ঢাকা, Sunday 19 September 2021

পিআইডি এর নিয়ম অনুসারে আবেদিত

গাংনীর তেরাইল গ্রামের নোনার বিলে জলাবদ্ধতা নিরসনে গ্রামবাসীর ঐকমত্য

অবৈধভাবে পুকুর পাড় কেটে পানি নিস্কাশন করায় দু’গ্রামের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টিতে অসাধুচক্রের উস্কানী

প্রকাশিত : 03:32 AM, 17 September 2020 Thursday
110 বার পঠিত

| ডোনেট বিডি নিউজ ডেস্কঃ |

গাংনীর তেরাইল,মহব্বতপুর গ্রামের পাশ দিযে বয়ে যাওয়া নোনার বিলে জলাবদ্ধতা নিরসনে গ্রামবাসিরা ঐকমত্য প্রকাশ করেছে।দীর্ঘদিনযাবৎ তেরাইল গ্রামের কুঠি পাড়ার মাঠ জলাবদ্ধ থাকায় নানা মহলে আবেদন,অভিযোগ করেও কোন সুরাহা না হলে অবশেষে তেরাইল কুঠিপাড়া মোড়ে জলমগ্ন এলাকার তেরাইল মহব্বতপুর গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা এ মানববন্ধনের আয়োজন করে।
পরবর্তীতে স্থানীয় এমপি মহোদয়, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ,সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানের যৌথ উদ্যোগে সম্প্রতি জলাবদ্ধ বিলের পানি নিষ্কাশনে ড্রেজার মেশিন দিয়ে দখলীয় খালের পাড় কেটে দেয়া হয়। যথেষ্ট পানি বের না হওয়ায় তেরাইল ও পার্শ্ববর্তী ষোলটাকা গ্রামের জনপ্রতিনিধিদের সাথে আলাপ করে গত মঙ্গলবার সকালে তেরাইল ও

মহব্বতপুর গ্রামের লোকজন কোদাইল নিয়ে অবৈধ ভাবে সরকারী খাল দখল করে পুকুর খনন করায় সেসব খালের পাড় কেটে পানি নিষ্কাশন করেছে। ৪ হাজার বিঘা কৃষি জমি থেকে পানি নিষ্কাশন হওয়ায় উভয় গ্রামবাসী খুশী হলেও ষোলটাকা গ্রামের একশ্রেণির অসাধু চক্র দু’গ্রামের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টিতে নানা ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। তেরাইল গ্রামের লোকজন পুকুরের পাড় কাটতে গেলে ষোলটাকা গ্রামের কয়েকজন বাঁধা দেয় এবং অকথ্যভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে । একপর্যায়ে উভয় গ্রামের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। বামন্দী ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম বিশ্বাস জানান, আমি উভয় পক্ষের লোকজনকে

নিবৃত করতে চাইলেও ধাক্কাধাক্কি হয়।
এটাকে নিয়ে ষোলটাকা গ্রামের ওহিদুল ইসলাম, ময়নাল মেম্বরসহ কয়েকজন অসাধূচক্র দুৎগ্রামের মধ্যে শান্তি শৃংখলা নষ্ট করতে নানাভাবে হুমকি ধামকি দিয়ে পরিস্থিতি ঘোলাটে করছে। ষোলটাকা গ্রামের নিরীহ লোকজনকে উস্কানী দিয়ে মামলা , মানববন্ধন,এমনকি এমপি মহোদয়কে জড়িয়ে নানা কটুক্তি,ষড়যন্ত্র চালিয়ে পরিস্থিতি অশান্ত করে তুলেছে। সংঘর্ষ বাধাতে গ্রামবাসীর মধ্যে এসব অসাধূ ব্যক্তিরা মোটা অংকের চাঁদা আদায় করছে বলেও বিশ্বস্তসূত্রে জানা গেছে।এতে করে যে কোন সময় দু’গ্রামের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা দেখা দিয়েছে। কেউ কেউ প্রতিশোধ নিতে হুমকি দিয়ে বলছে, তেরাইল গ্রামের কয়েকজনকে মার্ডার না করে তারা ঘরে ফিরবে না।

এনিয়ে বামন্দী ইউপি মেম্বর জিয়াউর রহমান বলেন, এমপি মহোদয় ও সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যান মহোদয়ের নির্দেশে অবৈধ সরকারী খালে নির্মিত পুকুরের পাড় কেটে পানি বের করা হয়েছে। সেখানে কোন রকম মারামারী বা সংঘর্ষ হয়নি।
ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম বিশ্বাস জানান,পানি নিষ্কাশনের জন্য অবৈধ পুকুরের পাড় কাটা হয়েছে। পুকুর মালিকদের নেট দেয়াতে কোনরকম বাধা দেয়া হয়নি। আমার উপস্থিতিতে কোন হামলা বা মারামারি হয়নি। কথা কাটি হয়েছে মাত্র। আমরা উভয় গ্রামের নেতৃবৃন্দ এ সাথে বসে সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নিচ্ছি। এর মধ্যে এক শ্রেনির স্বার্থান্বেষী চক্র মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচি দিয়ে পরিস্থিতি খারাপের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। গাংনী উপজেলা নির্বাহী

অফিসার আর এম সেলিম শাহনেওয়াজ বলেন, অবৈধভাবে সরকারী খাল দখল করে পুকুর খনন করে পানি নিষ্কাশন বদ্ধ করতে চাইলে তা বরদাস্ত করা হবে না॥ তারপরও বিষয়টি সরেজমিনে খোঁজ খবর নিয়ে সমাধান করা হবে। তেরাইল গ্রামের অনেকেই জানান,জলাবদ্ধতার সমাধান করা না হলে পুকুর মালিক ও খাল দখলকারীদের সাথে যে কোন সময় বড় ধরনের সহিংসতা হতে পারে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি ডোনেট বাংলাদেশ'কে জানাতে ই-মেইল করুন- donetbd2010@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

ডোনেট বাংলাদেশ'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© 2021 সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। ডোনেট বাংলাদেশ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT