ঢাকা, Wednesday 22 September 2021

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

ইউএনও’র উপর হামলা ॥ ঘোড়াঘাট থানার ওসি আমিরুল প্রত্যাহার

প্রকাশিত : 07:30 PM, 11 September 2020 Friday
81 বার পঠিত

মোহাম্মদ রাছেল রানা | ডোনেট বাংলাদেশ নিউজ ডেক্স :-

ইউএনও ওয়াহিদা খানমের ওপর হামলার ৯ দিনের মাথায় এসে দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিরুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। ওসি আমিরুল ইসলাম নিজেই প্রত্যাহারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।আজ শুক্রবার তাকে ঘোড়াঘাট থানা থেকে প্রত্যাহার করা হয়। রংপুর সদর থানার ইন্সপেক্টর আজিম উদ্দিনকে পদোন্নতি দিয়ে ঘোড়াঘাট থানায় নতুন ওসির দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

পুলিশের এক কর্মকর্তা বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, বিভিন্ন কারণে ঘোড়াঘাট থানার বর্তমান ওসি আমিরুল ইসলামকে সেখান থেকে ক্লোজড করে দিনাজপুর পুলিশ লাইন্সে আনা হয়েছে। এর পরিবর্তে রংপুর সদর থানার ইন্সপেক্টর আজিম উদ্দিনকে পদোন্নতি দিয়ে ঘোড়াঘাট থানার ওসি হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছে। শুক্রবার দুপুর পৌনে ১২টার

দিকে প্রত্যাহারকৃত ওসি আমিরুল ইসলাম জানান, তিনি ঘোড়াঘাট থেকে প্রত্যাহার হয়েছেন। তিনি অস্ত্র জমা দেয়ার জন্য দিনাজপুরে এসপি অফিসে যাচ্ছেন।

দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলম বলেন, ‘একজন উপজেলার সর্বোচ্চ কর্মকর্তাকে রাতে তার সরকারি বাসভবনে ঢুকে একটা ফাইলের জন্য হামলা করার সাহস দেখিয়েছে এটাতো ছেড়ে দেয়ার মত বিষয় নয়। যেহেতেু প্রধানমন্ত্রী বিষয়টি নিজে তদারকি করছেন তাই যেকোন কর্মকর্তা বা আরো কাউকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এই হামলার আসল পরিকল্পনাকারীকে খুঁজে বের হরা হবে।

এদিকে, দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানম তার অবশ হয়ে যাওয়া ডান হাতের আঙুলে অনুভূতি ফিরে পাচ্ছেন। এটা তার শারীরিক অবস্থার অনেক বড় উন্নতি

বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা। এ ব্যাপারে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরো সায়েন্সেস অ্যান্ড হসপিটালের অতিরিক্ত পরিচালক অধ্যাপক বদরুল আলম বলেন, ডান হাত এবং ডান পা অবশ হলেও আজকে (গতকাল) ওয়াহিদা তার হাতের আঙুল নড়াচড়া করতে পেরেছেন। এটা খুবই ভালো একটি দিক। তবে পুরোপুরি সুস্থ হতে বেশ সময় লাগবে। এখন ফিজিওথেরাপি চলছে। তিনি আরও বলেন, অস্ত্রোপচারের পর জ্ঞান ফিরলে ওয়াহিদার স্মৃতিশক্তি স্বাভাবিক হতে থাকে। তিনি তার স্বামীকে চিনতে পেরেছেন। কথা বলছিলেন ধীরে ধীরে। হালকা খাবারও খাচ্ছেন।

প্রসঙ্গত, গত ২ সেপ্টেম্বর রাত আড়াইটার দিকে উপজেলা পরিষদ চত্বরে ইউএনওর সরকারি বাসভবনে ঢুকে হামলা করে দুর্বৃত্তরা। ভিতরে ঢুকে ভারী ও ধারালো

অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে এবং আঘাত করে ইউএনও ওয়াহিদাকে গুরুতর আহত করে তারা। এ সময় মেয়েকে বাঁচাতে এলে বাবা মুক্তিযোদ্ধা ওমর আলী শেখকে (৭০) জখম করে দুর্বৃত্তরা। পরে তারা অচেতন হয়ে পড়লে মৃত ভেবে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। বর্তমান তিনি শেরেবাংলানগরে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি ডোনেট বাংলাদেশ'কে জানাতে ই-মেইল করুন- donetbd2010@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

ডোনেট বাংলাদেশ'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© 2021 সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। ডোনেট বাংলাদেশ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT