গর্ভপাত করালে শাস্তি কী? - বর্ণমালা টেলিভিশন

বিয়ের ছয় মাস পরেই আমি গর্ভবতী হয়ে পড়ি। কিন্তু আমার স্বামী দুই বছরের আগে সন্তান চান না। হঠাৎ করেই যখন আমি জানতে পারি, আমি এক মাসের অন্তঃসত্ত্বা, তখন স্বামী আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর করে একটি ক্লিনিকে নিয়ে গর্ভপাত করান। আমি কীভাবে আইনগত সহায়তা পেতে পারি? নাবিলা( ছদ্দনাম), দিনাজপুর।

আইনজীবীর উত্তর : আপনার ইচ্ছার বিরুদ্ধে যেহেতু আপনার স্বামী গর্ভপাত করানোর চেষ্টা করছেন, তাই আপনার স্বামী দণ্ডবিধির ৩১৩ ধারা অনুসারে অপরাধ করেছেন। দণ্ডবিধির ৩১৩ ধারায় বলা আছে, নারীর সম্মতি ছাড়া গর্ভপাত করানো একটি গুরুতর অপরাধ। এর জন্য যাবজ্জীবন বা ১০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডের বিধান আছে।

আইনের আশ্রয় কীভাবে নেবেন

অবৈধ গর্ভপাত বা অস্বাভাবিক অপরাধের শিকার

হলে আদালতে বা থানায় দুভাবে মামলা করা যায়।

আদালতে মামলা দায়ের

আদালতে মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে প্রথমে একজন আইনজীবীর কাছে যেতে হবে। আইনজীবীকে সব কাগজপত্র দেখানোর পর তাঁর সঙ্গে মামলার খরচের বিষয়ে আলাপ করে নিতে হবে। খরচ আপনার মনমতো হলে সেই আইনজীবীর মাধ্যমে মামলা দায়ের করতে হবে।

আইনজীবী বাদীর সব কাগজপত্র পর্যালোচনা করে একটি নালিশি দরখাস্ত তৈরি করবেন। তারপর নিকটস্থ মুখ্য বিচারিক হাকিম বা মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে সিআর বা পিটিশন আকারে মামলা দায়ের করবেন।

আদালতের হাকিম বাদীর ফৌজদারি কার্যবিধির ২০০ ধারা অনুযায়ী জবানবন্দি নিয়ে আসামির কাছে সরাসরি সমন বা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করবেন। এ ছাড়া কোনো কোনো ক্ষেত্রে বিচারক মামলাটি তদন্তের জন্য পুলিশকে নির্দেশ

দিতে পারেন। তদন্ত প্রতিবেদনে সত্যতা পাওয়া গেলে তখন আবার আদালত সরাসরি সমন বা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করবেন।

থানায় মামলা দায়ের

অবৈধ গর্ভপাতের ঘটনায় আপনি চাইলে নিকটস্থ থানায় এজাহার হিসেবেও মামলা করতে পারবেন। থানায় মামলাটি গ্রহণ করলে একজন তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করে দেবেন থানার ডিউটি অফিসার। সে তদন্ত কর্মকর্তা আসামিকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করতে পারবেন।

এ ছাড়া আপনি পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইনের মাধ্যমেও প্রতিকার চাইতে পারেন। এ আইনে সুরক্ষা এবং ক্ষতিপূরণ উভয়ের জন্যই নিকটস্থ হাকিম (ম্যাজিস্ট্রেট) আদালতে আবেদন করতে হবে। সেখানে শুনানির ওপর ভিত্তি করে আদালত পারিবারিক সুরক্ষা এবং ক্ষতিপূরণের আদেশ দিতে পারেন। বিবাদী যদি আদালতের সুরক্ষা আদেশ

লঙ্ঘন করেন, তাহলে আপনি আদালতে এ আইনের ৩০ ধারায় পৃথক আবেদন করতে পারেন। আদালত সাক্ষ্য-প্রমাণ শেষে সুরক্ষা আদেশ লঙ্ঘনকারীদের ছয় মাসের কারাদণ্ড বা ১০ হাজার টাকা জরিমানা অথবা উভয় দণ্ড দিতে পারেন

বিয়ের ছয় মাস পরেই আমি গর্ভবতী হয়ে পড়ি। কিন্তু আমার স্বামী দুই বছরের আগে সন্তান চান না। হঠাৎ করেই যখন আমি জানতে পারি, আমি এক মাসের অন্তঃসত্ত্বা, তখন স্বামী আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর করে একটি ক্লিনিকে নিয়ে গর্ভপাত করান। আমি কীভাবে আইনগত সহায়তা পেতে পারি? নাবিলা( ছদ্দনাম), দিনাজপুর।

