জাল টাকা রোধ বিলের খসড়া চূড়ান্ত লেনদেন করলে সাজা হবে আর্থিক প্রতিষ্ঠানেরও – বর্ণমালা টেলিভিশন

জাল টাকা রোধ বিলের খসড়া চূড়ান্ত লেনদেন করলে সাজা হবে আর্থিক প্রতিষ্ঠানেরও

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২২ | ৪:০২ 81 ভিউ
জাল টাকা লেনদেন ও সরবরাহের দায়ে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানেরও সাজা হবে। এ ধরনের অপরাধ প্রমাণে নেওয়া হবে প্রশাসনিক ব্যবস্থা, দেওয়া হবে আর্থিক দণ্ড। ব্যবস্থা গ্রহণ করবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কারেন্সি বিভাগ। আর ব্যক্তিপর্যায়ে প্রস্তুত, দেশ ও বিদেশে সরবরাহ, বহন ও পাচারের দায়ে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে। পাশাপাশি জাল টাকা প্রস্তুত সংক্রান্ত ফোনালাপ ও টেলিফোন রের্কড ফাঁস হলে আদালতে তা সাক্ষ্যপ্রমাণ হিসাবে গ্রহণযোগ্য হবে। এসব বিধান রেখে একটি ‘খসড়া বিল’ চূড়ান্ত করা হয়েছে। যা পাশের জন্য শিগগিরই যাচ্ছে জাতীয় সংসদে। সেখানে এটি পাশের পর চূড়ান্ত আইন হিসাবে কার্যকর হবে। এর আগে আইনটি প্রণয়নের ক্ষেত্রে মন্ত্রিসভায় অনুমোদনসহ সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে পাওয়া গেছে এসব তথ্য। খসড়াতে বলা হয়-কোনো ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা মুদ্রা লেনদেন ও সরবরাহ কাজে নিয়োজিত প্রতিষ্ঠান জাল মুদ্রা সরবরাহ করলে বাংলাদেশ ব্যাংকের কারেন্সি বিভাগ অভিযোগ দায়ের করবে। অপরাধ প্রমাণিত হলে অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ ও জরিমানা আরোপ করা হবে। তবে জরিমানা বা প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়ার ১৪ কার্য দিবসের মাথায় অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠান পুনর্বিবেচনার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের কাছে আবেদন করতে পারবে। এক্ষেত্রে পর্ষদের সিদ্ধান্তই চুড়ান্ত বলে গণ্য হবে। খসড়া বিলে উল্লেখ করা হয়, জাল টাকা প্রতিরোধে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গর্ভনরকে প্রধান করে জাল মুদ্রা প্রতিরোধসংক্রান্ত জাতীয় কমিটি গঠন করা হবে। ওই কমিটি একটি সেল গঠন করবে। সেই সেলের প্রধান হবে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা। পাশাপাশি ডিপার্টমেন্ট অব কারেন্সি ম্যানেজমেন্টের অধীনে একটি তথ্য ভাণ্ডারও গড়ে তোলা হবে। এটি ব্যবহার হবে জাল টাকা প্রতিরোধসংক্রান্ত কাজে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তথ্য ভাণ্ডার ব্যবহার করতে পারবে। সেখানে জাল মুদ্রা বাহক, প্রস্তুতকারী, ব্যবহারকারী ও উপকরণের তথ্য থাকবে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এ সংক্রান্ত কোনো তথ্য জানতে পারলে তথ্য ভাণ্ডারে জানাতে পারবে। তবে এ সংক্রান্ত যে কোনো তথ্য প্রয়োজনে জাতীয় কমিটি এবং সেলকে সরবারহ করবে বাংলাদেশ ব্যাংক। সূত্র আরও জানায়, আইন প্রণয়নের পর জাল মুদ্রা প্রস্তুতে ব্যবহারিত কাগজ, রাসায়নিক দ্রব্য, কালি, যন্ত্রপাতিসহ যে কোনো উপকরণ, উৎপাদন, ক্রয়-বিক্রয়, সরবরাহ, আমদানি ও রপ্তানি নিষিদ্ধ করে গ্যাজেট জারি করবে সরকার। অপরাধের ধরনের বলা হয়, কোন ব্যক্তি জেনে মুদ্রা জালকরণের যে কোনো অংশ সম্পাদন, ক্রয়-বিক্রয়, ব্যবহার ও আসল মুদ্রা বলে লেনদেন করলে আইনের আওতায় পড়বে। এছাড়া জাল মুদ্রা প্রস্তুতের কোনো যন্ত্রপাতি ক্রয়-বিক্রয়, উৎপাদন সামগ্রী প্রস্তুত, আমদানি-রপ্তানি, নিজের দখলে রাখা হলে তা অপরাধ হবে। পাশাপাশি জাল নোট বিদেশে এবং বিদেশ থেকে দেশে পাচার, সরবরাহ ও পরিবহণ, তৈরিসংক্রান্ত ফাইল, অডিও, ভিডিও ক্লিপ সংরক্ষণের দায়ে অপরাধী হবেন। এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট অপরাধীর যাবজ্জীবন সশ্রম বা বিনাশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত বা এক কোটি টাকার অর্থ দণ্ডে দণ্ডিত হবে। অনাদায়ে অতিরিক্ত ৫ বছর কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে। এছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকের বাতিলকৃত বিকৃত মুদ্রা বাজারজাতকরণ বা লেনদেন করলে ১২ বছরের সশ্রম বা বিনাশ্রম কারাদণ্ড এবং ২৫ লাখ টাকা পর্যন্ত অর্থদণ্ড ভোগ করতে হবে। অর্থ অনাদায়ে আরও ৫ বছরের কারাদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে। জেনেশুনে জাল ও আসল মুদ্রাসংক্রান্ত কোনো গুজব ছড়ানো হলে ১০ বছরের সশ্রম বা বিনাশ্রম এবং ১০ লাখ টাকা অর্থ দণ্ডে দণ্ডিত, অনাদায়ে আরও ৫ বছরের কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে। এছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন ছাড়া পুরোনো কোনো প্রকার মুদ্রার মুনাফা অর্জন, প্রতারণা বা অন্য যে কোনো অসৎ উদ্দেশ্যে দেশি বা বিদেশি মুদ্রা কেনাবেচা করা যাবে না। করলে অনধিক ৫ বছরের সশ্রম বা বিনাশ্রম এবং ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত অর্থ দণ্ড, অনাদায়ে আরও ৩ বছরের কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯৮ থেকে হালনাগাদ জালনোট সংক্রান্ত প্রায় সাড়ে ৫ হাজার মামলা হয়েছে। এর মধ্যে অধিকাংশ মামলাই ২০১৫ সালের আগে দায়েরকৃত। ২০১৫ সালের পর গত ৬ বছরে মামলা হয়েছে প্রায় সাড়ে ৩০০। জালনোটের সঙ্গে জড়িত থাকার দায়ে একটি ব্যাংকের চার কর্মকর্তাসহ দশজনের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তবে এর আগে জাল নোটবিরোধী অভিযানে পাঁচ বছরে গ্রেফতার হয়েছে চক্রের ছয় হাজারের বেশি সদস্য। যাদের অধিকাংশই জামিনে মুক্ত।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:



































শীর্ষ সংবাদ:
বেনাপোল সীমান্তে সচল পিস্তলসহ চিহ্নিত সন্ত্রাসী গ্রেফতার নির্মাণসামগ্রীর দাম চড়া, উন্নয়ন প্রকল্পে ধীরগতি কলম্বোতে কারফিউ জারি টিকে থাকার লড়াইয়ে ছক্কা হাকাতে পারবেন ইমরান খান? করোনায় আজও মৃত্যুশূন্য দেশ, শনাক্ত কমেছে ‘ততক্ষণ খেলব যতক্ষণ না আমার চেয়ে ভালো কাউকে দেখব’ এবার ইয়েমেনে পাল্টা হামলা চালাল সৌদি জোট স্বাধীনতা দিবসের র‌্যালিতে যুবলীগ নেতার মৃত্যু সাড়ে ১১ হাজার কোটি টাকার অস্ত্র রপ্তানি করেছে মোদি সরকার বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে ফুল দেওয়া নিয়ে আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষ, এলাকা রণক্ষেত্র ইউক্রেনকে বিপুল ক্ষেপণাস্ত্র ও মেশিনগান দিয়েছে জার্মানি পুলিশ পরিচয়ে তুলে নিয়ে নারীকে ধর্ষণ, অস্ত্রসহ গ্রেফতার ৩ ইউরো-বাংলা প্রেসক্লাবের ‘লাল-সবুজের পতাকা বিশ্বজুড়ে আনবে একতা‘-শীর্ষক সভা বঙ্গবন্ধু পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় নওগাঁর নওহাঁটায় স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধন । ভূরুঙ্গামারীতে ব্যাপরোয়া অটোরিকশা কেরে নিল শিশুর ফাহিম এর প্রাণ ভূরুঙ্গামারী কিশোর গ‍্যাংয়ের ছুরিকাঘাতে দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী আহত যশোরিয়ান ব্লাড ফাউন্ডেশন এর ৬ তম রক্তের গ্রুপ নির্ণয় ক্যাম্পেইন বেনাপোলে পৃথক অভিযানে ৫২ বোতল ফেনসিডিল সহ আটক-২ বেনাপোল স্থলপথে স্টুডেন্ট ভিসায় বাংলাদেশিদের ভারত ভ্রমন নিষেধ গেরিলা যোদ্ধা অপূর্ব