যাহা করিবার এখনই করিতে হইবে

২ নভেম্বর ২০১৭, ৮:৪৩ পূর্বাহ্ণ  -->| নিউজটি পড়া হয়েছে : 307 বার

bornomalatv

গ্রিনহাউস গ্যাসের জন্য ক্রমশ উত্তপ্ত হইয়া উঠিতেছে এই ধরিত্রী—ইহার স্বপক্ষে প্রকাশ পাইতেছে নিত্যনূতন তথ্য। গ্রিনহাউস গ্যাসের মধ্যে সবচাইতে বেশি উচ্চারিত নামটি হইল কার্বন ডাই-অক্সাইড। সমপ্রতি বিশ্বের আবহাওয়া সংস্থা (ডব্লিউএমও) জানাইয়াছে, গত বত্সর বিশ্বের বায়ুমণ্ডলে যে পরিমাণে কার্বন ডাই-অক্সাইড জমা হইয়াছে, তাহা বিগত ৮ লক্ষ বত্সরের মধ্যে সর্বোচ্চ। কেবল তাহাই নহে, গত বত্সর যে পরিমাণ কার্বন ডাই-অক্সাইড নির্গত হইয়াছে, তাহা বিগত এক দশকের গড় হিসাবের তুলনায় ৫০ শতাংশ বেশি। বিশ্বের ৫১টি দেশের গ্রিনহাউস গ্যাস নিঃসরণের তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করিয়া এই প্রতিবেদন দিয়াছে ডব্লিউএমও।

এই শতাব্দীর মধ্যে বিশ্বের গড় তাপমাত্রা ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি বাড়িতে না দেওয়ার পরিকল্পনা করিয়াছে জাতিসংঘ। এইক্ষেত্রে যে আশঙ্কার কথাটি বিশ্বের আবহাওয়া ও জলবায়ু বিশেষজ্ঞরা বারংবার উচ্চারণ করিতেছেন, তাহা হইল—কার্বন নিঃসরণ বৃদ্ধির এই ধারা অব্যাহত থাকিলে ধরিত্রীকে রক্ষার নিমিত্ত জাতিসংঘের ওই অতীব গুরুত্বপূর্ণ পরিকল্পনার বাস্তবায়ন অসম্ভব হইয়া উঠিবে। জাতিসংঘের প্রতিষ্ঠান ইন্টারগভর্নমেন্টাল প্যানেল অন ক্লাইমেট চেঞ্জ বা আইপিসিসি’র ২০১৩-১৫ সালের একটি মূল্যায়ন প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশ বত্সরে মাথাপিছু ০.৩ টন গ্রিনহাউস গ্যাস নিঃসরণ করে। অন্যদিকে, যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষেত্রে ইহা বত্সরে মাথাপিছু ১৭-১৮ টন; ইউরোপের বিভিন্ন দেশে যথাক্রমে ৮, ১০, ১২ টন; অস্ট্রেলিয়া ২০ টনের বেশি; চীন ৬ টন; আর ভারত দুই টনের কাছাকাছি গ্রিনহাউস গ্যাস নিঃসরণ করে। এইদিকে বিশ্বব্যাংকের ২০১৫ সালের গ্লোবাল কার্বন অ্যাটলাস শীর্ষক প্রতিবেদনে বলা হইয়াছে, দুই বত্সর পূর্বে বিশ্বে কার্বন নিঃসরণ হইয়াছে ৩৬ হাজার ২৬২ মেট্রিক টন। এই হিসাব অনুযায়ী সবচাইতে বেশি কার্বন নিঃসরণ করিয়াছে চীন, যাহার পরিমাণ ১০ হাজার ৩৫৭ টন। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত যথাক্রমে ৫ হাজার ৪১৪ টন ও ২ হাজার ২৭৪ টন নিঃসরণ করিয়াছে। আর বাংলাদেশের নিঃসরণ করা কার্বনের পরিমাণ ছিল মাত্র ৭৭ টন। অত্যন্ত তাত্পর্যপূর্ণ তথ্য হইল—বিশ্বের আবহাওয়া সংস্থা বলিতেছে, সর্বশেষ বরফ যুগের তুলনায় ৭০ বত্সর ধরিয়া ১০০ গুণ বেশি কার্বন ডাই-অক্সাইড বায়ুমণ্ডলে মিশিতেছে। বলিবার অপেক্ষা রাখে না, এই গ্যাসসহ অন্যান্য গ্যাসের এই দ্রুত বৃদ্ধি জলবায়ুতে কল্পনাতীত পরিবর্তন আনিবে। ইহার প্রতিঘাতে বাস্তুসংস্থান ও অর্থনীতিতে পড়িবে ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব। এই ব্যাপারে ব্রিটেনের বিখ্যাত ম্যাগাজিন দ্য ল্যানসেট গত মঙ্গলবার জানাইয়াছে, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে বিশ্বব্যাপী উদ্বাস্তু হইতে পারে ১০০ কোটির বেশি মানুষ। এইদিকে বিশ্বব্যাপী দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে গত বত্সর আর্থিক ক্ষতি হইয়াছে ১২৯ বিলিয়ন ডলার।


একটিই ছাদ এই ধরিত্রীর। দুর্যোগ এইখানে কাহারো একার জন্য আসিবে না। এই বিপদ হইতে রক্ষা পাইতে যাহা করণীয়, তাহা আগামীতে নহে, করিতে হইবে এখনই। এমনিতেই ভূ-প্রাকৃতিকভাবে বাংলাদেশ দুর্যোগপ্রবণ দেশ। সেই দুর্যোগের চরিত্রের যদি সব দিক দিয়াই নেতিবাচক পরিবর্তন ঘটে, তবে তাহা আমাদের উন্নয়ন ও অবকাঠামোর ব্যাপক ক্ষতিসাধন করিবে বৈকি। সুতরাং আমাদের উন্নয়ন পরিকল্পনাও সাজাইতে হইবে নূতন করিয়া।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
ডোনেট স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা আর্ত মানবতার সেবা মূলক প্রতিষ্ঠান। ডোনেট স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম, সরকার ও রাষ্ট্ররিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোন মন্তব্য না করার জন্য বর্নমালা টেলিভিশনের পাঠক ও সুভাকাঙ্খিদের বিশেষ ভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোন ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।
পাঠকের মন্তব্য
Advertisement
সম্পাদকীয়

যাহা করিবার এখনই করিতে হইবে

গ্রিনহাউস গ্যাসের জন্য ক্রমশ উত্তপ্ত হইয়া উঠিতেছে এই ধরিত্রী—ইহার স্বপক্ষে প্রকাশ পাইতেছে নিত্যনূতন তথ্য। গ্রিনহাউস গ্যাসের মধ্যে সবচাইতে বেশি উচ্চারিত নামটি হইল কার্বন ডাই-অক্সাইড। সমপ্রতি... বিস্তারিত
জনমত জরিপ

সংবিধান মোতাবেক নীতিমালা প্রণয়ন করে সর্বোচ্চ আদালতের বিচারপতি নিয়োগের দাবি জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি। আপনি কি এ দাবির সঙ্গে একমত?

Loading ... Loading ...
Developed By : Donet IT