মৃত মেয়ের ফেসবুকের দখল পেলেন না বাবা-মা

৩ জুন ২০১৭, ৪:২৯ অপরাহ্ণ  -->| নিউজটি পড়া হয়েছে : 238 বার

মেয়ের মৃত্যুর কারণ জানতে বাবা-মা চেয়েছিলেন তার ফেসবুক পোস্ট এবং মেসেজ ঘেঁটে দেখতে ৷ এজন্য ফেসবুকের শরণাপন্ন হন তারা ৷ ফেসবুক দিতে অস্বীকার করলে হাজির হন আদালতে ৷ কিন্তু আদালত তাদের বিপক্ষে রায় দিয়েছেন ৷ ট্রামের ধাক্কায় মেয়ের

মৃত্যু হয়েছে সেই ২০১২ সালে৷ কিন্তু সেটা কি নিছক দুর্ঘটনা ছিল নাকি আত্মহত্যা তা নিশ্চিত হতে পারেননি বাবা-মা ৷ ১৫ বছর বয়সি কিশোরীর অভিভাবকরা তাই চেয়েছিলেন মৃত সন্তানের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে প্রবেশের অধিকার, যাতে বিভিন্ন জনের সঙ্গে তার চ্যাট এবং পোস্ট ও মন্তব্য ঘেঁটে তারা দেখতে পারেন যে মেয়ে কোথাও কখনো আত্মহত্যার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিল কিনা ৷


ফেসবুক অবশ্য তাদের সেই অধিকার দেয়নি৷ ফলে বিষয়টি গড়ায় আদালতে৷ ২০১৫ সালে বার্লিনের নিম্ন আদালত অভিভাবকের পক্ষে রায় দেন৷ কেননা, আদালতের বিবেচনায় সেই কিশোরীর ফেসবুক পোস্ট এবং মন্তব্যকে তার ডায়েরির সঙ্গে তুলনা করা হয় এবং সেটা অভিভাবকরা পড়তে পারেন বলে জানায়৷ কিন্তু ফেসবুক সেই যুক্তি মানেনি৷ ফলে বিষয়টি গড়ায় বার্লিনের আপিল আদালতে৷

গত বুধবার আপিল আদালত বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের পক্ষে রায় দিয়েছে৷ ফেসবুক আদালতে জানায় যে, কিশোরীর অ্যাকাউন্টে তার অভিভাবকের প্রবেশের সুযোগ দিলে যারা তার সঙ্গে চ্যাট করেছিল তাদের ব্যক্তিগত গোপনীয়তার অধিকার ক্ষুণ্ন হবে৷ আদালত এই যুক্তি মেনে নিয়েছেন৷

তবে বিষয়টি এত জলদি সুরাহা হয়ে যাচ্ছে, এমনটা ভাবার কোনো কারণ নেই৷ বরং গণমাধ্যম জানাচ্ছে, মৃত সন্তানের ফেসবুকে প্রবেশের অধিকার সংক্রান্ত এই মামলা জার্মানির সর্বোচ্চ আদালত অবধি গড়াতে পারে৷ ফেসবুক অবশ্য বলেছে, তারা মৃত কিশোরীর পরিবারের আবেগের দিকটাও বোঝে৷ ফলে ভবিষ্যতে হয়ত এমন একটা উপায় বের করা যেতে পারে যাতে পরিবারের দাবিও পূরণ হবে আবার অন্যদের ব্যক্তিগত গোপনীয়তার অধিকারও সুরক্ষিত হবে৷ কিন্তু সেটা কীভাবে সম্ভব তা বিস্তারিত এখনো জানায়নি ফেসবুক৷

উল্লেখ্য, ফেক নিউজসহ নানা ইস্যুতে গত কয়েক মাস ধরেই জার্মানিতে আলোচনায় রয়েছে ফেসবুক৷ বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটিকে আরো নিয়মনীতির মধ্যে আনতে সরকার উদ্যোগী হলেও অনেকক্ষেত্রেই আদালত প্রতিষ্ঠানটির পক্ষেই রায় দিচ্ছে৷ কিছুদিন আগে চ্যান্সেলর ম্যার্কেলের সঙ্গে এক শরণার্থীর ছবির অপব্যবহার রুখতে সেই শরণার্থী মামলা করলে রায় ফেসবুকের পক্ষে যায়৷ ডিডব্লিউ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
ডোনেট স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা আর্ত মানবতার সেবা মূলক প্রতিষ্ঠান। ডোনেট স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম, সরকার ও রাষ্ট্ররিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোন মন্তব্য না করার জন্য বর্নমালা টেলিভিশনের পাঠক ও সুভাকাঙ্খিদের বিশেষ ভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোন ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।
পাঠকের মন্তব্য
Advertisement
সম্পাদকীয়

যাহা করিবার এখনই করিতে হইবে

গ্রিনহাউস গ্যাসের জন্য ক্রমশ উত্তপ্ত হইয়া উঠিতেছে এই ধরিত্রী—ইহার স্বপক্ষে প্রকাশ পাইতেছে নিত্যনূতন তথ্য। গ্রিনহাউস গ্যাসের মধ্যে সবচাইতে বেশি উচ্চারিত নামটি হইল কার্বন ডাই-অক্সাইড। সমপ্রতি... বিস্তারিত
জনমত জরিপ

সংবিধান মোতাবেক নীতিমালা প্রণয়ন করে সর্বোচ্চ আদালতের বিচারপতি নিয়োগের দাবি জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি। আপনি কি এ দাবির সঙ্গে একমত?

Loading ... Loading ...
Developed By : Donet IT