অবরোধ নয়, কাল থেকে মানববন্ধন - বর্ণমালা টেলিভিশন

১১ দফা দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে সড়ক অবরোধ করবেন না। তবে দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত রাজধানীর রামপুরা সড়কের দুপাশে দাঁড়িয়ে প্রতিদিন এক ঘণ্টা মানববন্ধন করবেন শিক্ষার্থীরা।

কাল থেকে শুরু হতে যাওয়া উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের ভোগান্তির কথা মাথায় রেখে সড়ক অবরোধের মতো কঠোর কর্মসূচি আপাতত প্রত্যাহার করে নিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

বুধবার দুপুর ২টার দিকে অবরোধ তুলে নেওয়ার ঘোষণার সময় নতুন এ কর্মসূচি দেন তারা।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলেন, আগামীকাল থেকে সারা দেশে এইচএসসি পরীক্ষা শুরু হচ্ছে। সকাল ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত পরীক্ষা। তাই তাদের যাতে ভোগান্তি না হয়, সে কারণে আমরা পরীক্ষা চলাকালে সড়ক অবরোধ করব না।

প্রতিদিন দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত রামপুরায় সড়কের দুপাশে দাঁড়িয়ে মানববন্ধন করব। ১১ দফা দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী, বুধবার বেলা ১১টায় শিক্ষার্থীরা সংঘবদ্ধ হয়ে রামপুরা ব্রিজের ওপর অবস্থান নেন। এ সময় শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন গণপরিবহণ থেকে যাত্রীদের নামিয়ে দিতে দেখা গেছে। পরে বাসগুলোকে ওই স্থানেই আটকে দেন তারা। এতে সড়কের দুপাশে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

ঢাকা আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ঢাকা ইমপেরিয়াল কলেজ, একরামুন্নেছা স্কুল অ্যান্ড কলেজসহ বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদের সড়কে দেখা গেছে।

তারা সড়কে অবস্থান নিয়ে মাঈনুদ্দিন নিহতের বিচারসহ ১১ দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন।

দুপুর ১২টায় রাজধানীর রামপুরায় শিক্ষার্থীরা

১১ দফা দাবি, প্রস্তাবনা ও সড়ক নীতিমালা উত্থাপন করেন। শিক্ষার্থীদের পক্ষে খিলগাঁও মডেল কলেজের শিক্ষার্থী সোহাগী সায়মা ও ঢাকা ইমপেরিয়াল কলেজের শিক্ষার্থী নাদিমুর রহমান জুয়েল এসব দাবি উত্থাপন করেন।

শিক্ষার্থীদের ১১ দফা দাবিগুলো হচ্ছে—

১. সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত নাঈম হাসান ও মাইনুদ্দিনের পরিবারকে যথাযথ ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। গুলিস্তান ও রামপুরায় পথচারী পারাপারের জন্য ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ করতে হবে।

২. সারা দেশের গণপরিবহণে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া নিশ্চিত করতে সরকারি প্রজ্ঞাপন জারি করতে হবে। এ জন্য দিন-রাত বা ছুটির দিনসহ কোনো শর্ত জুড়ে দেওয়া যাবে না। বর্ধিত বাসভাড়া প্রত্যাহার করতে হবে। সব রুটে বিআরটিসির বাস বাড়াতে হবে।

৩. সব ধরনের পরিবহণে নারীদের অবাধ যাত্রা

নিশ্চিত করতে হবে। তাদের সঙ্গে সৌজন্য ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

৪. লাইসেন্সবিহীন চালককে নিয়োগদানকারী প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তির বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে। গাড়ির নিবন্ধন, ফিটনেস কার্যক্রম ও লাইসেন্স দানে বিআরটিএর দুর্নীতির বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে।

৫. সব সড়কে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা করতে হবে। ট্রাফিক পুলিশের সংখ্যা বৃদ্ধি করতে হবে। ট্রাফিক পুলিশের ঘুষ দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে।

৬. সব রুটে প্রতিযোগিতা বন্ধে এক গ্রুপ বা কোম্পানির মাধ্যমে সব বাস চালানোর ব্যবস্থা করতে হবে। বাস অনুযায়ী মালিকদের মধ্যে লাভের টাকা বণ্টনের নিয়ম করতে হবে।

৭. শ্রমিকের নিয়োগপত্রে পরিচয় নিশ্চিত করতে হবে। বাসচালক ও হেলপারদের চুক্তির পরিবর্তে সব গণপরিবহণ টিকিট পদ্ধতিতে চালানোর ব্যবস্থা করতে হবে।

শ্রমিকদের জন্য বিশ্রামাগার ও টয়লেটের ব্যবস্থা করতে হবে।

৮. গাড়ি ও চালকের কর্মঘণ্টা এক নাগারে ছয় ঘণ্টার বেশি হতে পারবে না। বাসে দুজন চালক ও দুজন সহকারী থাকতে হবে। পর্যাপ্ত বাস টার্মিনাল তৈরি করতে হবে। শ্রমিকদের জন্য যথাযথ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে।

১০. যাত্রী ও পরিবহণ শ্রমিকদের মতামত নিয়ে সড়ক পরিবহণ আইন সংস্কার করতে হবে এবং এর বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে। ট্রাক ও ময়লার গাড়ি চলাচলের জন্য রাত ১২টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত নির্ধারণ করতে হবে।

১১. মাদক প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। নিয়মিত ডোপ টেস্ট ও কাউন্সেলিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে।

সড়ক অবরোধের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রামপুরা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম। তিনি

টেলিফোনে বলেন, শিক্ষার্থীরা আজও সড়কে অবস্থান নিয়ে আছেন। তারা বাস থেকে যাত্রীদের নামিয়ে দিচ্ছেন।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, নিরাপদ সড়কের দাবিতে মঙ্গলবার দুপুর ২টা পর্যন্ত তারা অবরোধ কর্মসূচি পালন করেছেন। গতকালই তারা ঘোষণা দিয়েছিলেন যে, আজ বেলা ১১টা থেকে একই দাবিতে আন্দোলন করবেন। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী তারা আজ আন্দোলনে নেমেছেন। সড়ক যতক্ষণ শিক্ষার্থীদের জন্য নিরাপদ না হবে, ততক্ষণ আন্দোলন চলবে।

প্রসঙ্গত সোমবার রামপুরায় অনাবিল পরিবহণের একটি বাসের চাপায় এসএসসি শিক্ষার্থী মাঈনুদ্দিন (১৭) নিহত হয়। সোমবার রাত ১১টার দিকে রামপুরাবাজার ও টিভি সেন্টারের মাঝামাঝি সোনালী ব্যাংকের সামনে ডিআইটি রোডে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর ১২টি

বাসে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছেন বিক্ষুব্ধরা। গণপিটুনিতে বাসচালক জ্ঞান হারান। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চালকের সহকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

নিহত মাঈনুদ্দিন স্থানীয় একরামুন্নেছা স্কুল থেকে এবার এসএসসি দিয়েছে।

১১ দফা দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে সড়ক অবরোধ করবেন না। তবে দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত রাজধানীর রামপুরা সড়কের দুপাশে দাঁড়িয়ে প্রতিদিন এক ঘণ্টা মানববন্ধন করবেন শিক্ষার্থীরা।

কাল থেকে শুরু হতে যাওয়া উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের ভোগান্তির কথা মাথায় রেখে সড়ক অবরোধের মতো কঠোর কর্মসূচি আপাতত প্রত্যাহার করে নিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

বুধবার দুপুর ২টার দিকে অবরোধ তুলে নেওয়ার ঘোষণার সময় নতুন এ কর্মসূচি দেন তারা।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলেন, আগামীকাল থেকে সারা দেশে এইচএসসি পরীক্ষা শুরু হচ্ছে। সকাল ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত পরীক্ষা। তাই তাদের যাতে ভোগান্তি না হয়, সে কারণে আমরা পরীক্ষা চলাকালে সড়ক অবরোধ করব না।

প্রতিদিন দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত রামপুরায় সড়কের দুপাশে দাঁড়িয়ে মানববন্ধন করব। ১১ দফা দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী, বুধবার বেলা ১১টায় শিক্ষার্থীরা সংঘবদ্ধ হয়ে রামপুরা ব্রিজের ওপর অবস্থান নেন। এ সময় শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন গণপরিবহণ থেকে যাত্রীদের নামিয়ে দিতে দেখা গেছে। পরে বাসগুলোকে ওই স্থানেই আটকে দেন তারা। এতে সড়কের দুপাশে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

ঢাকা আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ঢাকা ইমপেরিয়াল কলেজ, একরামুন্নেছা স্কুল অ্যান্ড কলেজসহ বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদের সড়কে দেখা গেছে।

তারা সড়কে অবস্থান নিয়ে মাঈনুদ্দিন নিহতের বিচারসহ ১১ দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন।

দুপুর ১২টায় রাজধানীর রামপুরায় শিক্ষার্থীরা

১১ দফা দাবি, প্রস্তাবনা ও সড়ক নীতিমালা উত্থাপন করেন। শিক্ষার্থীদের পক্ষে খিলগাঁও মডেল কলেজের শিক্ষার্থী সোহাগী সায়মা ও ঢাকা ইমপেরিয়াল কলেজের শিক্ষার্থী নাদিমুর রহমান জুয়েল এসব দাবি উত্থাপন করেন।

শিক্ষার্থীদের ১১ দফা দাবিগুলো হচ্ছে—

১. সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত নাঈম হাসান ও মাইনুদ্দিনের পরিবারকে যথাযথ ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। গুলিস্তান ও রামপুরায় পথচারী পারাপারের জন্য ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ করতে হবে।

২. সারা দেশের গণপরিবহণে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া নিশ্চিত করতে সরকারি প্রজ্ঞাপন জারি করতে হবে। এ জন্য দিন-রাত বা ছুটির দিনসহ কোনো শর্ত জুড়ে দেওয়া যাবে না। বর্ধিত বাসভাড়া প্রত্যাহার করতে হবে। সব রুটে বিআরটিসির বাস বাড়াতে হবে।

৩. সব ধরনের পরিবহণে নারীদের অবাধ যাত্রা

নিশ্চিত করতে হবে। তাদের সঙ্গে সৌজন্য ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

৪. লাইসেন্সবিহীন চালককে নিয়োগদানকারী প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তির বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে। গাড়ির নিবন্ধন, ফিটনেস কার্যক্রম ও লাইসেন্স দানে বিআরটিএর দুর্নীতির বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে।

৫. সব সড়কে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা করতে হবে। ট্রাফিক পুলিশের সংখ্যা বৃদ্ধি করতে হবে। ট্রাফিক পুলিশের ঘুষ দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে।

৬. সব রুটে প্রতিযোগিতা বন্ধে এক গ্রুপ বা কোম্পানির মাধ্যমে সব বাস চালানোর ব্যবস্থা করতে হবে। বাস অনুযায়ী মালিকদের মধ্যে লাভের টাকা বণ্টনের নিয়ম করতে হবে।

৭. শ্রমিকের নিয়োগপত্রে পরিচয় নিশ্চিত করতে হবে। বাসচালক ও হেলপারদের চুক্তির পরিবর্তে সব গণপরিবহণ টিকিট পদ্ধতিতে চালানোর ব্যবস্থা করতে হবে।

শ্রমিকদের জন্য বিশ্রামাগার ও টয়লেটের ব্যবস্থা করতে হবে।

৮. গাড়ি ও চালকের কর্মঘণ্টা এক নাগারে ছয় ঘণ্টার বেশি হতে পারবে না। বাসে দুজন চালক ও দুজন সহকারী থাকতে হবে। পর্যাপ্ত বাস টার্মিনাল তৈরি করতে হবে। শ্রমিকদের জন্য যথাযথ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে।

১০. যাত্রী ও পরিবহণ শ্রমিকদের মতামত নিয়ে সড়ক পরিবহণ আইন সংস্কার করতে হবে এবং এর বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে। ট্রাক ও ময়লার গাড়ি চলাচলের জন্য রাত ১২টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত নির্ধারণ করতে হবে।

১১. মাদক প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। নিয়মিত ডোপ টেস্ট ও কাউন্সেলিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে।

সড়ক অবরোধের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রামপুরা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম। তিনি

টেলিফোনে বলেন, শিক্ষার্থীরা আজও সড়কে অবস্থান নিয়ে আছেন। তারা বাস থেকে যাত্রীদের নামিয়ে দিচ্ছেন।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, নিরাপদ সড়কের দাবিতে মঙ্গলবার দুপুর ২টা পর্যন্ত তারা অবরোধ কর্মসূচি পালন করেছেন। গতকালই তারা ঘোষণা দিয়েছিলেন যে, আজ বেলা ১১টা থেকে একই দাবিতে আন্দোলন করবেন। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী তারা আজ আন্দোলনে নেমেছেন। সড়ক যতক্ষণ শিক্ষার্থীদের জন্য নিরাপদ না হবে, ততক্ষণ আন্দোলন চলবে।

প্রসঙ্গত সোমবার রামপুরায় অনাবিল পরিবহণের একটি বাসের চাপায় এসএসসি শিক্ষার্থী মাঈনুদ্দিন (১৭) নিহত হয়। সোমবার রাত ১১টার দিকে রামপুরাবাজার ও টিভি সেন্টারের মাঝামাঝি সোনালী ব্যাংকের সামনে ডিআইটি রোডে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর ১২টি

বাসে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছেন বিক্ষুব্ধরা। গণপিটুনিতে বাসচালক জ্ঞান হারান। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চালকের সহকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

নিহত মাঈনুদ্দিন স্থানীয় একরামুন্নেছা স্কুল থেকে এবার এসএসসি দিয়েছে।

অবরোধ নয়, কাল থেকে মানববন্ধন

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ১ ডিসেম্বর, ২০২১ | ৫:৫৭ 77 ভিউ
১১ দফা দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে সড়ক অবরোধ করবেন না। তবে দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত রাজধানীর রামপুরা সড়কের দুপাশে দাঁড়িয়ে প্রতিদিন এক ঘণ্টা মানববন্ধন করবেন শিক্ষার্থীরা। কাল থেকে শুরু হতে যাওয়া উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের ভোগান্তির কথা মাথায় রেখে সড়ক অবরোধের মতো কঠোর কর্মসূচি আপাতত প্রত্যাহার করে নিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। বুধবার দুপুর ২টার দিকে অবরোধ তুলে নেওয়ার ঘোষণার সময় নতুন এ কর্মসূচি দেন তারা। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলেন, আগামীকাল থেকে সারা দেশে এইচএসসি পরীক্ষা শুরু হচ্ছে। সকাল ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত পরীক্ষা। তাই তাদের যাতে ভোগান্তি না হয়, সে কারণে আমরা পরীক্ষা চলাকালে সড়ক অবরোধ করব না।

প্রতিদিন দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত রামপুরায় সড়কের দুপাশে দাঁড়িয়ে মানববন্ধন করব। ১১ দফা দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী, বুধবার বেলা ১১টায় শিক্ষার্থীরা সংঘবদ্ধ হয়ে রামপুরা ব্রিজের ওপর অবস্থান নেন। এ সময় শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন গণপরিবহণ থেকে যাত্রীদের নামিয়ে দিতে দেখা গেছে। পরে বাসগুলোকে ওই স্থানেই আটকে দেন তারা। এতে সড়কের দুপাশে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ঢাকা আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ঢাকা ইমপেরিয়াল কলেজ, একরামুন্নেছা স্কুল অ্যান্ড কলেজসহ বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদের সড়কে দেখা গেছে। তারা সড়কে অবস্থান নিয়ে মাঈনুদ্দিন নিহতের বিচারসহ ১১ দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন। দুপুর ১২টায় রাজধানীর রামপুরায় শিক্ষার্থীরা

১১ দফা দাবি, প্রস্তাবনা ও সড়ক নীতিমালা উত্থাপন করেন। শিক্ষার্থীদের পক্ষে খিলগাঁও মডেল কলেজের শিক্ষার্থী সোহাগী সায়মা ও ঢাকা ইমপেরিয়াল কলেজের শিক্ষার্থী নাদিমুর রহমান জুয়েল এসব দাবি উত্থাপন করেন। শিক্ষার্থীদের ১১ দফা দাবিগুলো হচ্ছে— ১. সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত নাঈম হাসান ও মাইনুদ্দিনের পরিবারকে যথাযথ ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। গুলিস্তান ও রামপুরায় পথচারী পারাপারের জন্য ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ করতে হবে। ২. সারা দেশের গণপরিবহণে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া নিশ্চিত করতে সরকারি প্রজ্ঞাপন জারি করতে হবে। এ জন্য দিন-রাত বা ছুটির দিনসহ কোনো শর্ত জুড়ে দেওয়া যাবে না। বর্ধিত বাসভাড়া প্রত্যাহার করতে হবে। সব রুটে বিআরটিসির বাস বাড়াতে হবে। ৩. সব ধরনের পরিবহণে নারীদের অবাধ যাত্রা

নিশ্চিত করতে হবে। তাদের সঙ্গে সৌজন্য ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। ৪. লাইসেন্সবিহীন চালককে নিয়োগদানকারী প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তির বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে। গাড়ির নিবন্ধন, ফিটনেস কার্যক্রম ও লাইসেন্স দানে বিআরটিএর দুর্নীতির বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে। ৫. সব সড়কে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা করতে হবে। ট্রাফিক পুলিশের সংখ্যা বৃদ্ধি করতে হবে। ট্রাফিক পুলিশের ঘুষ দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে। ৬. সব রুটে প্রতিযোগিতা বন্ধে এক গ্রুপ বা কোম্পানির মাধ্যমে সব বাস চালানোর ব্যবস্থা করতে হবে। বাস অনুযায়ী মালিকদের মধ্যে লাভের টাকা বণ্টনের নিয়ম করতে হবে। ৭. শ্রমিকের নিয়োগপত্রে পরিচয় নিশ্চিত করতে হবে। বাসচালক ও হেলপারদের চুক্তির পরিবর্তে সব গণপরিবহণ টিকিট পদ্ধতিতে চালানোর ব্যবস্থা করতে হবে।

শ্রমিকদের জন্য বিশ্রামাগার ও টয়লেটের ব্যবস্থা করতে হবে। ৮. গাড়ি ও চালকের কর্মঘণ্টা এক নাগারে ছয় ঘণ্টার বেশি হতে পারবে না। বাসে দুজন চালক ও দুজন সহকারী থাকতে হবে। পর্যাপ্ত বাস টার্মিনাল তৈরি করতে হবে। শ্রমিকদের জন্য যথাযথ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। ১০. যাত্রী ও পরিবহণ শ্রমিকদের মতামত নিয়ে সড়ক পরিবহণ আইন সংস্কার করতে হবে এবং এর বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে। ট্রাক ও ময়লার গাড়ি চলাচলের জন্য রাত ১২টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত নির্ধারণ করতে হবে। ১১. মাদক প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। নিয়মিত ডোপ টেস্ট ও কাউন্সেলিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে। সড়ক অবরোধের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রামপুরা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম। তিনি

টেলিফোনে বলেন, শিক্ষার্থীরা আজও সড়কে অবস্থান নিয়ে আছেন। তারা বাস থেকে যাত্রীদের নামিয়ে দিচ্ছেন। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, নিরাপদ সড়কের দাবিতে মঙ্গলবার দুপুর ২টা পর্যন্ত তারা অবরোধ কর্মসূচি পালন করেছেন। গতকালই তারা ঘোষণা দিয়েছিলেন যে, আজ বেলা ১১টা থেকে একই দাবিতে আন্দোলন করবেন। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী তারা আজ আন্দোলনে নেমেছেন। সড়ক যতক্ষণ শিক্ষার্থীদের জন্য নিরাপদ না হবে, ততক্ষণ আন্দোলন চলবে। প্রসঙ্গত সোমবার রামপুরায় অনাবিল পরিবহণের একটি বাসের চাপায় এসএসসি শিক্ষার্থী মাঈনুদ্দিন (১৭) নিহত হয়। সোমবার রাত ১১টার দিকে রামপুরাবাজার ও টিভি সেন্টারের মাঝামাঝি সোনালী ব্যাংকের সামনে ডিআইটি রোডে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর

১২টি বাসে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছেন বিক্ষুব্ধরা। গণপিটুনিতে বাসচালক জ্ঞান হারান। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চালকের সহকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। নিহত মাঈনুদ্দিন স্থানীয় একরামুন্নেছা স্কুল থেকে এবার এসএসসি দিয়েছে।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


































শীর্ষ সংবাদ:
নিয়োগে দুর্নীতি: জীবন বীমার এমডির বিরুদ্ধে দুদকের মামলা মিহির ঘোষসহ নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবীতে গাইবান্ধায় সিপিবির বিক্ষোভ গাইবান্ধায় সেনাবাহিনীর ভূয়া ক্যাপ্টেন গ্রেফতার জগন্নাথপুরে সড়ক নির্মানের অভিযোগ এক ঠিকাদারের বিরুদ্ধে তারাকান্দায় অসহায় ও দুস্থদের মাঝে ছাত্রদলের খাবার বিতরণ দেবহাটায় অস্ত্র-গুলি ও ইয়াবা উদ্ধার আটক -১ রামগড়ে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বাগমারায় ভেদুর মোড় হতে নরদাশ পর্যন্ত পাকা রাস্তার শুভ উদ্বোধন সরকারি বিধিনিষেধ না মানায় শার্শায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা আদায় মধুখালীতে তিন মাসে ৪৩ টি গরু চুরি গাইবান্ধায় বঙ্গবন্ধু জেলা ভলিবল প্রতিযোগিতার উদ্বোধন গাইবান্ধায় শীতবস্ত্র বিতরণ রাজশাহীতে পুত্রের হাতে পিতা খুন বাগমারায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার রামগড়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার শীতবস্ত্র বিতরণ করেন ইউএনও ভাঃ উম্মে হাবিবা মজুমদার জগন্নাথপুরে জুয়ার আসরে পুলিশ দেখে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে নিখোঁজ এক ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় সিপিবি নেতা মিহির ঘোষসহ ৬ জন কারাগারে পিআইও’র মানহানির মামলায় গাইবান্ধার ৪ সাংবাদিকসহ ৫ জনের জামিন গাইবান্ধায় প্রগতিশীল ছাত্র জোটের মানববন্ধন চাঁপাইনবাবগঞ্জে সোনালী ব্যাংক লি. গোমস্তাপুর শাখায় শীতবস্ত্র বিতরণ