বাঁচাতে হবে। সেই দায়িত্ব প্রধানমন্ত্রী আমাদের দিয়েছেন। বিদেশের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে সুন্দর পরিবহন ব্যবস্থা নিশ্চিত

করবো।

আগামী দুই বছরের মধ্যে রাজধানী ঢাকায় পরিবেশবান্ধব ইলেকট্রিক বাস নামানো হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম। বাংলা ট্রিবিউনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মেয়র জানান, স্কটল্যান্ডে বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনে গিয়ে তিনি এ ধরনের বাস দেখে অভিভূত হয়েছেন। সেখান থেকেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তার মতে, এতে রাজধানী ঢাকায় বায়ুদূষণ অনেকাংশে কমবে। পাশাপাশি সাধারণ মানুষকে নিরাপদ যাত্রা নিশ্চিত হবে।

সম্মেলনে ইলেকট্রিক বাসের ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন বিশ্বনেতারা। পাশাপাশি এ ধরনের যানবাহন চালু করার জন্য পরিবেশবাদীরা বেশ দাবি তুলেছেন। বাংলাদেশে চালু হতে যাওয়া বাস রুট রেশনালাইজেশন ও কোম্পানির মাধ্যমে বাস পরিচালনা ব্যবস্থায় এ ধরনের ইলেকট্রনিক বাস যুক্ত করার সিদ্ধান্ত রয়েছে বলেও জানিয়েছেন

তিনি।

তুরস্ক সফররত মেয়র আতিক বলেন, ইলেকট্রিক বাস চালু করলে বায়ুদূষণ রোধের পাশাপাশি জ্বালানি ব্যয় কমবে। আর নাগরিকরা একটি নিরাপদ ও আরামদায়ক যানবাহন পাবে। বিষয়টি নিয়ে এরইমধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন শহরের মেয়রদের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, ঢাকাকে যানজটমুক্ত শহর হিসেবে গড়তে হবে। আর বায়ুদূষণ রোধে আমি এটা করেই ছাড়বো। এটা আমার সিদ্ধান্ত। এরইমধ্যে অনেক দূর এগিয়েছি। তুরস্কের মেয়রের সঙ্গেও আমি এ বিষয়ে কথা বলবো। যেসব শহরে ইলেকট্রিক বাস চালু রয়েছে তাদের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাবো।

রাজধানীতে বর্তমানে ১২০টি কোম্পানির মালিকানাধীন প্রায় সাত হাজার গণপরিবহন চলাচল করছে। এসব গণপরিবহনের মধ্যে মাত্র ৩০৮টি বাস সিএনজিতে চলে। বাকি বাসগুলো চলে ডিজেলের মাধ্যমে। ফলে যানবাহন থেকে

প্রতিনিয়ত নির্গত কালো ধোঁয়া পরিবেশের বিপর্যয় ঘটায়। এছাড়া বিআরটিসির নিবন্ধন অনুযায়ী ১১ লাখের বেশি যানবাহন রয়েছে, যা প্রতিনিয়ত কার্বন নিঃসরণ করে।

গত মাসে স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোতে অনুষ্ঠিত বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনে (কপ-২৬) আগত দর্শনার্থীদের জন্য ইলেকট্রিক বাস দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এর মাধ্যমে জানান দেওয়া হয়, পরিবেশের জন্য জ্বালানি তেল দ্বারা চালিত যানবাহন ক্ষতিকর। সম্মেলন থেকে ইলেকট্রিক বাসের প্রতি গুরুত্ব দেওয়া হয়। ওই সম্মেলনে মেয়রদের নিয়ে অনুষ্ঠিত প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করেছিলেন আতিকুল ইসলাম।

মেয়র বলেন, আমি জলবায়ু সম্মেলনের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে চাই। ঢাকায় এটা কার্যকর করেই ছাড়বো ইনশাআল্লাহ। আমি মনে করি ঢাকাকে বাঁচাতে হবে। সেই দায়িত্ব প্রধানমন্ত্রী আমাদের দিয়েছেন। বিদেশের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে সুন্দর পরিবহন ব্যবস্থা নিশ্চিত

করবো।

দুই বছরের মধ্যে ঢাকায় নামবে পরিবেশবান্ধব ইলেকট্রিক বাস

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ১৩ ডিসেম্বর, ২০২১ | ১১:৪১ 88 ভিউ
আগামী দুই বছরের মধ্যে রাজধানী ঢাকায় পরিবেশবান্ধব ইলেকট্রিক বাস নামানো হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম। বাংলা ট্রিবিউনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মেয়র জানান, স্কটল্যান্ডে বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনে গিয়ে তিনি এ ধরনের বাস দেখে অভিভূত হয়েছেন। সেখান থেকেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তার মতে, এতে রাজধানী ঢাকায় বায়ুদূষণ অনেকাংশে কমবে। পাশাপাশি সাধারণ মানুষকে নিরাপদ যাত্রা নিশ্চিত হবে। সম্মেলনে ইলেকট্রিক বাসের ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন বিশ্বনেতারা। পাশাপাশি এ ধরনের যানবাহন চালু করার জন্য পরিবেশবাদীরা বেশ দাবি তুলেছেন। বাংলাদেশে চালু হতে যাওয়া বাস রুট রেশনালাইজেশন ও কোম্পানির মাধ্যমে বাস পরিচালনা ব্যবস্থায় এ ধরনের ইলেকট্রনিক বাস যুক্ত করার সিদ্ধান্ত রয়েছে বলেও জানিয়েছেন

