নিজ চোখে দেখা রোহিঙ্গা শরাণার্থী ও তাদের বাঁচার আর্তনাদ 

১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৯:২৫ অপরাহ্ণ  -->| নিউজটি পড়া হয়েছে : 173 বার

চার লক্ষ রোহিঙ্গা,চার লক্ষ করুন ইতিহাস,কোন ঘটনাকে আরেকটি ঘটনার উপরে স্থান দেয়ার সুযোগ নেই।অমানবিক,অমানুষিক,নৃশংস, ভয়ানক,মানবেতর,নির্মম,কান্না,আহাজারি, আকাশ-বাতাস ভারী,এসব শব্দ দিয়ে এই নির্যাতন আর দুর্দশার চিত্রায়ন অসম্ভব।

দূর্বল শরীর নিয়ে হিট স্ট্রোকে একজন লোক কাদামাটিতে গড়াগড়ি করছে মিনিট কয়েক পরেই মারা পড়বে এই দৃশ্য দেখা ছাড়া করার কিছুই নেই।শুধু এটি নয়,এমন দৃশ্য বহু।পিপাসায় কাতর একটি শিশু জমে থাকা ময়লাও দূর্গন্ধযুক্ত পানি পান করছে!এমন দৃশ্য অগণিত।গর্ভবতী মহিলা কাদা মাটি আর খোলা আকাশের নিচে সন্তান প্রসব করছে,সেই সন্তান কোলে নিয়ে হেটে চলছে, তার যে ব্লেডিং হচ্ছে ব্যথার সে তীব্রতার অনুভুতি তার নেই।এমন দৃশ্যের অভাব নেই সেখানে।সাত বছরের শিশু তার তিন বছরের ভাইকে,ছেলে তার বৃদ্ধ মাকে, মা তার দু’তিনটি শিশু সন্তানকে কোলে করে পাঁচদিন,দশদিন,পনের দিন একটানা হেটে ক্ষুধার্ত অবস্থায় শুধু বেঁচে থাকার আশায় বাংলাদেশে ঢুকছে,এমন দৃশ্য শত শত।রাস্তার পাশে,পথের দ্বারে একজন মহিলা,সাথে দু’ তিনটি শিশু সন্তান অভুক্ত ক্ষুধার্ত পড়ে আছে এমন হৃদয় বিদারক দৃশ্য হাজার হাজার।ক্ষিদের জ্বালায় অল্প কিছু খাবারের জন্য একে অপরের উপর হুমড়ি খেয়ে পড়ছে এমন দৃশ্য লাখো লাখো।


উফ্!!!অসহ্য আর লিখা সম্ভব হচ্ছে না।চোখের দু’কোন ভেসে যাচ্ছে নোনা জলে।

Kevin Carter,সাউথ আফ্রিকান ফটোজার্নালিস্ট,১৯৯৪ সালে দূর্ভিক্ষ কবলিত সুদানের জাতিসংঘের খাদ্য গুদামের পাশে একটি ছবি ক্যামরাবন্দি করেছিলেন,যেখানে দেখা যাচ্ছে ছোট্ট একটি শিশুর মৃত্যুর জন্য একটি শকুন অপেক্ষা করছে।এই ছবি তুলার পর তিনি মানসিকভাবে এতই ভেঙ্গে পড়েছিলেন যে,শেষ পর্যন্ত আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছিলেন।বাংলাদেশের কোন সাংবাদিক আত্মহত্যা করুক বা নাই করুক এমন ছবি যে অগণিত হবে তা নিশ্চিত বলা যায়।

পৃথিবীর এত রাষ্ট্র প্রধান,এত সুপার পাওয়ার, বার্মিজ মগ বাহিনীর এই নিষ্টুরতায় সবাই নিরব ???? ধিক্কার দেওয়া ছাড়া করার কিছুই নেই।

সান্তনা এটুকু বাংলাদেশের সাধারণ নিম্নমধ্যবিত্ত মানুষ যথাসাধ্য তাদের সহযোগিতা করে যাচ্ছে, যদিও এসব বিষয় উপর তলার বাসিন্দাদের আবেগে নাড়া দেয় না।

মানবতা আজ ভাসছে নাফ নদীতে।হাহাকার করছে- উখিয়া,টেকনাফ সহ দেশের দক্ষিন পূর্বের সীমান্তবর্তী অন্চলে।

লেখক-

শহিদুল ইসলাম

মানবাধিকার কর্মী

রাঙ্গুনিয়া।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
ডোনেট স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা আর্ত মানবতার সেবা মূলক প্রতিষ্ঠান। ডোনেট স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম, সরকার ও রাষ্ট্ররিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোন মন্তব্য না করার জন্য বর্নমালা টেলিভিশনের পাঠক ও সুভাকাঙ্খিদের বিশেষ ভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোন ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।
পাঠকের মন্তব্য
Advertisement
সম্পাদকীয়

যাহা করিবার এখনই করিতে হইবে

গ্রিনহাউস গ্যাসের জন্য ক্রমশ উত্তপ্ত হইয়া উঠিতেছে এই ধরিত্রী—ইহার স্বপক্ষে প্রকাশ পাইতেছে নিত্যনূতন তথ্য। গ্রিনহাউস গ্যাসের মধ্যে সবচাইতে বেশি উচ্চারিত নামটি হইল কার্বন ডাই-অক্সাইড। সমপ্রতি... বিস্তারিত
জনমত জরিপ

সংবিধান মোতাবেক নীতিমালা প্রণয়ন করে সর্বোচ্চ আদালতের বিচারপতি নিয়োগের দাবি জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি। আপনি কি এ দাবির সঙ্গে একমত?

Loading ... Loading ...
Developed By : Donet IT