তদন্তকাজে দীর্ঘসূত্রতা - বর্ণমালা টেলিভিশন

প্রথমে একটা উদাহরণ দেওয়া যাক। ২০১৯ সালের ১ অক্টোবর সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের সাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আসিফ ইমতিয়াজের বিরুদ্ধে ঘুস-দুর্নীতির মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধান শুরু করেছিল দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

এ অনুসন্ধানের কাজ এখন পর্যন্ত শেষ করতে পারেনি দুদক। শুধু এ ক্ষেত্রেই নয়, এই মুহূর্তে দুদকের এক-চতুর্থাংশ অনুসন্ধান ও তদন্ত কার্যক্রমই মেয়াদোত্তীর্ণ।

বিদ্যমান আইনের নির্ধারিত সময়ের মধ্যে (১৮০ দিন) ২৮ দশমিক ৮৮ শতাংশ অনুসন্ধান এবং ১৩ দশমিক ৩৫ শতাংশ মামলার তদন্তকাজ শেষ হয়নি।

মেয়াদোত্তীর্ণ মোট অনুসন্ধান ও মামলার তদন্তের হার ২৪ দশমিক ৫০ শতাংশ। আরেক হিসাবে, চলতি বছরের ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত দুদকের মেয়াদোত্তীর্ণ অনুসন্ধান ১১১৯টি এবং মেয়াদোত্তীর্ণ তদন্ত ২০৩টি। দুদকের তদন্তের এমন

ধীরগতিতে সম্প্রতি এক রায়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট।

অনুসন্ধান ও তদন্তকাজে দুদকের এই ধীরগতির কারণ প্রসঙ্গে দুদকের সাবেক মহাপরিচালক মো. মঈদুল ইসলাম বলেছেন, মেয়াদোত্তীর্ণ অনুসন্ধান ও তদন্তের ক্ষেত্রে তদন্তকারী কর্মকর্তার চেয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও কমিশন বেশি দায়ী।

তিনি আরও বলেছেন, কমিশন তদন্তকারী কর্মকর্তা ও তদারককারী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করে না। তিনি মহাপরিচালক তথা কমিশনকে আরও দায়িত্বশীল হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। আমাদের কথা হলো, কোনো তদন্তকারী কর্মকর্তা যদি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তদন্তকাজ শেষ করতে না পারেন, তাহলে সেই ব্যর্থতার দায়ে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না কেন? বলাই বাহুল্য, ব্যর্থতার দায়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হলে অন্যান্য তদন্তকারী কর্মকর্তা দায়িত্ব পালনে

আরও সচেতন হতে পারতেন।

ওদিকে দুদক কমিশনার ড. মোজাম্মেল হক বলেছেন, মেয়াদোত্তীর্ণ অনুসন্ধান ও তদন্তের বিষয়ে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে। এ ধরনের অনুসন্ধান ও তদন্তের সংখ্যা কত, সমস্যা কোথায়, সমস্যা থাকলে তা কোন পর্যায়ে-এসব বিষয়ে একটি গবেষণা শুরু হয়েছে।

কিছু ভুলভ্রান্তি রয়েছে বলেও তিনি মন্তব্য করেছেন। অনুসন্ধান ও তদন্তকাজে কোনো কর্মকর্তার যদি বড় ধরনের গাফিলতি থাকে অথবা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে কেউ যদি বিলম্ব ঘটায়, তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আমরাও চাই, ব্যর্থতার কারণ বিশ্লেষণ করে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে যথোপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হোক। উল্লেখ্য, দুদক আইনের ২০(ক) ১ ও ২ উপধারা অনুযায়ী, সর্বোচ্চ ১৮০ দিনের মধ্যে তদন্তকাজ শেষ করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

দুদক দেশে

সংঘটিত দুর্নীতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার লক্ষ্যে গঠিত একটি বিধিবদ্ধ সংস্থা। এ সংস্থার কোনো কাজে দীর্ঘসূত্রতা প্রকারান্তরে দুর্নীতিকেই উৎসাহিত করে। ফলে দুদকের তদন্ত ও অনুসন্ধান কাজে গতি আনতে হবে। মূলত দুটি কারণে তদন্তকাজে দীর্ঘসূত্রতা হচ্ছে।

প্রথম কারণটি জনবল সংকট। দুদকে বর্তমানে অনুসন্ধান ও তদন্তকারী কর্মকর্তা রয়েছেন ২০০ জন। আর জনপ্রতি তাদের কাঁধে ৩০টি অনুসন্ধান ও তদন্তের দায়িত্ব রয়েছে। তদন্তকারী কর্মকর্তার সংখ্যার এই স্বল্পতা এক বড় সংকট বটে। এই সংকট দূর করতে হবে অতিরিক্ত জনবল নিয়োগ করে।

