ঢাকা, Thursday 28 October 2021

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

কুষ্টিয়া বালিয়াপাড়ার এক সময়ের চরমপন্থী ও চিহ্নিত সন্ত্রাসী দাউদ এখন মাদক সম্রাট

প্রকাশিত : 02:39 PM, 28 March 2021 Sunday
87 বার পঠিত

| ডোনেট বিডি নিউজ ডেস্কঃ |

কে এম শাহীন রেজা, বিশেষ সংবাদদাতা: কুষ্টিয়া সদর উপজেলার বালিয়াপাড়া গ্রামের মধ্যপাড়ার বাসিন্দা এক সময়ের চরমপন্থী ও সন্ত্রাসী দলের ক্যাডার দাউদ এখন বড় মাপের মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে এলাকায় ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছে। এলাকাবাসী প্রতিবেদককে জানান যে, তিনি দর্শনা বর্ডার থেকে চুয়াডাঙ্গা, আলমডাঙ্গা, হালসা পোড়াদহ ব্রিজের পাশ দিয়ে দহকুলা পুলিশ ফাঁড়ির সম্মুখ দিয়ে বস্তা বস্তা গাঁজা তার বাড়ীতে নিয়ে আসে এবং তার বাড়ি থেকেই কুষ্টিয়া শহর সহ বিভিন্ন স্থানে উক্ত গাঁজা সরবরাহ করেন।

তার এই ব্যবসার কাজে সহযোগিতা করেন তার সন্তান রাসেল। মাদক বিক্রয়ের জন্য একটি অটো কিনেছিল উক্ত অটো দিয়ে তিনি তার ছেলে রাসেলকে দিয়ে

বিভিন্ন ব্যক্তিদের কাছে গাঁজা পৌঁছে দিত। এছাড়াও তার বাড়ির উপর রাত দিন ২৪ ঘন্টা গ্রামের একাধিক মাদকসেবীরা বসে গাঁজা সেবন করেন।

এলাকাবাসী আরো জানান, তিনি একসময় চরমপন্থী ও সন্ত্রাসী দলের একজন ক্যাডার হিসেবে পরিচিত ছিল। পরবর্তীতে ঐসকল ক্যাডার বাহিনী আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীদের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হলে তিনি প্রাণে বেঁচে যায়। আজ থেকে প্রায় ১০ বছর আগে তিনি অস্ত্রসহ কুষ্টিয়া র্যাবের হাতে ধরাও পড়েছিলেন।

পরবর্তীতে জেল থেকে বের হওয়ার পর তার মাজার হাড়ের সমস্যা হওয়ায় রাজশাহী মেডিকেলে অপারেশন করতে যায়, অপারেশন টেবিলেই তার মাজার একটি রগ কেটে যায় তখন থেকে তিনি একটু কুজা হয়ে হাঁটেন। সেই সুবাদে

তার চাচাতো ভাই উক্ত এলাকার মেম্বার সায়েম উদ্দিন তাকে একটি প্রতিবন্ধী ভাতা করে দেন। সেখান থেকেও তিনি প্রতিবছর প্রতিবন্ধী ভাতা উত্তোলন করে যাচ্ছেন।

বর্তমানে বালিয়াপাড়া গ্রামের সুশীল সমাজ প্রতিবেদকের কাছে জোর দাবি জানিয়ে বলেন, এই মাদক ব্যবসায়ী দাউদ হোসেন এলাকাটি নষ্ট করে দিল। আমাদের সন্তানরা বিপদ মুখি হয়ে যাচ্ছে। আমরা দাউদের অবৈধ গাঁজার ব্যবসা বন্ধ করতে চাই আপনারা জাতির বিবেক সুতরাং আপনারা আমাদেরকে একটু সহযোগিতা করেন।

তারা এটাও বলেন বালিয়াপাড়ার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একটি খেলার মাঠ ছিল, কিন্তু দুঃখের বিষয় উক্ত খেলার মাঠটিও হাট মালিকদের কাছে বিক্রি করে দিয়েছে প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ। যে কারণে আমাদের সন্তানরা উক্ত মাঠে

খেলাধুলা করতে না করতে পেরে তারা নেশার জগতে ঢুকে বিপথগামী হয়ে পড়ছে। এলাকাবাসী আরও জানান, আমরা তার এই অবৈধ ব্যবসার প্রতিবাদ করতে গেলে আমাদেরকে বিভিন্ন নেতাদের নাম বলে ভয়-ভীতি প্রদর্শন করছে এবং এটাও বলছে তোদের বাড়িতে গাঁজা রেখে পুলিশ দিয়ে ধরিয়ে দিব।

বিষয়টির সত্যতা জানতে গত শনিবার বিকেলে তার বাড়িতে সরেজমিনে উপস্থিত হয়ে নানা বিধ প্রশ্ন করা হলে তিনি প্রথম পর্যায়ে স্বীকার করেন আমি গাঁজা সেবন করি। পরবর্তীতে আরো প্রেসার দিয়ে কথা বললে তিনি সবকিছু প্রতিবেদক এর কাছে স্বীকার করে পায়ে ধরে বলেন, আমি আর এ ব্যবসা করব না এবারের মতো আমাকে মাফ করে দিন। তার

সম্পূর্ণ জবানবন্দি গোপন ক্যামেরায় বন্দী করা হয়েছে যা তিনি নিজেও জানেন না।

সংবাদ সংগ্রহ করে তার বাড়ি থেকে বেরিয়ে আসার পর প্রতিবেদককে বিভিন্ন ধরনের গালিগালাজ পর্যন্ত করেছেন তিনি। যা এলাকাবাসী পরবর্তীতে মোবাইল এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন। পরবর্তীতে সংবাদ বন্দের জন্য বিভিন্ন লোক মারফত দিয়ে প্রতিবেদককে ম্যানেজ করার চেষ্টাও চালিয়ে গেছেন তিনি।

এ বিষয়টি নিয়ে দহকুলা ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই আসিকের সঙ্গে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি তেমনটি আমার নলেজে নাই এবং চিনতেও পারছি না। কিন্তু আলামপুর বালিয়াপাড়া স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ আবু বক্কর সিদ্দিকীর শ্বশুর বাড়ির পাশের বাড়ির কথা বললে তিনি চিনে ফেলে বলেন, আমি দ্রুত তাকে গ্রেপ্তারের

ব্যবস্থা করব।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি ডোনেট বাংলাদেশ'কে জানাতে ই-মেইল করুন- donetbd2010@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

ডোনেট বাংলাদেশ'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© 2021 সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। ডোনেট বাংলাদেশ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT