আশ্রয়ের খোঁজে কানাডা দুবাই হয়ে আবার দেশে মুরাদ চারপাশে কেউ নেই - বর্ণমালা টেলিভিশন

কোনো দেশ প্রবেশের অনুমতি না দেওয়ায় ঘরে ফিরেছেন সদ্য প্রতিমন্ত্রীর পদ হারানো ডা. মুরাদ হাসান। কানাডার পর দুবাইয়ে প্রবেশের চেষ্টাও ব্যর্থ হলে রোববার বিকালে তিনি দেশে ফেরেন। এদিন বিকাল ৪টা ৫৫ মিনিটে এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে ঢাকায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান ডা. মুরাদ হাসান। তিনি যে ফ্লাইটে ঢাকায় ফেরেন, সেটির নম্বর ইকে ৫৮৬। বিমানবন্দরে নামার পর ট্রলি ব্যাগ নিয়ে তাকে একা একা বিমানবন্দরের আনুষ্ঠানিকতা সারতে দেখা যায়। তিনি অভ্যন্তরীণ লাউঞ্জ দিয়ে চুপিচুপি বেরিয়ে যান। এ সময় তার কাঁধে ঝুলানো ছিল সাইড ব্যাগ। পরনে ছিল ব্লু জিন্সের প্যান্ট, কালো মাস্ক, চোখে কালো ফ্রেমের চশমা এবং ফুল স্লিপ হুডি। বিমানবন্দরে অবস্থানকালীন

তার মাথা এবং পুরো মুখমণ্ডল ছিল ঢাকা। তিনি ৯ ডিসেম্বর রাতে কানাডার উদ্দেশে দেশ ছাড়েন।

জানা যায়, বিমানবন্দরে নামার পর ডা. মুরাদ হাসানকে প্রথমে ইমিগ্রেশন অফিসে নেওয়া হয়। সেখানে ইমিগ্রেশন কাজ শেষে তিনি আসেন ভিআইপি লাউঞ্জে। সেখানে বেশ কিছুক্ষণ অবস্থানের পর বিমানবন্দর ত্যাগ করেন। সন্ধ্যা ৬টা ৩২ মিনিটে টার্মিনাল-২ (ভিআইপি গেটের পাশে) দিয়ে তিনি বেরিয়ে যান। পরে তিনি উত্তরা সাত নম্বর সেক্টরের একটি বাসায় উঠেন বলে জানা যায়।

এর আগে রোববার সকালেই এমিরেটস এয়ারলাইন্সের ইকে-৫৮২ নম্বর ফ্লাইটে দুবাই থেকে তার ঢাকায় পৌঁছার কথা ছিল। কিন্তু ওই ফ্লাইটে তিনি আসেননি। সকাল ৭টা ৫৬ মিনিটের ওই ফ্লাইটে তার আসার খবরে সাংবাদিকরা ভোর থেকেই ভিড়

করেন হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে। কিন্তু নির্ধারিত বিমানটি অবতরণ করলেও এই ফ্লাইটে ডা. মুরাদ হাসান আসেননি। তবে ওই সময় ডা. মুরাদ হাসানকে গ্রেফতারের দাবিতে বিমানবন্দরের সামনে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন বিক্ষুব্ধরা। এ সময় তারা নানা ধরনের স্লোগন দেন। একপর্যায়ে বিমানবন্দর থানা পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

বিক্ষোভের বিষয়ে জানতে চাইলে বিমানবন্দর থানার এসআই সাজ্জাদ শাকিল বলেন, কিছু লোক সড়কে দাঁড়িয়ে স্লোগান দিচ্ছিল। আমরা তাদের সরিয়ে দিয়েছি।

বিক্ষোভকারীরা জানান, ডা. মুরাদ হাসান আমাদের মা-বোনের ইজ্জত নিয়ে কটূক্তি করেছে। তার অনেক দুর্নীতি আছে। তাকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই থলের বিড়াল বেরিয়ে আসবে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাকে গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি।

সূত্র জানায়, কানাডায় প্রবেশে ব্যর্থ

হওয়ার পর দুবাইয়ের ভিসা পাওয়ার চেষ্টা করছিলেন ডা. মুরাদ। কিন্তু সেই চেষ্টায়ও ব্যর্থ তিনি। এ কারণে দেশে ফেরার সিদ্ধান্ত নেন বিতর্কিত এই রাজনীতিক। ৯ ডিসেম্বর রাতে কানাডার উদ্দেশে দেশত্যাগ করেছিলেন তিনি। শুক্রবার দুপুর ১টা ৩১ মিনিটে টরেন্টো পিয়ারসন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেন। এ সময় কানাডা ইমিগ্রেশন এবং বর্ডার সার্ভিস এজেন্সির কর্মকর্তারা তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যান। দীর্ঘ সময় তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এ সময় তার কাছে করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট চাওয়া হয়। কিন্ত তিনি তা দেখাতে পারেননি। এছাড়া জিজ্ঞাসাবাদে তাকে বাংলাদেশের সাম্প্রতিক ঘটনাপ্রবাহ সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়। বিপুলসংখ্যক কানাডিয়ান নাগরিক কানাডায় তার প্রবেশের ব্যাপারে আপত্তি জানিয়ে সরকারের কাছে আবেদন করেছেন বলেও

তাকে জানানো হয়। পরে তাকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইগামী একটি ফ্লাইটে তুলে দেওয়া হয়। দুবাইয়ে নামার পর তিনি ভিসা সংগ্রহ করে ইমিগ্রেশন পার হয়ে সেখানে থেকে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু তাকে সেই সুযোগ দেওয়া হয়নি।

সম্প্রতি এক চিত্রনায়িকার সঙ্গে ডা. মুরাদের অশালীন ফোনালাপ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এরপর জামালপুর-৪ (সরিষাবাড়ী) আসনের এই সংসদ-সদস্যকে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগের নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ৭ ডিসেম্বর তিনি পদত্যাগ করলে ওইদিন রাতেই তার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। একই দিনে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের এক জরুরি সভায় মুরাদ হাসানকে জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যাবিষয়ক সম্পাদকের পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া

হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ৮ ডিসেম্বর তাকে সরিষাবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্যপদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। ৯ ডিসেম্বর মুরাদ হাসানকে তার নিজ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্যপদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। এছাড়া মুরাদের আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্যপদ বাতিলের বিষয়েও দলের পরবর্তী কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানা গেছে।

কোনো দেশ প্রবেশের অনুমতি না দেওয়ায় ঘরে ফিরেছেন সদ্য প্রতিমন্ত্রীর পদ হারানো ডা. মুরাদ হাসান। কানাডার পর দুবাইয়ে প্রবেশের চেষ্টাও ব্যর্থ হলে রোববার বিকালে তিনি দেশে ফেরেন। এদিন বিকাল ৪টা ৫৫ মিনিটে এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে ঢাকায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান ডা. মুরাদ হাসান। তিনি যে ফ্লাইটে ঢাকায় ফেরেন, সেটির নম্বর ইকে ৫৮৬। বিমানবন্দরে নামার পর ট্রলি ব্যাগ নিয়ে তাকে একা একা বিমানবন্দরের আনুষ্ঠানিকতা সারতে দেখা যায়। তিনি অভ্যন্তরীণ লাউঞ্জ দিয়ে চুপিচুপি বেরিয়ে যান। এ সময় তার কাঁধে ঝুলানো ছিল সাইড ব্যাগ। পরনে ছিল ব্লু জিন্সের প্যান্ট, কালো মাস্ক, চোখে কালো ফ্রেমের চশমা এবং ফুল স্লিপ হুডি। বিমানবন্দরে অবস্থানকালীন

তার মাথা এবং পুরো মুখমণ্ডল ছিল ঢাকা। তিনি ৯ ডিসেম্বর রাতে কানাডার উদ্দেশে দেশ ছাড়েন।

জানা যায়, বিমানবন্দরে নামার পর ডা. মুরাদ হাসানকে প্রথমে ইমিগ্রেশন অফিসে নেওয়া হয়। সেখানে ইমিগ্রেশন কাজ শেষে তিনি আসেন ভিআইপি লাউঞ্জে। সেখানে বেশ কিছুক্ষণ অবস্থানের পর বিমানবন্দর ত্যাগ করেন। সন্ধ্যা ৬টা ৩২ মিনিটে টার্মিনাল-২ (ভিআইপি গেটের পাশে) দিয়ে তিনি বেরিয়ে যান। পরে তিনি উত্তরা সাত নম্বর সেক্টরের একটি বাসায় উঠেন বলে জানা যায়।

এর আগে রোববার সকালেই এমিরেটস এয়ারলাইন্সের ইকে-৫৮২ নম্বর ফ্লাইটে দুবাই থেকে তার ঢাকায় পৌঁছার কথা ছিল। কিন্তু ওই ফ্লাইটে তিনি আসেননি। সকাল ৭টা ৫৬ মিনিটের ওই ফ্লাইটে তার আসার খবরে সাংবাদিকরা ভোর থেকেই ভিড়

করেন হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে। কিন্তু নির্ধারিত বিমানটি অবতরণ করলেও এই ফ্লাইটে ডা. মুরাদ হাসান আসেননি। তবে ওই সময় ডা. মুরাদ হাসানকে গ্রেফতারের দাবিতে বিমানবন্দরের সামনে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন বিক্ষুব্ধরা। এ সময় তারা নানা ধরনের স্লোগন দেন। একপর্যায়ে বিমানবন্দর থানা পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

বিক্ষোভের বিষয়ে জানতে চাইলে বিমানবন্দর থানার এসআই সাজ্জাদ শাকিল বলেন, কিছু লোক সড়কে দাঁড়িয়ে স্লোগান দিচ্ছিল। আমরা তাদের সরিয়ে দিয়েছি।

বিক্ষোভকারীরা জানান, ডা. মুরাদ হাসান আমাদের মা-বোনের ইজ্জত নিয়ে কটূক্তি করেছে। তার অনেক দুর্নীতি আছে। তাকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই থলের বিড়াল বেরিয়ে আসবে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাকে গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি।

সূত্র জানায়, কানাডায় প্রবেশে ব্যর্থ

হওয়ার পর দুবাইয়ের ভিসা পাওয়ার চেষ্টা করছিলেন ডা. মুরাদ। কিন্তু সেই চেষ্টায়ও ব্যর্থ তিনি। এ কারণে দেশে ফেরার সিদ্ধান্ত নেন বিতর্কিত এই রাজনীতিক। ৯ ডিসেম্বর রাতে কানাডার উদ্দেশে দেশত্যাগ করেছিলেন তিনি। শুক্রবার দুপুর ১টা ৩১ মিনিটে টরেন্টো পিয়ারসন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেন। এ সময় কানাডা ইমিগ্রেশন এবং বর্ডার সার্ভিস এজেন্সির কর্মকর্তারা তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যান। দীর্ঘ সময় তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এ সময় তার কাছে করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট চাওয়া হয়। কিন্ত তিনি তা দেখাতে পারেননি। এছাড়া জিজ্ঞাসাবাদে তাকে বাংলাদেশের সাম্প্রতিক ঘটনাপ্রবাহ সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়। বিপুলসংখ্যক কানাডিয়ান নাগরিক কানাডায় তার প্রবেশের ব্যাপারে আপত্তি জানিয়ে সরকারের কাছে আবেদন করেছেন বলেও

তাকে জানানো হয়। পরে তাকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইগামী একটি ফ্লাইটে তুলে দেওয়া হয়। দুবাইয়ে নামার পর তিনি ভিসা সংগ্রহ করে ইমিগ্রেশন পার হয়ে সেখানে থেকে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু তাকে সেই সুযোগ দেওয়া হয়নি।

সম্প্রতি এক চিত্রনায়িকার সঙ্গে ডা. মুরাদের অশালীন ফোনালাপ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এরপর জামালপুর-৪ (সরিষাবাড়ী) আসনের এই সংসদ-সদস্যকে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগের নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ৭ ডিসেম্বর তিনি পদত্যাগ করলে ওইদিন রাতেই তার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। একই দিনে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের এক জরুরি সভায় মুরাদ হাসানকে জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যাবিষয়ক সম্পাদকের পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া

হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ৮ ডিসেম্বর তাকে সরিষাবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্যপদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। ৯ ডিসেম্বর মুরাদ হাসানকে তার নিজ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্যপদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। এছাড়া মুরাদের আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্যপদ বাতিলের বিষয়েও দলের পরবর্তী কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানা গেছে।

আশ্রয়ের খোঁজে কানাডা দুবাই হয়ে আবার দেশে মুরাদ চারপাশে কেউ নেই

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ১৩ ডিসেম্বর, ২০২১ | ৯:১৫ 116 ভিউ
কোনো দেশ প্রবেশের অনুমতি না দেওয়ায় ঘরে ফিরেছেন সদ্য প্রতিমন্ত্রীর পদ হারানো ডা. মুরাদ হাসান। কানাডার পর দুবাইয়ে প্রবেশের চেষ্টাও ব্যর্থ হলে রোববার বিকালে তিনি দেশে ফেরেন। এদিন বিকাল ৪টা ৫৫ মিনিটে এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে ঢাকায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান ডা. মুরাদ হাসান। তিনি যে ফ্লাইটে ঢাকায় ফেরেন, সেটির নম্বর ইকে ৫৮৬। বিমানবন্দরে নামার পর ট্রলি ব্যাগ নিয়ে তাকে একা একা বিমানবন্দরের আনুষ্ঠানিকতা সারতে দেখা যায়। তিনি অভ্যন্তরীণ লাউঞ্জ দিয়ে চুপিচুপি বেরিয়ে যান। এ সময় তার কাঁধে ঝুলানো ছিল সাইড ব্যাগ। পরনে ছিল ব্লু জিন্সের প্যান্ট, কালো মাস্ক, চোখে কালো ফ্রেমের চশমা এবং ফুল স্লিপ হুডি। বিমানবন্দরে অবস্থানকালীন

তার মাথা এবং পুরো মুখমণ্ডল ছিল ঢাকা। তিনি ৯ ডিসেম্বর রাতে কানাডার উদ্দেশে দেশ ছাড়েন। জানা যায়, বিমানবন্দরে নামার পর ডা. মুরাদ হাসানকে প্রথমে ইমিগ্রেশন অফিসে নেওয়া হয়। সেখানে ইমিগ্রেশন কাজ শেষে তিনি আসেন ভিআইপি লাউঞ্জে। সেখানে বেশ কিছুক্ষণ অবস্থানের পর বিমানবন্দর ত্যাগ করেন। সন্ধ্যা ৬টা ৩২ মিনিটে টার্মিনাল-২ (ভিআইপি গেটের পাশে) দিয়ে তিনি বেরিয়ে যান। পরে তিনি উত্তরা সাত নম্বর সেক্টরের একটি বাসায় উঠেন বলে জানা যায়। এর আগে রোববার সকালেই এমিরেটস এয়ারলাইন্সের ইকে-৫৮২ নম্বর ফ্লাইটে দুবাই থেকে তার ঢাকায় পৌঁছার কথা ছিল। কিন্তু ওই ফ্লাইটে তিনি আসেননি। সকাল ৭টা ৫৬ মিনিটের ওই ফ্লাইটে তার আসার খবরে সাংবাদিকরা ভোর থেকেই ভিড়

করেন হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে। কিন্তু নির্ধারিত বিমানটি অবতরণ করলেও এই ফ্লাইটে ডা. মুরাদ হাসান আসেননি। তবে ওই সময় ডা. মুরাদ হাসানকে গ্রেফতারের দাবিতে বিমানবন্দরের সামনে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন বিক্ষুব্ধরা। এ সময় তারা নানা ধরনের স্লোগন দেন। একপর্যায়ে বিমানবন্দর থানা পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। বিক্ষোভের বিষয়ে জানতে চাইলে বিমানবন্দর থানার এসআই সাজ্জাদ শাকিল বলেন, কিছু লোক সড়কে দাঁড়িয়ে স্লোগান দিচ্ছিল। আমরা তাদের সরিয়ে দিয়েছি। বিক্ষোভকারীরা জানান, ডা. মুরাদ হাসান আমাদের মা-বোনের ইজ্জত নিয়ে কটূক্তি করেছে। তার অনেক দুর্নীতি আছে। তাকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই থলের বিড়াল বেরিয়ে আসবে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাকে গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি। সূত্র জানায়, কানাডায় প্রবেশে ব্যর্থ

হওয়ার পর দুবাইয়ের ভিসা পাওয়ার চেষ্টা করছিলেন ডা. মুরাদ। কিন্তু সেই চেষ্টায়ও ব্যর্থ তিনি। এ কারণে দেশে ফেরার সিদ্ধান্ত নেন বিতর্কিত এই রাজনীতিক। ৯ ডিসেম্বর রাতে কানাডার উদ্দেশে দেশত্যাগ করেছিলেন তিনি। শুক্রবার দুপুর ১টা ৩১ মিনিটে টরেন্টো পিয়ারসন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেন। এ সময় কানাডা ইমিগ্রেশন এবং বর্ডার সার্ভিস এজেন্সির কর্মকর্তারা তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যান। দীর্ঘ সময় তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এ সময় তার কাছে করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট চাওয়া হয়। কিন্ত তিনি তা দেখাতে পারেননি। এছাড়া জিজ্ঞাসাবাদে তাকে বাংলাদেশের সাম্প্রতিক ঘটনাপ্রবাহ সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়। বিপুলসংখ্যক কানাডিয়ান নাগরিক কানাডায় তার প্রবেশের ব্যাপারে আপত্তি জানিয়ে সরকারের কাছে আবেদন করেছেন বলেও

তাকে জানানো হয়। পরে তাকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইগামী একটি ফ্লাইটে তুলে দেওয়া হয়। দুবাইয়ে নামার পর তিনি ভিসা সংগ্রহ করে ইমিগ্রেশন পার হয়ে সেখানে থেকে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু তাকে সেই সুযোগ দেওয়া হয়নি। সম্প্রতি এক চিত্রনায়িকার সঙ্গে ডা. মুরাদের অশালীন ফোনালাপ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এরপর জামালপুর-৪ (সরিষাবাড়ী) আসনের এই সংসদ-সদস্যকে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগের নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ৭ ডিসেম্বর তিনি পদত্যাগ করলে ওইদিন রাতেই তার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। একই দিনে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের এক জরুরি সভায় মুরাদ হাসানকে জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যাবিষয়ক সম্পাদকের পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া

হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ৮ ডিসেম্বর তাকে সরিষাবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্যপদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। ৯ ডিসেম্বর মুরাদ হাসানকে তার নিজ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্যপদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। এছাড়া মুরাদের আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্যপদ বাতিলের বিষয়েও দলের পরবর্তী কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানা গেছে।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


































শীর্ষ সংবাদ:
নিয়োগে দুর্নীতি: জীবন বীমার এমডির বিরুদ্ধে দুদকের মামলা মিহির ঘোষসহ নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবীতে গাইবান্ধায় সিপিবির বিক্ষোভ গাইবান্ধায় সেনাবাহিনীর ভূয়া ক্যাপ্টেন গ্রেফতার জগন্নাথপুরে সড়ক নির্মানের অভিযোগ এক ঠিকাদারের বিরুদ্ধে তারাকান্দায় অসহায় ও দুস্থদের মাঝে ছাত্রদলের খাবার বিতরণ দেবহাটায় অস্ত্র-গুলি ও ইয়াবা উদ্ধার আটক -১ রামগড়ে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বাগমারায় ভেদুর মোড় হতে নরদাশ পর্যন্ত পাকা রাস্তার শুভ উদ্বোধন সরকারি বিধিনিষেধ না মানায় শার্শায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা আদায় মধুখালীতে তিন মাসে ৪৩ টি গরু চুরি গাইবান্ধায় বঙ্গবন্ধু জেলা ভলিবল প্রতিযোগিতার উদ্বোধন গাইবান্ধায় শীতবস্ত্র বিতরণ রাজশাহীতে পুত্রের হাতে পিতা খুন বাগমারায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার রামগড়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার শীতবস্ত্র বিতরণ করেন ইউএনও ভাঃ উম্মে হাবিবা মজুমদার জগন্নাথপুরে জুয়ার আসরে পুলিশ দেখে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে নিখোঁজ এক ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় সিপিবি নেতা মিহির ঘোষসহ ৬ জন কারাগারে পিআইও’র মানহানির মামলায় গাইবান্ধার ৪ সাংবাদিকসহ ৫ জনের জামিন গাইবান্ধায় প্রগতিশীল ছাত্র জোটের মানববন্ধন চাঁপাইনবাবগঞ্জে সোনালী ব্যাংক লি. গোমস্তাপুর শাখায় শীতবস্ত্র বিতরণ