ঢাকা, Sunday 19 September 2021

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

গাংনীতে ব্রিজ ফাটল ধরায় ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন

প্রকাশিত : 01:07 AM, 31 August 2020 Monday
108 বার পঠিত

| ডোনেট বিডি নিউজ ডেস্কঃ |

দীর্ঘদিন ব্রিজ সংস্কার না করায় মেহেরপুর-কুষ্টিয়া মহাসড়কের গাংনী মালশাহদুয়া নামক স্থানে সড়কের মাঝখানে থাকা ব্রিজটি ফাটল ধরায় ঝুঁকির মধ্যে দিয়ে প্রতিনি দিন হাজার হাজার ভারী যানবাহন চলাচল করছে।ব্রিজ সংস্কার না হলে ঘটতে পারে বড় দুর্ঘটনা।
এছাড়াও উপজেলার চোখতোলা নামক স্থানের সড়কটি বেহাল অবস্থায় রয়েছে।জোরপুকুরও চোখতোলা সড়কটি খানাখন্দে ভরা প্রায় ২০০মিটার রাস্তা।এ সড়ক দিয়ে যাতায়াতে চরম ভোগান্তিপোহাতে হয় যাত্রী ও চালকদের।
সড়কের মাঝখানে থাকা বড় বড় গর্তে পড়ে উল্টে যাচ্ছে অটোরিকশাসহ ছোট-বড় অসংখ্য যানবাহন।কিন্তু বিকল্প সড়ক না থাকায় ঝুঁকি নিয়েই প্রতিদিন যাতায়াত করছে হাজারো মানুষ।
তবে মেহেরপৃুর সড়ক বিভাগ বলছে, সড়কটি সংস্কারের জন্য উন্নয়ন প্রকল্প

প্রস্তাব (ডিপিপি) মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। অনুমোদন পাওয়া গেলে কাজ শুরু হবে।
স্থানীয়রা বলছে,মেহেরপুর-মুজিবনগর থেকে শুরু হয়ে সড়কটি কুষ্টিয়ার মধ্যে দিয়ে ঢাকায় গিয়ে শেষ হয়েছে।বেহাল অবস্থার কারণে উল্টে যায় শত শত রিকশা ভ্যানসহ বড় যানবাহন।
যানবাহন চালকরা জানান, খারাপ রাস্তার কারণে দ্রুত নষ্ট হয়ে যাচ্ছে যানবাহন। গাংনী মালশাহদুয়া ব্রিজটি ফাটল ধরায় ঝুঁকিপূর্ণর মধ্যে দিয়ে প্রতিদিন চালাতে হয়। এছাড়াও জোরপুকুর মোড় থেকে চোখতোলা রাস্তা ঝুঁকিপূর্ণ থাকায় দুর্ঘটনা ঘটছে হরহামেশা। সড়কটি সংস্কার না হলে বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছেন উপজেলা বাসী। গাংনী উপজেলার বেতবাড়ীয়া গ্রামের হাজেরা খাতুন বলেন,আমি আত্মীয়র বাড়ি

থেকে অটোরিকশায় বাড়ি ফিরছিলাম।সামনের দিক থেকে আসা একটি ট্রাককে জায়গা দিতে গেলে সড়কের ভাঙা অংশে চাকা পড়ে আমাদের অটোরিকশা উল্টে যায়। আমিসহ অটোর ছয় যাত্রী আহত হন।
সাংবাদিক মিনারুল ইসলাম বলেন,চোখতোলা স্থানে ভাঙা রাস্তার ওপর মোটরসাইলসহ যে কোন গাড়ী ছাইড দিতে গেলে দুর্ঘটনা ঘটছে।দ্রুত রাস্তাটি সংস্কার ও ব্রিজটি নতুন নির্মাণ না করা হলে প্রতিদিন দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছেন তিনি।
এ সড়ক দিয়ে নিয়মিত চলাচল করেন স্কুলের শিক্ষক হাসান তিনি। সম্প্রতি ভাঙা সড়কের চোখতোলা নামক স্থানে গাড়ী উল্টে আহত হন।
আলগামন চালক আরিফ বলেন, আমরা গরিব মানুষ, দিন আনি দিন খাই।রাস্তার কারণে

গাড়ির পেছনে যত টাকা খরচ হয়, তাতে আমাদের পরিবার নিয়ে দুবেলা দুমুঠো খাওয়াই কঠিন হয়ে পড়েছে।
কাষ্টদহ গ্রামের অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থী হাবিব বলেন, বাড়ি থেকে আমার বিদ্যালয়ের দূরত্ব মাত্র ৩কিলোমিটার।আমি হেঁটে এসে চোখতোলা মোড় থেকে ভ্যান যোগে জোরপুকুর স্কুলে যেতে হয়।এর ২০০ মিটার রাস্তা ভেঙ্গে যাওয়ায় কারণে।স্কুলে সঠিক সময়ে পৌছাতে পারিনা।এছাড়াও ভাঙ্গ যায়গায় গাড়ী ছাইড দিতে গেলে দুর্ঘটনার আশঙ্কা থাকে তিনি সড়কটি সংস্কার করার দাবি করেন।
গাংনী সরকারী ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মনিরুল ইসলাম বলেন,গাংনী উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে ছাত্র ছাত্রীরা কলেজে বড় ছোট যানবাহন করে আসতে হয়

তাদের।সেখানে মালশাহদুয়া নামক স্থানের সড়কে মাঝখানে থাকা ব্রিজটি ফাটল ধরায় ঝঁকির মধ্যে গাড়ী চলাচল করে। এছাড়াও সড়কের চোখতোলা স্থানে রাস্তা ভাঙ্গাচোরা কারণে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা খুবই ঝুঁকির মধ্যে আছে।আমরাও ভয়ে থাকি কখন কি দুর্ঘটনা ঘটে।তিনি ব্রিজ ও সড়ক সংস্কারের দাবী করেন।
এব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী গোলাপ আলী শেখ জানান, কুষ্টিয়া-মেহেরপুর সড়কের চোখতোলা থেকে জোরপুকুর মোড় পর্যন্ত মাত্র ২০০মিটার রাস্তা ভেঙ্গে পড়েছে। রাস্তাটির দুপাশে র্গত থাকার কারণে বার বার সংস্কার কারার পরেও থাকছেনা।উন্নীত সংস্কারের জন্য ডিপিপি মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।অনুমোদেন হলে দ্রুত কাজ শুরু হবে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি ডোনেট বাংলাদেশ'কে জানাতে ই-মেইল করুন- donetbd2010@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

ডোনেট বাংলাদেশ'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© 2021 সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। ডোনেট বাংলাদেশ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT