কুয়েটে ছাত্রলীগই শেষ কথা - বর্ণমালা টেলিভিশন

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুয়েট) হলের সিট বরাদ্দ, ডাইনিং ও কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগসহ প্রায় সব ক্ষেত্রেই রয়েছে ছাত্রলীগের খবরদারি। বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছয়টি ছাত্র হল চলে ছাত্রলীগ নেতাদের কথামতো। মেধার ভিত্তিতে সিট বরাদ্দের কথা থাকলেও নেতাদের ‘দয়া’ ছাড়া কোনো শিক্ষার্থী সিট পায় না। জোর করে ডাইনিং ম্যানেজারের পদও বাগিয়ে নেন নেতারা।

বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগ নিয়েও বাণিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে ছাত্রলীগ নেতাদের বিরুদ্ধে। এছাড়া রয়েছে ক্যাম্পাসে মাদক বাণিজ্য ও ভিন্নমতের ‘ট্যাগ’ দিয়ে ছাত্রদের ওপর নির্যাতনের অভিযোগ। কুয়েটের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীর সঙ্গে কথা বলে এসব অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সম্প্রতি কুয়েট শিক্ষক ড. মো. সেলিম হোসেনের রহস্যজনক মৃত্যুর পর ছাত্রলীগের নানা অপকর্ম আলোচনায় আসে। অভিযোগ

উঠেছে, ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের মানসিক নির্যাতনে তার মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় শনিবার ছাত্রলীগের নয় নেতাকে কুয়েট থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

জানা গেছে, ২০১৭ সালের ৩১ জুলাই এক বছর মেয়াদি কমিটি হয় কুয়েট ছাত্রলীগের। কমিটির সভাপতি হন আবুল হাসান শোভন এবং সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজান। পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে স্থান পান ২২১ জন। সেই ‘এক বছরের’ কমিটি এখনও বহাল। এর মধ্যে সভাপতি শোভন চলতি বছরের ২৪ মে পদ থেকে অব্যাহতি দিয়ে এলজিইডিতে চাকরি নেন। ফলে এক প্রকার সেজানের একক নিয়ন্ত্রণে ছিল কুয়েট।

কুয়েটের সাতটি হল। এর মধ্যে একটি ছাত্রী হল। বাকি ছয়টি ছাত্রদের। এগুলো হলো- খানজাহান আলী হল, ড. এম রশিদ হল, লালন শাহ

হল, অমর একুশে হল, ফজলুল হক হল ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল। এসব ছাত্র হল ছাত্রলীগ নেতাদের নিয়ন্ত্রণে। এরমধ্যে অমর একুশে হল ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল বড় হওয়ায় এ দুই হলে প্রতি মাসে চারজন করে ডাইনিং ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করেন। অন্য চারটি হলে ম্যানেজার থাকে এক-দুজন করে। হল কমিটির সভায় ম্যানেজারের দায়িত্ব দেওয়া হয়। জোর করে এ পদ বাগিয়ে নেয় ছাত্রলীগ। মূলত আয় ও প্রভাব খাটাতেই ডাইনিং ম্যানেজার পদে নিজের অনুগতদের রাখতে চান ছাত্রলীগ নেতারা।

জানা গেছে, হল ম্যানেজারের কাজ মূলত বাজার করা। এ ছাড়া প্রতি মাসেই প্রত্যেক ছাত্রের বিপরীতে ৫০ থেকে ৮০ টাকা পর্যন্ত অতিরিক্ত বিল করা

হয়। বাজার ও অতিরিক্ত বিলের কারণে ছোট হলগুলোতে প্রতি মাসে একজন ম্যানেজারের ৬০ থেকে ৮০ হাজার টাকা আয় হয়। বড় হলগুলোতে আয় লাখ টাকার উপরে। এ আয়ের একটি অংশ যায় নেতাদের পকেটে।

নভেম্বরে লালন শাহ হলে ডাইনিং ম্যানেজার ছিলেন নাজমুস সাকিব। ছাত্রলীগের সভাপতি গ্রুপের অনুসারী এ নেতাকে বাদ দিয়ে ডিসেম্বরে নিজের এক অনুসারীকে নিতেই প্রভোস্ট ড. মো. সেলিম হোসেনকে চাপ প্রয়োগ করেছিলেন কুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজান। অভিযোগ উঠেছে, ছাত্রলীগ নেতাদের এমন চাপ সহ্য করতে না পেরে ১ ডিসেম্বর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রভোস্ট পদ থেকে পদত্যাগ করেন ড. কল্যাণ কুমার হালদার।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ড. কল্যাণ কুমার

হালদার বলেন, ড. সেলিম আমার খুবই ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন। তার মৃত্যুর পর মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে আমি পদত্যাগ করেছি।

কুয়েটের একাধিক শিক্ষার্থী জানান, জোর করে ছাত্রলীগের মিছিলে নিয়ে যাওয়া হয় তাদের। কেউ যেতে না চাইলে নির্যাতন করা হয়; ল্যাপটপ, মোবাইল ছিনিয়ে নেওয়া হয়। এছাড়া ভিন্নমত প্রকাশ করলেই শিক্ষার্থীদের নির্যাতনের শিকার হতে হয়।

২০১৯ সালের ২৪ মার্চ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শাহীনুজ্জামানসহ তিন শিক্ষার্থীকে ফজলুল হক হলের একটি কক্ষে আটকে মারধর করা হয়। এরমধ্যে শাহীনুজ্জামানের কিডনিতে মারাত্মক আঘাত লাগে। ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে ভিন্ন মতের ‘ট্যাগ’ দিয়ে দুই শিক্ষার্থীকে মারধর করে পুলিশে তুলে দেওয়া হয়। এর মধ্যে আলামিনের চোখ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

কুয়েটের কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগেও ছাত্রলীগের

হস্তক্ষেপের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগ উঠেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজশে ছাত্রলীগ নেতারা নিয়োগ বাণিজ্য করেন। কিছুদিন আগে নিয়োগ দুর্নীতির ঘটনায় চতুর্থ শ্রেণির এক কর্মচারী চাকরিচ্যুত হয়েছে। এছাড়া ক্যাম্পাসে মাদক বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে।

এ বিষয়ে কুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজান বলেন, ক্যাম্পাসে মাদক বাণিজ্য, নিয়োগ বাণিজ্য এবং হলে শিক্ষার্থীদের মারধরের ঘটনায় ছাত্রলীগ জড়িত নয়। এগুলো ভিত্তিহীন অভিযোগ। হলে ডাইনিং ম্যানেজার পদের জন্যও আমরা হল কর্তৃপক্ষকে কখনও চাপ দেই না। তবে মাঝেমধ্যে অনুরোধ করেছি। এটা আমরা করতেই পারি।

শিক্ষকদের শোকসভা ও দোয়া : ড. সেলিমের মৃত্যুতে কুয়েটের শিক্ষক ক্লাব ভবনে রোববার সকালে এক শোক সভা অনুষ্ঠিত হয়। ড. সেলিমের স্ত্রী

সাবিনা খাতুন রিক্তা অনলাইনে যুক্ত হন। তিনি তার স্বামীর মৃত্যুর ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত সময়ের মধ্যে বিচারের দাবি জানান। পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানান। এছাড়া বাদ আসর কুয়েটের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে ড. সেলিমের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে।

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুয়েট) হলের সিট বরাদ্দ, ডাইনিং ও কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগসহ প্রায় সব ক্ষেত্রেই রয়েছে ছাত্রলীগের খবরদারি। বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছয়টি ছাত্র হল চলে ছাত্রলীগ নেতাদের কথামতো। মেধার ভিত্তিতে সিট বরাদ্দের কথা থাকলেও নেতাদের ‘দয়া’ ছাড়া কোনো শিক্ষার্থী সিট পায় না। জোর করে ডাইনিং ম্যানেজারের পদও বাগিয়ে নেন নেতারা।

বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগ নিয়েও বাণিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে ছাত্রলীগ নেতাদের বিরুদ্ধে। এছাড়া রয়েছে ক্যাম্পাসে মাদক বাণিজ্য ও ভিন্নমতের ‘ট্যাগ’ দিয়ে ছাত্রদের ওপর নির্যাতনের অভিযোগ। কুয়েটের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীর সঙ্গে কথা বলে এসব অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সম্প্রতি কুয়েট শিক্ষক ড. মো. সেলিম হোসেনের রহস্যজনক মৃত্যুর পর ছাত্রলীগের নানা অপকর্ম আলোচনায় আসে। অভিযোগ

উঠেছে, ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের মানসিক নির্যাতনে তার মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় শনিবার ছাত্রলীগের নয় নেতাকে কুয়েট থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

জানা গেছে, ২০১৭ সালের ৩১ জুলাই এক বছর মেয়াদি কমিটি হয় কুয়েট ছাত্রলীগের। কমিটির সভাপতি হন আবুল হাসান শোভন এবং সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজান। পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে স্থান পান ২২১ জন। সেই ‘এক বছরের’ কমিটি এখনও বহাল। এর মধ্যে সভাপতি শোভন চলতি বছরের ২৪ মে পদ থেকে অব্যাহতি দিয়ে এলজিইডিতে চাকরি নেন। ফলে এক প্রকার সেজানের একক নিয়ন্ত্রণে ছিল কুয়েট।

কুয়েটের সাতটি হল। এর মধ্যে একটি ছাত্রী হল। বাকি ছয়টি ছাত্রদের। এগুলো হলো- খানজাহান আলী হল, ড. এম রশিদ হল, লালন শাহ

হল, অমর একুশে হল, ফজলুল হক হল ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল। এসব ছাত্র হল ছাত্রলীগ নেতাদের নিয়ন্ত্রণে। এরমধ্যে অমর একুশে হল ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল বড় হওয়ায় এ দুই হলে প্রতি মাসে চারজন করে ডাইনিং ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করেন। অন্য চারটি হলে ম্যানেজার থাকে এক-দুজন করে। হল কমিটির সভায় ম্যানেজারের দায়িত্ব দেওয়া হয়। জোর করে এ পদ বাগিয়ে নেয় ছাত্রলীগ। মূলত আয় ও প্রভাব খাটাতেই ডাইনিং ম্যানেজার পদে নিজের অনুগতদের রাখতে চান ছাত্রলীগ নেতারা।

জানা গেছে, হল ম্যানেজারের কাজ মূলত বাজার করা। এ ছাড়া প্রতি মাসেই প্রত্যেক ছাত্রের বিপরীতে ৫০ থেকে ৮০ টাকা পর্যন্ত অতিরিক্ত বিল করা

হয়। বাজার ও অতিরিক্ত বিলের কারণে ছোট হলগুলোতে প্রতি মাসে একজন ম্যানেজারের ৬০ থেকে ৮০ হাজার টাকা আয় হয়। বড় হলগুলোতে আয় লাখ টাকার উপরে। এ আয়ের একটি অংশ যায় নেতাদের পকেটে।

নভেম্বরে লালন শাহ হলে ডাইনিং ম্যানেজার ছিলেন নাজমুস সাকিব। ছাত্রলীগের সভাপতি গ্রুপের অনুসারী এ নেতাকে বাদ দিয়ে ডিসেম্বরে নিজের এক অনুসারীকে নিতেই প্রভোস্ট ড. মো. সেলিম হোসেনকে চাপ প্রয়োগ করেছিলেন কুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজান। অভিযোগ উঠেছে, ছাত্রলীগ নেতাদের এমন চাপ সহ্য করতে না পেরে ১ ডিসেম্বর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রভোস্ট পদ থেকে পদত্যাগ করেন ড. কল্যাণ কুমার হালদার।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ড. কল্যাণ কুমার

হালদার বলেন, ড. সেলিম আমার খুবই ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন। তার মৃত্যুর পর মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে আমি পদত্যাগ করেছি।

কুয়েটের একাধিক শিক্ষার্থী জানান, জোর করে ছাত্রলীগের মিছিলে নিয়ে যাওয়া হয় তাদের। কেউ যেতে না চাইলে নির্যাতন করা হয়; ল্যাপটপ, মোবাইল ছিনিয়ে নেওয়া হয়। এছাড়া ভিন্নমত প্রকাশ করলেই শিক্ষার্থীদের নির্যাতনের শিকার হতে হয়।

২০১৯ সালের ২৪ মার্চ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শাহীনুজ্জামানসহ তিন শিক্ষার্থীকে ফজলুল হক হলের একটি কক্ষে আটকে মারধর করা হয়। এরমধ্যে শাহীনুজ্জামানের কিডনিতে মারাত্মক আঘাত লাগে। ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে ভিন্ন মতের ‘ট্যাগ’ দিয়ে দুই শিক্ষার্থীকে মারধর করে পুলিশে তুলে দেওয়া হয়। এর মধ্যে আলামিনের চোখ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

কুয়েটের কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগেও ছাত্রলীগের

হস্তক্ষেপের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগ উঠেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজশে ছাত্রলীগ নেতারা নিয়োগ বাণিজ্য করেন। কিছুদিন আগে নিয়োগ দুর্নীতির ঘটনায় চতুর্থ শ্রেণির এক কর্মচারী চাকরিচ্যুত হয়েছে। এছাড়া ক্যাম্পাসে মাদক বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে।

এ বিষয়ে কুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজান বলেন, ক্যাম্পাসে মাদক বাণিজ্য, নিয়োগ বাণিজ্য এবং হলে শিক্ষার্থীদের মারধরের ঘটনায় ছাত্রলীগ জড়িত নয়। এগুলো ভিত্তিহীন অভিযোগ। হলে ডাইনিং ম্যানেজার পদের জন্যও আমরা হল কর্তৃপক্ষকে কখনও চাপ দেই না। তবে মাঝেমধ্যে অনুরোধ করেছি। এটা আমরা করতেই পারি।

শিক্ষকদের শোকসভা ও দোয়া : ড. সেলিমের মৃত্যুতে কুয়েটের শিক্ষক ক্লাব ভবনে রোববার সকালে এক শোক সভা অনুষ্ঠিত হয়। ড. সেলিমের স্ত্রী

সাবিনা খাতুন রিক্তা অনলাইনে যুক্ত হন। তিনি তার স্বামীর মৃত্যুর ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত সময়ের মধ্যে বিচারের দাবি জানান। পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানান। এছাড়া বাদ আসর কুয়েটের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে ড. সেলিমের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে।

কুয়েটে ছাত্রলীগই শেষ কথা

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ৬ ডিসেম্বর, ২০২১ | ৮:০৩ 77 ভিউ
খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুয়েট) হলের সিট বরাদ্দ, ডাইনিং ও কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগসহ প্রায় সব ক্ষেত্রেই রয়েছে ছাত্রলীগের খবরদারি। বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছয়টি ছাত্র হল চলে ছাত্রলীগ নেতাদের কথামতো। মেধার ভিত্তিতে সিট বরাদ্দের কথা থাকলেও নেতাদের ‘দয়া’ ছাড়া কোনো শিক্ষার্থী সিট পায় না। জোর করে ডাইনিং ম্যানেজারের পদও বাগিয়ে নেন নেতারা। বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগ নিয়েও বাণিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে ছাত্রলীগ নেতাদের বিরুদ্ধে। এছাড়া রয়েছে ক্যাম্পাসে মাদক বাণিজ্য ও ভিন্নমতের ‘ট্যাগ’ দিয়ে ছাত্রদের ওপর নির্যাতনের অভিযোগ। কুয়েটের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীর সঙ্গে কথা বলে এসব অভিযোগ পাওয়া গেছে। সম্প্রতি কুয়েট শিক্ষক ড. মো. সেলিম হোসেনের রহস্যজনক মৃত্যুর পর ছাত্রলীগের নানা অপকর্ম আলোচনায় আসে। অভিযোগ

উঠেছে, ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের মানসিক নির্যাতনে তার মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় শনিবার ছাত্রলীগের নয় নেতাকে কুয়েট থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। জানা গেছে, ২০১৭ সালের ৩১ জুলাই এক বছর মেয়াদি কমিটি হয় কুয়েট ছাত্রলীগের। কমিটির সভাপতি হন আবুল হাসান শোভন এবং সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজান। পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে স্থান পান ২২১ জন। সেই ‘এক বছরের’ কমিটি এখনও বহাল। এর মধ্যে সভাপতি শোভন চলতি বছরের ২৪ মে পদ থেকে অব্যাহতি দিয়ে এলজিইডিতে চাকরি নেন। ফলে এক প্রকার সেজানের একক নিয়ন্ত্রণে ছিল কুয়েট। কুয়েটের সাতটি হল। এর মধ্যে একটি ছাত্রী হল। বাকি ছয়টি ছাত্রদের। এগুলো হলো- খানজাহান আলী হল, ড. এম রশিদ হল, লালন শাহ

হল, অমর একুশে হল, ফজলুল হক হল ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল। এসব ছাত্র হল ছাত্রলীগ নেতাদের নিয়ন্ত্রণে। এরমধ্যে অমর একুশে হল ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল বড় হওয়ায় এ দুই হলে প্রতি মাসে চারজন করে ডাইনিং ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করেন। অন্য চারটি হলে ম্যানেজার থাকে এক-দুজন করে। হল কমিটির সভায় ম্যানেজারের দায়িত্ব দেওয়া হয়। জোর করে এ পদ বাগিয়ে নেয় ছাত্রলীগ। মূলত আয় ও প্রভাব খাটাতেই ডাইনিং ম্যানেজার পদে নিজের অনুগতদের রাখতে চান ছাত্রলীগ নেতারা। জানা গেছে, হল ম্যানেজারের কাজ মূলত বাজার করা। এ ছাড়া প্রতি মাসেই প্রত্যেক ছাত্রের বিপরীতে ৫০ থেকে ৮০ টাকা পর্যন্ত অতিরিক্ত বিল করা

হয়। বাজার ও অতিরিক্ত বিলের কারণে ছোট হলগুলোতে প্রতি মাসে একজন ম্যানেজারের ৬০ থেকে ৮০ হাজার টাকা আয় হয়। বড় হলগুলোতে আয় লাখ টাকার উপরে। এ আয়ের একটি অংশ যায় নেতাদের পকেটে। নভেম্বরে লালন শাহ হলে ডাইনিং ম্যানেজার ছিলেন নাজমুস সাকিব। ছাত্রলীগের সভাপতি গ্রুপের অনুসারী এ নেতাকে বাদ দিয়ে ডিসেম্বরে নিজের এক অনুসারীকে নিতেই প্রভোস্ট ড. মো. সেলিম হোসেনকে চাপ প্রয়োগ করেছিলেন কুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজান। অভিযোগ উঠেছে, ছাত্রলীগ নেতাদের এমন চাপ সহ্য করতে না পেরে ১ ডিসেম্বর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রভোস্ট পদ থেকে পদত্যাগ করেন ড. কল্যাণ কুমার হালদার। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ড. কল্যাণ কুমার

হালদার বলেন, ড. সেলিম আমার খুবই ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন। তার মৃত্যুর পর মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে আমি পদত্যাগ করেছি। কুয়েটের একাধিক শিক্ষার্থী জানান, জোর করে ছাত্রলীগের মিছিলে নিয়ে যাওয়া হয় তাদের। কেউ যেতে না চাইলে নির্যাতন করা হয়; ল্যাপটপ, মোবাইল ছিনিয়ে নেওয়া হয়। এছাড়া ভিন্নমত প্রকাশ করলেই শিক্ষার্থীদের নির্যাতনের শিকার হতে হয়। ২০১৯ সালের ২৪ মার্চ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শাহীনুজ্জামানসহ তিন শিক্ষার্থীকে ফজলুল হক হলের একটি কক্ষে আটকে মারধর করা হয়। এরমধ্যে শাহীনুজ্জামানের কিডনিতে মারাত্মক আঘাত লাগে। ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে ভিন্ন মতের ‘ট্যাগ’ দিয়ে দুই শিক্ষার্থীকে মারধর করে পুলিশে তুলে দেওয়া হয়। এর মধ্যে আলামিনের চোখ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কুয়েটের কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগেও ছাত্রলীগের

হস্তক্ষেপের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগ উঠেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজশে ছাত্রলীগ নেতারা নিয়োগ বাণিজ্য করেন। কিছুদিন আগে নিয়োগ দুর্নীতির ঘটনায় চতুর্থ শ্রেণির এক কর্মচারী চাকরিচ্যুত হয়েছে। এছাড়া ক্যাম্পাসে মাদক বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে কুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজান বলেন, ক্যাম্পাসে মাদক বাণিজ্য, নিয়োগ বাণিজ্য এবং হলে শিক্ষার্থীদের মারধরের ঘটনায় ছাত্রলীগ জড়িত নয়। এগুলো ভিত্তিহীন অভিযোগ। হলে ডাইনিং ম্যানেজার পদের জন্যও আমরা হল কর্তৃপক্ষকে কখনও চাপ দেই না। তবে মাঝেমধ্যে অনুরোধ করেছি। এটা আমরা করতেই পারি। শিক্ষকদের শোকসভা ও দোয়া : ড. সেলিমের মৃত্যুতে কুয়েটের শিক্ষক ক্লাব ভবনে রোববার সকালে এক শোক সভা অনুষ্ঠিত হয়। ড. সেলিমের স্ত্রী

সাবিনা খাতুন রিক্তা অনলাইনে যুক্ত হন। তিনি তার স্বামীর মৃত্যুর ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত সময়ের মধ্যে বিচারের দাবি জানান। পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানান। এছাড়া বাদ আসর কুয়েটের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে ড. সেলিমের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


































শীর্ষ সংবাদ:
নিয়োগে দুর্নীতি: জীবন বীমার এমডির বিরুদ্ধে দুদকের মামলা মিহির ঘোষসহ নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবীতে গাইবান্ধায় সিপিবির বিক্ষোভ গাইবান্ধায় সেনাবাহিনীর ভূয়া ক্যাপ্টেন গ্রেফতার জগন্নাথপুরে সড়ক নির্মানের অভিযোগ এক ঠিকাদারের বিরুদ্ধে তারাকান্দায় অসহায় ও দুস্থদের মাঝে ছাত্রদলের খাবার বিতরণ দেবহাটায় অস্ত্র-গুলি ও ইয়াবা উদ্ধার আটক -১ রামগড়ে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বাগমারায় ভেদুর মোড় হতে নরদাশ পর্যন্ত পাকা রাস্তার শুভ উদ্বোধন সরকারি বিধিনিষেধ না মানায় শার্শায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা আদায় মধুখালীতে তিন মাসে ৪৩ টি গরু চুরি গাইবান্ধায় বঙ্গবন্ধু জেলা ভলিবল প্রতিযোগিতার উদ্বোধন গাইবান্ধায় শীতবস্ত্র বিতরণ রাজশাহীতে পুত্রের হাতে পিতা খুন বাগমারায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার রামগড়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার শীতবস্ত্র বিতরণ করেন ইউএনও ভাঃ উম্মে হাবিবা মজুমদার জগন্নাথপুরে জুয়ার আসরে পুলিশ দেখে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে নিখোঁজ এক ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় সিপিবি নেতা মিহির ঘোষসহ ৬ জন কারাগারে পিআইও’র মানহানির মামলায় গাইবান্ধার ৪ সাংবাদিকসহ ৫ জনের জামিন গাইবান্ধায় প্রগতিশীল ছাত্র জোটের মানববন্ধন চাঁপাইনবাবগঞ্জে সোনালী ব্যাংক লি. গোমস্তাপুর শাখায় শীতবস্ত্র বিতরণ