জগন্নাথপুরে আগের মত শীতের পিঠা বিক্রি হচ্ছেনা – বর্ণমালা টেলিভিশন

জগন্নাথপুরে আগের মত শীতের পিঠা বিক্রি হচ্ছেনা

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ২৯ জানুয়ারি, ২০২২ | ৯:৩১ 48 ভিউ
দুপুর গড়িয়ে বিকাল হতেই সারা দেশের ন্যায় সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে বাড়তে থাকে শীতের প্রকোপ। সন্ধ্যা নামার সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয় কনকনে শীত। এমন পরিবেশে শীতের পিঠা খেতে কার না ভালো লাগে। তাই শীতের বিকাল কিংবা সন্ধ্যার হিমেল হাওয়ায় খোলা আকাশের নিচে দাঁড়িয়ে পিঠা খেতে অনেকেই আগে ভিড় জমাতেন ভ্রাম্যমাণ পিঠার দোকানগুলোতে। উপজেলার বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, কত কয়েক বছর ধরে পৌর সদরের প্রাণ কেন্দ্র পৌর পয়েন্ট সহ উপজেলার বিভিন্ন বাজারে শীতের পিঠার চাহিদাকে কেন্দ্র করে অলিগলিতে গড়ে উঠতো অসংখ্য পিঠাপুলির দোকান। শীত আসার সঙ্গে সঙ্গে অনেকে মৌসুমি পেশা হিসাবে সড়কের পাশে অস্থায়ীভাবে পিঠা বিক্রি করতেন। এখন আর সে সু দিন নাই। গরম গরম ভাপা পিঠা নামছে মাটির চুলা থেকে। এখন আগের মত ক্রেতারা সারিবদ্ধ হয়ে পিঠা কিনছেন না। বা পিঠা বাড়ীতেও নিয়ে যাচ্ছেন না। অল্প সংখ্যক ক্রেতা দাঁড়িয়ে পিঠা খাচ্ছেন। কোনো চুলায় ভাপাপিঠা, কোনোটিতে চিতই, কোনোটিতে ডিম বা অন্য কোনো পিঠা। শীত যতই বাড়ছে এসব পিঠাপুলির দোকানগুলোতে ভিড় বাড়বে এ আশা নিয়ে পুরো শীত কাটিয়ে দিয়েছেন পিঠা বিক্রতেরা। অনেক বিক্রেতার সাথে আলাপ করে জানা যায়, যদিও ক্রেতাদের ভির কময় তারপরও ভাপা আর চিতই পিঠার কদর বেশি। প্রতিটি বিক্রি হয় পাঁচ থেকে ১০ টাকা করে। এছাড়া অভিজাত এলাকায় গড়ে ওঠা পিঠার দোকানে পাওয়া যাচ্ছে পুলি, ভাপা, তেলের পিঠা, পাটিসাপটা সহ হরেক রকম আইটেম। তারা জানান, গত কয়েক বছর ধরে পিঠা বিক্রয় ভাল হত। বিশেষ করে করোনা ভাইরাসের জন্য আগেমত এখন আর লোকজন বাজারে আসেন না। সেখানে গরম চিতই পিঠার জন্য অপেক্ষমান সিরাজুল ইসলাম নামে একজন ক্রেতা জানান, শীতে চুলার পাশে বসে পিঠা খাওয়ার মজাই আলাদা, শীত মৌসুম আসলে একটু পিঠা খাওয়ার সুযোগ হয়। প্রত্যেক বছর পিঠা খেতে হলে লাইন ধরে দাঁড়িয়ে থেকে পিঠা খাওয়া লাগতো। এখন পিঠা বিক্রেতা আগের মত ক্রেতা পাচ্ছেনা। পিঠা বিক্রেতা আবেদ আলী জানান, প্রায় ৫ বছর ধরে পিঠা বিক্রয় করে আসছি। এবারের বছরের মত গ্রাহক শুন্য দোকান আর কোন বছর ছিলনা। পরিবারের স্ত্রী, সন্তান নিয়ে বহু কষ্ট করে সংসার চালাতো হচ্ছে আগের মত পিঠা বিক্রয় হলে সংসার চালাতে কষ্ট হত না। করোনা জন্য লোকজন আর বাজারে আসছে না। আমাদের কষ্টের দিন যাচ্ছে।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:



































শীর্ষ সংবাদ:
বেনাপোল সীমান্তে সচল পিস্তলসহ চিহ্নিত সন্ত্রাসী গ্রেফতার নির্মাণসামগ্রীর দাম চড়া, উন্নয়ন প্রকল্পে ধীরগতি কলম্বোতে কারফিউ জারি টিকে থাকার লড়াইয়ে ছক্কা হাকাতে পারবেন ইমরান খান? করোনায় আজও মৃত্যুশূন্য দেশ, শনাক্ত কমেছে ‘ততক্ষণ খেলব যতক্ষণ না আমার চেয়ে ভালো কাউকে দেখব’ এবার ইয়েমেনে পাল্টা হামলা চালাল সৌদি জোট স্বাধীনতা দিবসের র‌্যালিতে যুবলীগ নেতার মৃত্যু সাড়ে ১১ হাজার কোটি টাকার অস্ত্র রপ্তানি করেছে মোদি সরকার বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে ফুল দেওয়া নিয়ে আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষ, এলাকা রণক্ষেত্র ইউক্রেনকে বিপুল ক্ষেপণাস্ত্র ও মেশিনগান দিয়েছে জার্মানি পুলিশ পরিচয়ে তুলে নিয়ে নারীকে ধর্ষণ, অস্ত্রসহ গ্রেফতার ৩ ইউরো-বাংলা প্রেসক্লাবের ‘লাল-সবুজের পতাকা বিশ্বজুড়ে আনবে একতা‘-শীর্ষক সভা বঙ্গবন্ধু পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় নওগাঁর নওহাঁটায় স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধন । ভূরুঙ্গামারীতে ব্যাপরোয়া অটোরিকশা কেরে নিল শিশুর ফাহিম এর প্রাণ ভূরুঙ্গামারী কিশোর গ‍্যাংয়ের ছুরিকাঘাতে দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী আহত যশোরিয়ান ব্লাড ফাউন্ডেশন এর ৬ তম রক্তের গ্রুপ নির্ণয় ক্যাম্পেইন বেনাপোলে পৃথক অভিযানে ৫২ বোতল ফেনসিডিল সহ আটক-২ বেনাপোল স্থলপথে স্টুডেন্ট ভিসায় বাংলাদেশিদের ভারত ভ্রমন নিষেধ গেরিলা যোদ্ধা অপূর্ব