আইনজীবীর উত্তর : আপনার ইচ্ছার বিরুদ্ধে যেহেতু আপনার স্বামী গর্ভপাত করানোর চেষ্টা করছেন, তাই আপনার স্বামী দণ্ডবিধির ৩১৩ ধারা অনুসারে অপরাধ করেছেন। দণ্ডবিধির ৩১৩ ধারায় বলা আছে, নারীর সম্মতি ছাড়া গর্ভপাত করানো একটি গুরুতর অপরাধ। এর জন্য যাবজ্জীবন বা ১০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডের বিধান আছে।

আইনের আশ্রয় কীভাবে নেবেন

অবৈধ গর্ভপাত বা অস্বাভাবিক অপরাধের শিকার

হলে আদালতে বা থানায় দুভাবে মামলা করা যায়।

আদালতে মামলা দায়ের

আদালতে মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে প্রথমে একজন আইনজীবীর কাছে যেতে হবে। আইনজীবীকে সব কাগজপত্র দেখানোর পর তাঁর সঙ্গে মামলার খরচের বিষয়ে আলাপ করে নিতে হবে। খরচ আপনার মনমতো হলে সেই আইনজীবীর মাধ্যমে মামলা দায়ের করতে হবে।

আইনজীবী বাদীর সব কাগজপত্র পর্যালোচনা করে একটি নালিশি দরখাস্ত তৈরি করবেন। তারপর নিকটস্থ মুখ্য বিচারিক হাকিম বা মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে সিআর বা পিটিশন আকারে মামলা দায়ের করবেন।

আদালতের হাকিম বাদীর ফৌজদারি কার্যবিধির ২০০ ধারা অনুযায়ী জবানবন্দি নিয়ে আসামির কাছে সরাসরি সমন বা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করবেন। এ ছাড়া কোনো কোনো ক্ষেত্রে বিচারক মামলাটি তদন্তের জন্য পুলিশকে নির্দেশ

দিতে পারেন। তদন্ত প্রতিবেদনে সত্যতা পাওয়া গেলে তখন আবার আদালত সরাসরি সমন বা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করবেন।

থানায় মামলা দায়ের

অবৈধ গর্ভপাতের ঘটনায় আপনি চাইলে নিকটস্থ থানায় এজাহার হিসেবেও মামলা করতে পারবেন। থানায় মামলাটি গ্রহণ করলে একজন তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করে দেবেন থানার ডিউটি অফিসার। সে তদন্ত কর্মকর্তা আসামিকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করতে পারবেন।

এ ছাড়া আপনি পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইনের মাধ্যমেও প্রতিকার চাইতে পারেন। এ আইনে সুরক্ষা এবং ক্ষতিপূরণ উভয়ের জন্যই নিকটস্থ হাকিম (ম্যাজিস্ট্রেট) আদালতে আবেদন করতে হবে। সেখানে শুনানির ওপর ভিত্তি করে আদালত পারিবারিক সুরক্ষা এবং ক্ষতিপূরণের আদেশ দিতে পারেন। বিবাদী যদি আদালতের সুরক্ষা আদেশ

লঙ্ঘন করেন, তাহলে আপনি আদালতে এ আইনের ৩০ ধারায় পৃথক আবেদন করতে পারেন। আদালত সাক্ষ্য-প্রমাণ শেষে সুরক্ষা আদেশ লঙ্ঘনকারীদের ছয় মাসের কারাদণ্ড বা ১০ হাজার টাকা জরিমানা অথবা উভয় দণ্ড দিতে পারেন

গর্ভপাত করালে শাস্তি কী?

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ২০ নভেম্বর, ২০২১ | ১১:৫১ 119 ভিউ
বিয়ের ছয় মাস পরেই আমি গর্ভবতী হয়ে পড়ি। কিন্তু আমার স্বামী দুই বছরের আগে সন্তান চান না। হঠাৎ করেই যখন আমি জানতে পারি, আমি এক মাসের অন্তঃসত্ত্বা, তখন স্বামী আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর করে একটি ক্লিনিকে নিয়ে গর্ভপাত করান। আমি কীভাবে আইনগত সহায়তা পেতে পারি? নাবিলা( ছদ্দনাম), দিনাজপুর। আইনজীবীর উত্তর : আপনার ইচ্ছার বিরুদ্ধে যেহেতু আপনার স্বামী গর্ভপাত করানোর চেষ্টা করছেন, তাই আপনার স্বামী দণ্ডবিধির ৩১৩ ধারা অনুসারে অপরাধ করেছেন। দণ্ডবিধির ৩১৩ ধারায় বলা আছে, নারীর সম্মতি ছাড়া গর্ভপাত করানো একটি গুরুতর অপরাধ। এর জন্য যাবজ্জীবন বা ১০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডের বিধান আছে। আইনের আশ্রয় কীভাবে নেবেন অবৈধ গর্ভপাত বা অস্বাভাবিক অপরাধের শিকার

হলে আদালতে বা থানায় দুভাবে মামলা করা যায়। আদালতে মামলা দায়ের আদালতে মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে প্রথমে একজন আইনজীবীর কাছে যেতে হবে। আইনজীবীকে সব কাগজপত্র দেখানোর পর তাঁর সঙ্গে মামলার খরচের বিষয়ে আলাপ করে নিতে হবে। খরচ আপনার মনমতো হলে সেই আইনজীবীর মাধ্যমে মামলা দায়ের করতে হবে। আইনজীবী বাদীর সব কাগজপত্র পর্যালোচনা করে একটি নালিশি দরখাস্ত তৈরি করবেন। তারপর নিকটস্থ মুখ্য বিচারিক হাকিম বা মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে সিআর বা পিটিশন আকারে মামলা দায়ের করবেন। আদালতের হাকিম বাদীর ফৌজদারি কার্যবিধির ২০০ ধারা অনুযায়ী জবানবন্দি নিয়ে আসামির কাছে সরাসরি সমন বা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করবেন। এ ছাড়া কোনো কোনো ক্ষেত্রে বিচারক মামলাটি তদন্তের জন্য পুলিশকে নির্দেশ

দিতে পারেন। তদন্ত প্রতিবেদনে সত্যতা পাওয়া গেলে তখন আবার আদালত সরাসরি সমন বা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করবেন। থানায় মামলা দায়ের অবৈধ গর্ভপাতের ঘটনায় আপনি চাইলে নিকটস্থ থানায় এজাহার হিসেবেও মামলা করতে পারবেন। থানায় মামলাটি গ্রহণ করলে একজন তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করে দেবেন থানার ডিউটি অফিসার। সে তদন্ত কর্মকর্তা আসামিকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করতে পারবেন। এ ছাড়া আপনি পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইনের মাধ্যমেও প্রতিকার চাইতে পারেন। এ আইনে সুরক্ষা এবং ক্ষতিপূরণ উভয়ের জন্যই নিকটস্থ হাকিম (ম্যাজিস্ট্রেট) আদালতে আবেদন করতে হবে। সেখানে শুনানির ওপর ভিত্তি করে আদালত পারিবারিক সুরক্ষা এবং ক্ষতিপূরণের আদেশ দিতে পারেন। বিবাদী যদি আদালতের সুরক্ষা আদেশ

লঙ্ঘন করেন, তাহলে আপনি আদালতে এ আইনের ৩০ ধারায় পৃথক আবেদন করতে পারেন। আদালত সাক্ষ্য-প্রমাণ শেষে সুরক্ষা আদেশ লঙ্ঘনকারীদের ছয় মাসের কারাদণ্ড বা ১০ হাজার টাকা জরিমানা অথবা উভয় দণ্ড দিতে পারেন

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


































শীর্ষ সংবাদ:
নিয়োগে দুর্নীতি: জীবন বীমার এমডির বিরুদ্ধে দুদকের মামলা মিহির ঘোষসহ নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবীতে গাইবান্ধায় সিপিবির বিক্ষোভ গাইবান্ধায় সেনাবাহিনীর ভূয়া ক্যাপ্টেন গ্রেফতার জগন্নাথপুরে সড়ক নির্মানের অভিযোগ এক ঠিকাদারের বিরুদ্ধে তারাকান্দায় অসহায় ও দুস্থদের মাঝে ছাত্রদলের খাবার বিতরণ দেবহাটায় অস্ত্র-গুলি ও ইয়াবা উদ্ধার আটক -১ রামগড়ে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বাগমারায় ভেদুর মোড় হতে নরদাশ পর্যন্ত পাকা রাস্তার শুভ উদ্বোধন সরকারি বিধিনিষেধ না মানায় শার্শায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা আদায় মধুখালীতে তিন মাসে ৪৩ টি গরু চুরি গাইবান্ধায় বঙ্গবন্ধু জেলা ভলিবল প্রতিযোগিতার উদ্বোধন গাইবান্ধায় শীতবস্ত্র বিতরণ রাজশাহীতে পুত্রের হাতে পিতা খুন বাগমারায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার রামগড়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার শীতবস্ত্র বিতরণ করেন ইউএনও ভাঃ উম্মে হাবিবা মজুমদার জগন্নাথপুরে জুয়ার আসরে পুলিশ দেখে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে নিখোঁজ এক ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় সিপিবি নেতা মিহির ঘোষসহ ৬ জন কারাগারে পিআইও’র মানহানির মামলায় গাইবান্ধার ৪ সাংবাদিকসহ ৫ জনের জামিন গাইবান্ধায় প্রগতিশীল ছাত্র জোটের মানববন্ধন চাঁপাইনবাবগঞ্জে সোনালী ব্যাংক লি. গোমস্তাপুর শাখায় শীতবস্ত্র বিতরণ