দ্বিতীয় কারণটি হলো অন্যান্য সংস্থা ও সংশ্লিষ্টদের অসহযোগিতা। দুদকের মামলা যেহেতু করতে হয় ডকুমেন্টভিত্তিক, সেজন্য মামলার স্বার্থে সংশ্লিষ্ট অন্যান্য সংস্থার উচিত হবে ডকুমেন্ট ও তথ্য দিয়ে দুদককে

সহযোগিতা করা। সবার সহযোগিতা ও আন্তরিকতায় দুদকের কার্যক্রমে গতি ফিরে আসবে-এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

প্রথমে একটা উদাহরণ দেওয়া যাক। ২০১৯ সালের ১ অক্টোবর সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের সাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আসিফ ইমতিয়াজের বিরুদ্ধে ঘুস-দুর্নীতির মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধান শুরু করেছিল দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

এ অনুসন্ধানের কাজ এখন পর্যন্ত শেষ করতে পারেনি দুদক। শুধু এ ক্ষেত্রেই নয়, এই মুহূর্তে দুদকের এক-চতুর্থাংশ অনুসন্ধান ও তদন্ত কার্যক্রমই মেয়াদোত্তীর্ণ।

বিদ্যমান আইনের নির্ধারিত সময়ের মধ্যে (১৮০ দিন) ২৮ দশমিক ৮৮ শতাংশ অনুসন্ধান এবং ১৩ দশমিক ৩৫ শতাংশ মামলার তদন্তকাজ শেষ হয়নি।

মেয়াদোত্তীর্ণ মোট অনুসন্ধান ও মামলার তদন্তের হার ২৪ দশমিক ৫০ শতাংশ। আরেক হিসাবে, চলতি বছরের ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত দুদকের মেয়াদোত্তীর্ণ অনুসন্ধান ১১১৯টি এবং মেয়াদোত্তীর্ণ তদন্ত ২০৩টি। দুদকের তদন্তের এমন

ধীরগতিতে সম্প্রতি এক রায়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট।

অনুসন্ধান ও তদন্তকাজে দুদকের এই ধীরগতির কারণ প্রসঙ্গে দুদকের সাবেক মহাপরিচালক মো. মঈদুল ইসলাম বলেছেন, মেয়াদোত্তীর্ণ অনুসন্ধান ও তদন্তের ক্ষেত্রে তদন্তকারী কর্মকর্তার চেয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও কমিশন বেশি দায়ী।

তিনি আরও বলেছেন, কমিশন তদন্তকারী কর্মকর্তা ও তদারককারী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করে না। তিনি মহাপরিচালক তথা কমিশনকে আরও দায়িত্বশীল হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। আমাদের কথা হলো, কোনো তদন্তকারী কর্মকর্তা যদি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তদন্তকাজ শেষ করতে না পারেন, তাহলে সেই ব্যর্থতার দায়ে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না কেন? বলাই বাহুল্য, ব্যর্থতার দায়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হলে অন্যান্য তদন্তকারী কর্মকর্তা দায়িত্ব পালনে

আরও সচেতন হতে পারতেন।

ওদিকে দুদক কমিশনার ড. মোজাম্মেল হক বলেছেন, মেয়াদোত্তীর্ণ অনুসন্ধান ও তদন্তের বিষয়ে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে। এ ধরনের অনুসন্ধান ও তদন্তের সংখ্যা কত, সমস্যা কোথায়, সমস্যা থাকলে তা কোন পর্যায়ে-এসব বিষয়ে একটি গবেষণা শুরু হয়েছে।

কিছু ভুলভ্রান্তি রয়েছে বলেও তিনি মন্তব্য করেছেন। অনুসন্ধান ও তদন্তকাজে কোনো কর্মকর্তার যদি বড় ধরনের গাফিলতি থাকে অথবা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে কেউ যদি বিলম্ব ঘটায়, তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আমরাও চাই, ব্যর্থতার কারণ বিশ্লেষণ করে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে যথোপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হোক। উল্লেখ্য, দুদক আইনের ২০(ক) ১ ও ২ উপধারা অনুযায়ী, সর্বোচ্চ ১৮০ দিনের মধ্যে তদন্তকাজ শেষ করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