তিনি। তুরস্ক সফররত মেয়র আতিক বলেন, ইলেকট্রিক বাস চালু করলে বায়ুদূষণ রোধের পাশাপাশি জ্বালানি ব্যয় কমবে। আর নাগরিকরা একটি নিরাপদ ও আরামদায়ক যানবাহন পাবে। বিষয়টি নিয়ে এরইমধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন শহরের মেয়রদের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। তিনি আরও বলেন, ঢাকাকে যানজটমুক্ত শহর হিসেবে গড়তে হবে। আর বায়ুদূষণ রোধে আমি এটা করেই ছাড়বো। এটা আমার সিদ্ধান্ত। এরইমধ্যে অনেক দূর এগিয়েছি। তুরস্কের মেয়রের সঙ্গেও আমি এ বিষয়ে কথা বলবো। যেসব শহরে ইলেকট্রিক বাস চালু রয়েছে তাদের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাবো। রাজধানীতে বর্তমানে ১২০টি কোম্পানির মালিকানাধীন প্রায় সাত হাজার গণপরিবহন চলাচল করছে। এসব গণপরিবহনের মধ্যে মাত্র ৩০৮টি বাস সিএনজিতে চলে। বাকি বাসগুলো চলে ডিজেলের মাধ্যমে। ফলে যানবাহন থেকে

প্রতিনিয়ত নির্গত কালো ধোঁয়া পরিবেশের বিপর্যয় ঘটায়। এছাড়া বিআরটিসির নিবন্ধন অনুযায়ী ১১ লাখের বেশি যানবাহন রয়েছে, যা প্রতিনিয়ত কার্বন নিঃসরণ করে। গত মাসে স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোতে অনুষ্ঠিত বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনে (কপ-২৬) আগত দর্শনার্থীদের জন্য ইলেকট্রিক বাস দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এর মাধ্যমে জানান দেওয়া হয়, পরিবেশের জন্য জ্বালানি তেল দ্বারা চালিত যানবাহন ক্ষতিকর। সম্মেলন থেকে ইলেকট্রিক বাসের প্রতি গুরুত্ব দেওয়া হয়। ওই সম্মেলনে মেয়রদের নিয়ে অনুষ্ঠিত প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করেছিলেন আতিকুল ইসলাম। মেয়র বলেন, আমি জলবায়ু সম্মেলনের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে চাই। ঢাকায় এটা কার্যকর করেই ছাড়বো ইনশাআল্লাহ। আমি মনে করি ঢাকাকে বাঁচাতে হবে। সেই দায়িত্ব প্রধানমন্ত্রী আমাদের দিয়েছেন। বিদেশের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে সুন্দর পরিবহন ব্যবস্থা নিশ্চিত

করবো।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


































শীর্ষ সংবাদ:
নিয়োগে দুর্নীতি: জীবন বীমার এমডির বিরুদ্ধে দুদকের মামলা মিহির ঘোষসহ নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবীতে গাইবান্ধায় সিপিবির বিক্ষোভ গাইবান্ধায় সেনাবাহিনীর ভূয়া ক্যাপ্টেন গ্রেফতার জগন্নাথপুরে সড়ক নির্মানের অভিযোগ এক ঠিকাদারের বিরুদ্ধে তারাকান্দায় অসহায় ও দুস্থদের মাঝে ছাত্রদলের খাবার বিতরণ দেবহাটায় অস্ত্র-গুলি ও ইয়াবা উদ্ধার আটক -১ রামগড়ে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বাগমারায় ভেদুর মোড় হতে নরদাশ পর্যন্ত পাকা রাস্তার শুভ উদ্বোধন সরকারি বিধিনিষেধ না মানায় শার্শায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা আদায় মধুখালীতে তিন মাসে ৪৩ টি গরু চুরি গাইবান্ধায় বঙ্গবন্ধু জেলা ভলিবল প্রতিযোগিতার উদ্বোধন গাইবান্ধায় শীতবস্ত্র বিতরণ রাজশাহীতে পুত্রের হাতে পিতা খুন বাগমারায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার রামগড়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার শীতবস্ত্র বিতরণ করেন ইউএনও ভাঃ উম্মে হাবিবা মজুমদার জগন্নাথপুরে জুয়ার আসরে পুলিশ দেখে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে নিখোঁজ এক ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় সিপিবি নেতা মিহির ঘোষসহ ৬ জন কারাগারে পিআইও’র মানহানির মামলায় গাইবান্ধার ৪ সাংবাদিকসহ ৫ জনের জামিন গাইবান্ধায় প্রগতিশীল ছাত্র জোটের মানববন্ধন চাঁপাইনবাবগঞ্জে সোনালী ব্যাংক লি. গোমস্তাপুর শাখায় শীতবস্ত্র বিতরণ