আজ থেকে জাটকা ইলিশ ধরায় ৮ মাসের নিষেধাজ্ঞা

১ নভেম্বর ২০১৭, ৮:১৬ পূর্বাহ্ণ  -->| নিউজটি পড়া হয়েছে : 340 বার

bornomalatv

রেজাউল ইসলাম ফরাজী ঝালকাঠি প্রতিনিধি: ইলিশের বংশ বিস্তারসহ এর উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে আজ থেকে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত সারা দেশেই জাটকা আহরণ, পরিবহন ও বিপণন নিষিদ্ধ থাকবে। এর আগে আশ্বিনের ভরা পূর্ণিমার আগে-পরের ২২ দিন মূল প্রজনন মওসুমে উপকূলের প্রায় ৭ হাজার বর্গ কিলোমিটার এলাকার ইলিশ প্রজননস্থলে আহরণসহ সারা দেশেই ইলিশ আহরণ, পরিবহন ও বিপণন নিষিদ্ধ ছিল। ইতোপূর্বে এ নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ ৩০ নভেম্বর থেকে ৩০ মে হলেও চলতি বছর থেকে তা আরো দু’মাস বৃদ্ধি করে ১ নভেম্বর থেকে ৩০ জুন করা হয়েছে। পাশাপাশি জাটকার সংজ্ঞায়ও পরিবর্তন আনা হয়েছে। ইতোপূর্বে ৯ ইঞ্চি সাইজের ইলিশকে জাটকা হিসেবে চিহ্নিত করা হলেও এখন ১০ ইঞ্চি পর্যন্ত ইলিশকে জাটকা হিসেবে আখ্যায়িত করে তা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। নিষেধাজ্ঞার এ ৮ মাসে ১০ ইঞ্চির চেয়ে ছোট আকারের ইলিশ ধরা, বিক্রি, মজুত ও পরিবহন করলে সর্বোচ্চ দুবছরের সশ্রম কারাদণ্ড অথবা ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডের বিধান রয়েছে। গত ২২দিনের নিষেধাজ্ঞায় যৌথ টিমের অভিযান সফল হওয়ায় বিপুল সংখ্যক ডিম ছেড়েছে মা ইলিশ। ডিম থেকে লার্ভায় পরিণত হতে ২৪ ঘন্টা সময় লাগে। এরপর রেণু পোনায় রুপান্তরিত হয়। রেণু পোনার আরেক নাম গেদা ইলিশ। গেদা ইলিশের সময় কাল ৪৮ ঘন্টা থেকে ৩ সপ্তাহ। তখন তারা প্রায় ২৩ মিমি পর্যন্ত লম্বা হয়ে থাকে। ৩-৫ সপ্তাহে ২৩ মিমি থেকে ১২ সেমি পর্যন্ত বৃদ্ধি পায়। এ অবস্থায় তাদের পোনা বলে। ৬-১০ সপ্তাহে পোনা ১২ সেমি থেকে ২০ সেমি পর্যন্ত বড় হয়। তখন তাদের জাটকা বলে। একটি জাটকা মাছ পূর্ণাঙ্গ ইলিশে পরিণত হতে সময় নেয় ১ থেকে ২ বছর। তখন আয়তনে ৩২ সেমি থেকে ৬০ সেমি এবং ওজনে ১ থেকে ৩ কেজি পর্যন্ত হয়ে থাকে। জাটকারা মা ইলিশের সাথে সমুদ্রে চলে যায়। সেখানে পূর্ণাঙ্গ ইলিশে পরিণত হয়ে আবার প্রজনন কালে নদীতে ফিরে আসে। আমাদের জাতীয় অর্থনীতিতে ইলিশের একক অবদান ১%-এরও বেশী। মৎস্য সম্পদে একক প্রজাতি হিসেবে এ মাছের অবদান প্রায় ১২-১৩%। আর এ কারণেই ইলিশের বংশ বিস্তার ও এ সম্পদের টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে মৎস্য বিজ্ঞানীদের সুপারিশের আলোকে সরকার প্রজনন মওসুমে ইলিশ আহরণসহ নভেম্বর থেকে জুন পর্যন্ত টানা ৮ মাস সারাদেশে জাটকা আহরণ, পরিবহন ও বিপণন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। মৎস্য বিজ্ঞানীদের মতে, অভিপ্রায়নী মাছ ইলিশ প্রতিদিন স্্েরাতের বিপরীতে প্রায় ৭১ কিলোমিটার বিচরণ করে থাকে। ইলিশ সারা বছর ডিম ছাড়লেও আশ্বিনের বড় পূর্ণিমার আগে পড়ে শতকরা ৬০-৭০ ভাগেরও বেশী মা ইলিশ প্রজনন করে থাকে বিধায় ২০০৭ সাল থেকে এ সময়ে আহরণে নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হয়। এতে করে প্রচুর পরিমাণ মা ইলিশ আহরণ থেকে রক্ষা পাচ্ছে। ফলে দেশে অন্য মাছের তুলনায় ইলিশের উৎপাদন প্রতিবছর ৪% থেকে ৮% পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ওয়ার্ল্ড ফিশের পক্ষ থেকে দক্ষিণ এশিয়ার ৩০টি জনপ্রিয় মাছের পুষ্টিগুণ নিয়ে ২০১৫ সালের একটি গবেষণায় দেখা গেছে, সবচেয়ে পুষ্টিকর মাছ হচ্ছে ইলিশ। স্যামন ও টুনার পরেই পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি মানুষের কাছে জনপ্রিয় মাছ হচ্ছে ইলিশ। ইলিশের পুষ্টিগুণের বিস্তারিত হিসাব করে দেখা গেছে, প্রতি ১০০ গ্রাম ইলিশে ১ হাজার ২০ কিলো জুল (শক্তির একক) শক্তি থাকে। ১৮ থেকে ২২ গ্রাম চর্বি, ২২ মিলি গ্রাম ভিটামিন সি, ১৪ দশমিক ৪ গ্রাম প্রোটিন, ২ দশমিক ৪ মিলি গ্রাম আয়রন, সামগ্রিক ফ্যাটি অ্যাসিডের ১০ দশমিক ৮৩ শতাংশ ওমেগা-৩ থাকে। বিশ্বজুড়ে বর্তমানে ইলিশের পুষ্টিগুণের উপকারিতা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। ইলিশ মাছে ক্ষতিকর স্যাচুরেটেড ফ্যাটের পরিমাণ একেবারেই কম। অন্যদিকে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড থাকায় রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা কম থাকে। ইলিশ মাছ খেলে শরীরে রক্তসঞ্চালন ভালো হয়। ওয়ার্ল্ড ফিশের হিসাবে ওমেগা-৩ পুষ্টিগুণের দিক থেকে স্যামন মাছের পরেই ইলিশের অবস্থান। নিষেধাজ্ঞার ৮ মাসে জাটকা রক্ষার অভিযানে ঝালকাঠি জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল উপজেলার নির্বাহী অফিসার, সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে যৌথ টিম কাজ করবে। জেলার বিশখালী, সুগন্ধা, কীর্তনখোলা, গজালিয়া নদীতে এ যৌথ টিম মনিটরিংয়ের পাশাপাশি কোনো জেলে আইন অমান্য করলে তাৎক্ষণিক বিচারের আওতায় নিয়ে আসবে। এ যৌথ টিমে নৌ-পুলিশ, মৎস্য বিভাগও কাজ করবে।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
ডোনেট স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা আর্ত মানবতার সেবা মূলক প্রতিষ্ঠান। ডোনেট স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম, সরকার ও রাষ্ট্ররিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোন মন্তব্য না করার জন্য বর্নমালা টেলিভিশনের পাঠক ও সুভাকাঙ্খিদের বিশেষ ভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোন ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।
পাঠকের মন্তব্য
Advertisement
সম্পাদকীয়

যাহা করিবার এখনই করিতে হইবে

গ্রিনহাউস গ্যাসের জন্য ক্রমশ উত্তপ্ত হইয়া উঠিতেছে এই ধরিত্রী—ইহার স্বপক্ষে প্রকাশ পাইতেছে নিত্যনূতন তথ্য। গ্রিনহাউস গ্যাসের মধ্যে সবচাইতে বেশি উচ্চারিত নামটি হইল কার্বন ডাই-অক্সাইড। সমপ্রতি... বিস্তারিত
জনমত জরিপ

সংবিধান মোতাবেক নীতিমালা প্রণয়ন করে সর্বোচ্চ আদালতের বিচারপতি নিয়োগের দাবি জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি। আপনি কি এ দাবির সঙ্গে একমত?

Loading ... Loading ...
Developed By : Donet IT