দুদক দেশে

সংঘটিত দুর্নীতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার লক্ষ্যে গঠিত একটি বিধিবদ্ধ সংস্থা। এ সংস্থার কোনো কাজে দীর্ঘসূত্রতা প্রকারান্তরে দুর্নীতিকেই উৎসাহিত করে। ফলে দুদকের তদন্ত ও অনুসন্ধান কাজে গতি আনতে হবে। মূলত দুটি কারণে তদন্তকাজে দীর্ঘসূত্রতা হচ্ছে।

প্রথম কারণটি জনবল সংকট। দুদকে বর্তমানে অনুসন্ধান ও তদন্তকারী কর্মকর্তা রয়েছেন ২০০ জন। আর জনপ্রতি তাদের কাঁধে ৩০টি অনুসন্ধান ও তদন্তের দায়িত্ব রয়েছে। তদন্তকারী কর্মকর্তার সংখ্যার এই স্বল্পতা এক বড় সংকট বটে। এই সংকট দূর করতে হবে অতিরিক্ত জনবল নিয়োগ করে।

দ্বিতীয় কারণটি হলো অন্যান্য সংস্থা ও সংশ্লিষ্টদের অসহযোগিতা। দুদকের মামলা যেহেতু করতে হয় ডকুমেন্টভিত্তিক, সেজন্য মামলার স্বার্থে সংশ্লিষ্ট অন্যান্য সংস্থার উচিত হবে ডকুমেন্ট ও তথ্য দিয়ে দুদককে

সহযোগিতা করা। সবার সহযোগিতা ও আন্তরিকতায় দুদকের কার্যক্রমে গতি ফিরে আসবে-এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

তদন্তকাজে দীর্ঘসূত্রতা

দুদককে আরও গতিশীল হতে হবে

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ৩ ডিসেম্বর, ২০২১ | ৮:৫০ 77 ভিউ
প্রথমে একটা উদাহরণ দেওয়া যাক। ২০১৯ সালের ১ অক্টোবর সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের সাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আসিফ ইমতিয়াজের বিরুদ্ধে ঘুস-দুর্নীতির মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধান শুরু করেছিল দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এ অনুসন্ধানের কাজ এখন পর্যন্ত শেষ করতে পারেনি দুদক। শুধু এ ক্ষেত্রেই নয়, এই মুহূর্তে দুদকের এক-চতুর্থাংশ অনুসন্ধান ও তদন্ত কার্যক্রমই মেয়াদোত্তীর্ণ। বিদ্যমান আইনের নির্ধারিত সময়ের মধ্যে (১৮০ দিন) ২৮ দশমিক ৮৮ শতাংশ অনুসন্ধান এবং ১৩ দশমিক ৩৫ শতাংশ মামলার তদন্তকাজ শেষ হয়নি। মেয়াদোত্তীর্ণ মোট অনুসন্ধান ও মামলার তদন্তের হার ২৪ দশমিক ৫০ শতাংশ। আরেক হিসাবে, চলতি বছরের ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত দুদকের মেয়াদোত্তীর্ণ অনুসন্ধান ১১১৯টি এবং মেয়াদোত্তীর্ণ তদন্ত ২০৩টি। দুদকের তদন্তের এমন

ধীরগতিতে সম্প্রতি এক রায়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট। অনুসন্ধান ও তদন্তকাজে দুদকের এই ধীরগতির কারণ প্রসঙ্গে দুদকের সাবেক মহাপরিচালক মো. মঈদুল ইসলাম বলেছেন, মেয়াদোত্তীর্ণ অনুসন্ধান ও তদন্তের ক্ষেত্রে তদন্তকারী কর্মকর্তার চেয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও কমিশন বেশি দায়ী। তিনি আরও বলেছেন, কমিশন তদন্তকারী কর্মকর্তা ও তদারককারী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করে না। তিনি মহাপরিচালক তথা কমিশনকে আরও দায়িত্বশীল হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। আমাদের কথা হলো, কোনো তদন্তকারী কর্মকর্তা যদি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তদন্তকাজ শেষ করতে না পারেন, তাহলে সেই ব্যর্থতার দায়ে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না কেন? বলাই বাহুল্য, ব্যর্থতার দায়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হলে অন্যান্য তদন্তকারী কর্মকর্তা দায়িত্ব পালনে

আরও সচেতন হতে পারতেন। ওদিকে দুদক কমিশনার ড. মোজাম্মেল হক বলেছেন, মেয়াদোত্তীর্ণ অনুসন্ধান ও তদন্তের বিষয়ে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে। এ ধরনের অনুসন্ধান ও তদন্তের সংখ্যা কত, সমস্যা কোথায়, সমস্যা থাকলে তা কোন পর্যায়ে-এসব বিষয়ে একটি গবেষণা শুরু হয়েছে। কিছু ভুলভ্রান্তি রয়েছে বলেও তিনি মন্তব্য করেছেন। অনুসন্ধান ও তদন্তকাজে কোনো কর্মকর্তার যদি বড় ধরনের গাফিলতি থাকে অথবা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে কেউ যদি বিলম্ব ঘটায়, তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। আমরাও চাই, ব্যর্থতার কারণ বিশ্লেষণ করে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে যথোপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হোক। উল্লেখ্য, দুদক আইনের ২০(ক) ১ ও ২ উপধারা অনুযায়ী, সর্বোচ্চ ১৮০ দিনের মধ্যে তদন্তকাজ শেষ করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। দুদক দেশে

সংঘটিত দুর্নীতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার লক্ষ্যে গঠিত একটি বিধিবদ্ধ সংস্থা। এ সংস্থার কোনো কাজে দীর্ঘসূত্রতা প্রকারান্তরে দুর্নীতিকেই উৎসাহিত করে। ফলে দুদকের তদন্ত ও অনুসন্ধান কাজে গতি আনতে হবে। মূলত দুটি কারণে তদন্তকাজে দীর্ঘসূত্রতা হচ্ছে। প্রথম কারণটি জনবল সংকট। দুদকে বর্তমানে অনুসন্ধান ও তদন্তকারী কর্মকর্তা রয়েছেন ২০০ জন। আর জনপ্রতি তাদের কাঁধে ৩০টি অনুসন্ধান ও তদন্তের দায়িত্ব রয়েছে। তদন্তকারী কর্মকর্তার সংখ্যার এই স্বল্পতা এক বড় সংকট বটে। এই সংকট দূর করতে হবে অতিরিক্ত জনবল নিয়োগ করে। দ্বিতীয় কারণটি হলো অন্যান্য সংস্থা ও সংশ্লিষ্টদের অসহযোগিতা। দুদকের মামলা যেহেতু করতে হয় ডকুমেন্টভিত্তিক, সেজন্য মামলার স্বার্থে সংশ্লিষ্ট অন্যান্য সংস্থার উচিত হবে ডকুমেন্ট ও তথ্য দিয়ে দুদককে

সহযোগিতা করা। সবার সহযোগিতা ও আন্তরিকতায় দুদকের কার্যক্রমে গতি ফিরে আসবে-এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


































শীর্ষ সংবাদ:
নিয়োগে দুর্নীতি: জীবন বীমার এমডির বিরুদ্ধে দুদকের মামলা মিহির ঘোষসহ নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবীতে গাইবান্ধায় সিপিবির বিক্ষোভ গাইবান্ধায় সেনাবাহিনীর ভূয়া ক্যাপ্টেন গ্রেফতার জগন্নাথপুরে সড়ক নির্মানের অভিযোগ এক ঠিকাদারের বিরুদ্ধে তারাকান্দায় অসহায় ও দুস্থদের মাঝে ছাত্রদলের খাবার বিতরণ দেবহাটায় অস্ত্র-গুলি ও ইয়াবা উদ্ধার আটক -১ রামগড়ে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বাগমারায় ভেদুর মোড় হতে নরদাশ পর্যন্ত পাকা রাস্তার শুভ উদ্বোধন সরকারি বিধিনিষেধ না মানায় শার্শায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা আদায় মধুখালীতে তিন মাসে ৪৩ টি গরু চুরি গাইবান্ধায় বঙ্গবন্ধু জেলা ভলিবল প্রতিযোগিতার উদ্বোধন গাইবান্ধায় শীতবস্ত্র বিতরণ রাজশাহীতে পুত্রের হাতে পিতা খুন বাগমারায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার রামগড়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার শীতবস্ত্র বিতরণ করেন ইউএনও ভাঃ উম্মে হাবিবা মজুমদার জগন্নাথপুরে জুয়ার আসরে পুলিশ দেখে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে নিখোঁজ এক ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় সিপিবি নেতা মিহির ঘোষসহ ৬ জন কারাগারে পিআইও’র মানহানির মামলায় গাইবান্ধার ৪ সাংবাদিকসহ ৫ জনের জামিন গাইবান্ধায় প্রগতিশীল ছাত্র জোটের মানববন্ধন চাঁপাইনবাবগঞ্জে সোনালী ব্যাংক লি. গোমস্তাপুর শাখায় শীতবস্ত্র বিতরণ