ঢাকা, Sunday 24 October 2021

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

কৃষিভিত্তিক যন্ত্রপাতি উৎপাদন খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী বেলারুশ

প্রকাশিত : 09:57 AM, 19 March 2021 Friday
68 বার পঠিত

রাছেল রানা | বগুডা

খাদ্যপণ্যের উৎপাদন বাড়াতে কৃষিভিত্তিক যন্ত্রপাতি উৎপাদন খাতে বিনিয়োগে আগ্রহ দেখিয়েছে বেলারুশ। এতে করে দেশের প্রাণী সম্পদখাত আরও সমৃদ্ধও বলে আশা করা হচ্ছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, বাংলাদেশ- বেলারুশ যৌথ বিনিয়োগে দু’দেশের দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য বাড়বে। এলক্ষ্যে গঠিত জয়েন্ট ওয়াকিং গ্রুপকে আরও দক্ষতার প্রমাণ দেয়া প্রয়োজন।

বৃহস্পতিববার সচিবালয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশির সঙ্গে সফররত রেলারুশের শিল্প বিষয়ক উপমন্ত্রী ডিমিট্রি হ্যারিনটনচিক এর নেতৃত্ব একটি প্রতিনিধিদল সাক্ষাত করতে আসেন। ওই সময় বেলারুশের উপমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের সাথে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধি করতে তাঁর দেশ আগ্রহী।

বাংলাদেশ সব সময় বেলারুশের গুরুত্বপূর্ণ ব্যবসায়ীক অংশিদার। দু’দেশের বাণিজ্য বৃদ্ধিতে শুল্ক জটিলতা সমাধানে বেলারুশ সরকার কাজ করছে। তিনি বলেন,

বাংলাদেশে পারমানবিক বিদ্যুৎ খাত, গ্রীণ ট্রান্সপোর্ট সরবরাহ, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা খাতে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী। কৃষি ভিত্তিক যন্ত্রপাতি উৎপাদন ও প্রাণী সম্পদ উন্নয়ন যৌথ উদ্যোগে কাজ করতে চায় বেলারুশ। তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছরপূর্তি অনুষ্ঠারে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রতি বেলারুশ কৃতজ্ঞ। এ জন্য বাংলাদেশ সরকারকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, এমপি বলেন, বেলারুশের সাথে বাংলাদেশের বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। উভয় দেশের বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধির বিপুল সম্ভাবচনা রয়েছে। এ সুযোগকে কাজে লাগাতে হবে। উভয় দেশের ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদল পারস্পরিক দেশ সফর করলে কোন কোন খাতে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ

বৃদ্ধি করা যায়, তা নির্ধারণ করা সহজ হবে।

এ জন্য উভয় দেশের প্রতিনিধি নিয়ে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের সহযোগিতা নিয়ে বিনিয়োগে ও বাণিজ্যের খাত গুলো নির্ধারণ করা সম্ভব। বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, দু’দেশের বাণিজ্য ক্ষেত্রে বড় ব্যবধান রয়েছে। গত ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে বাংলাদেশ বেলারুশে বাংলাদেশ রফতানি করেছে ৪.৫৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য, একই সময়ে আমদানি করেছে ১৪৭.৩৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের তৈরি পোশাক, পাট ও পাটজাত পণ্য, চামড়া ও চামড়া জাত পণ্য এবং ওষুধ রফতানির ক্ষেত্রে বাংলাদেশের বিপুল সম্ভাবনা আছে। কিন্তু শুল্ক জটিলতার কারনে প্রত্যাশা মোতাবেক রফতানি করা সম্ভব হচ্ছে না। বেলারুশ সরকার এ সকল

পণ্য রফতানিতে বাংলাদেশকে ডিউটি ও কোটা ফ্রি বাণিজ্য সুবিধা প্রদান করলে বাংলাদেশের রফতানি অনেক বাড়বে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেক হাসিনার নির্দেশণায় বাংলাদেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার লক্ষ্যে দ্রুত কাজ করছে।

এ সকল ইকোনমিক জোনে পাওয়ার, আইসিটি, কৃষিভিত্তিক শিল্প খাতে বেলারুশ বিনিয়োগ করতে পারে। বাংলাদেশ সরকার বিদেশী বিনিয়োগের ক্ষেত্রে আকর্ষণীয় সুযোগ সুবিধা প্রদান করছে। বেলারুশ এ সকল সুযোগ গ্রহণ করতে পারে। এছাড়া, বেলারুশ কৃষি ক্ষেত্রে টেকনিক্যাল সাপোর্ট দিলে বাংলাদেশ উপকৃত হবে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি ডোনেট বাংলাদেশ'কে জানাতে ই-মেইল করুন- donetbd2010@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

ডোনেট বাংলাদেশ'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© 2021 সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। ডোনেট বাংলাদেশ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT