কুয়েট শিক্ষকের মৃত্যু – বর্ণমালা টেলিভিশন

কুয়েট শিক্ষকের মৃত্যু

সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার কাম্য

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ৫ ডিসেম্বর, ২০২১ | ৯:৫৩ 119 ভিউ
খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) শিক্ষক ড. মো. সেলিম হোসেনের রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনা দুঃখজনক। অভিযোগ উঠেছে, ছাত্রলীগের কিছু নেতাকর্মীর মানসিক নিপীড়নে ড. সেলিমের মৃত্যু হয়েছে। কুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ও লালন শাহ হলের প্রাধ্যক্ষ এ শিক্ষকের রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তসহ চার দফা দাবি জানিয়েছেন শিক্ষক সমিতির নেতারা। অন্যদিকে কুয়েট ছাত্রলীগ খুলনা প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে বলেছে, সেলিম স্যারের মৃত্যু স্বাভাবিক হলেও একটি কুচক্রী মহল ঘটনাটিকে রাজনৈতিকভাবে ভিন্ন খাতে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছে। ড. মো. সেলিম হোসেনের মৃত্যু নিয়ে যে প্রশ্ন উঠেছে-আমরা মনে করি, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে এ রহস্য উদ্ঘাটন করা উচিত। উল্লেখ্য, ৩০ নভেম্বর ড. মো. সেলিম হোসেনের মৃত্যুর পর থেকে জড়িতদের বিচারের দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। অব্যাহত আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে গত শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জরুরি সিন্ডিকেট সভায় ১৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা এবং শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। হঠাৎ হল বন্ধ হওয়ায় সাধারণ শিক্ষার্থীরা বিড়ম্বনায় পড়েছেন। সবচেয়ে বড় কথা, করোনার কারণে দীর্ঘদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় তাদের অনেকটা সময় নষ্ট হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ায় সবে ছাত্রছাত্রীরা পড়ালেখায় মনোযোগী হয়েছেন, এ সময় এ ধরনের পরিস্থিতি তাদের জন্য খুবই কষ্টদায়ক এবং আর্থিক ও মানসিক পীড়ার কারণ হয়ে দেখা দিয়েছে, এতে কোনো সন্দেহ নেই। এদিকে গতকাল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ড. মো. সেলিম হোসেনের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ৯ শিক্ষার্থীকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। সিন্ডিকেটের জরুরি সভায় তাদের বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত হয়। সিসিটিভির ফুটেজ ও অন্যান্য তথ্য পর্যালোচনা করে বিষয়টির প্রাথমিক সত্যতা প্রতীয়মান হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শৃঙ্খলা ও আচরণবিধির আলোকে অসদাচরণের আওতায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়। আমরা আশা করব, এ সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের অবসান হবে এবং যত দ্রুত সম্ভব বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেওয়া হবে। একইসঙ্গে ড. মো. সেলিম হোসেনের মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী হয়ে থাকলে সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে তাকে বা তাদের শনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা হবে, এটাই কাম্য।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:



































শীর্ষ সংবাদ:
বেনাপোল সীমান্তে সচল পিস্তলসহ চিহ্নিত সন্ত্রাসী গ্রেফতার নির্মাণসামগ্রীর দাম চড়া, উন্নয়ন প্রকল্পে ধীরগতি কলম্বোতে কারফিউ জারি টিকে থাকার লড়াইয়ে ছক্কা হাকাতে পারবেন ইমরান খান? করোনায় আজও মৃত্যুশূন্য দেশ, শনাক্ত কমেছে ‘ততক্ষণ খেলব যতক্ষণ না আমার চেয়ে ভালো কাউকে দেখব’ এবার ইয়েমেনে পাল্টা হামলা চালাল সৌদি জোট স্বাধীনতা দিবসের র‌্যালিতে যুবলীগ নেতার মৃত্যু সাড়ে ১১ হাজার কোটি টাকার অস্ত্র রপ্তানি করেছে মোদি সরকার বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে ফুল দেওয়া নিয়ে আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষ, এলাকা রণক্ষেত্র ইউক্রেনকে বিপুল ক্ষেপণাস্ত্র ও মেশিনগান দিয়েছে জার্মানি পুলিশ পরিচয়ে তুলে নিয়ে নারীকে ধর্ষণ, অস্ত্রসহ গ্রেফতার ৩ ইউরো-বাংলা প্রেসক্লাবের ‘লাল-সবুজের পতাকা বিশ্বজুড়ে আনবে একতা‘-শীর্ষক সভা বঙ্গবন্ধু পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় নওগাঁর নওহাঁটায় স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধন । ভূরুঙ্গামারীতে ব্যাপরোয়া অটোরিকশা কেরে নিল শিশুর ফাহিম এর প্রাণ ভূরুঙ্গামারী কিশোর গ‍্যাংয়ের ছুরিকাঘাতে দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী আহত যশোরিয়ান ব্লাড ফাউন্ডেশন এর ৬ তম রক্তের গ্রুপ নির্ণয় ক্যাম্পেইন বেনাপোলে পৃথক অভিযানে ৫২ বোতল ফেনসিডিল সহ আটক-২ বেনাপোল স্থলপথে স্টুডেন্ট ভিসায় বাংলাদেশিদের ভারত ভ্রমন নিষেধ গেরিলা যোদ্ধা অপূর্ব